• আজ ২৭শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হকের ৫৮তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

৫:২২ অপরাহ্ণ | সোমবার, এপ্রিল ২৭, ২০২০ গুণীজন সংবাদ

মো:নজরুল ইসলাম,ঝালকাঠি প্রতিনিধি: শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হকের ৫৮তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। এ কে ফজলুল হক ১৮৭৩ সালের ২৬ অক্টোবর ঝালকাঠি জেলার রাজাপুরের সাতুরিয়া গ্রামের মিঞা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। , মৃত্যু ২৭ এপ্রিল ১৯৬২।

বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে তিনি অবিভক্ত বাংলার প্রধানমন্ত্রী, পাকিস্তান কেন্দ্রীয় সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর, যুক্তফ্রন্ট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী, অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী, কলকাতা সিটি করপোরেশনের প্রথম মুসলিম মেয়র এবং আইনসভার সদস্যসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনেও তার অবদান ছিল। ১৯৪০ সালে তিনি ঐতিহাসিক লাহোর প্রস্তাাব উত্থাপন করেন। তিনি ২১ দফা দাবিরও প্রণেতা ছিলেন।

রাজনৈতিক নেতার ওয়ারিশ হলো তার রাজনৈতিক সংগঠন। সাধারণত দলীয় উদ্যোগেই প্রয়াত নেতার স্মরণ সভা-সেমিনার ইত্যাদি হয়ে থাকে। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে শেরে বাংলার দলটাকে তার অনুসারীরা তার মৃত্যুর পর বেচনা-কেনা করে কলঙ্কিতও করেছে আবার তামাদি করেও রেখে গেছে। অথচ দলটা অবিভক্ত বাংলায় ক্ষমতাসীন ছিল, শেরে বাংলা এই দলের নেতা হিসেবে অবিভক্ত বাংলার প্রিমিয়ারও ছিলেন।

প্রসঙ্গক্রমে বলতে হয়, মাওলানা ভাসানীর দল ন্যাপেরও একই অবস্থা। তার মৃত্যুর পর মশিউর রহমান যাদু মিঞা উচ্চাকাঙ্ক্ষী সামরিক স্বৈরাচার জিয়াউর রহমানের কাছে সিনিয়র মিনিস্টারের পদের লোভে ন্যাপকে বিক্রি করে দিয়েছিলেন। এখন শেরে বাংলার কৃষক প্রজা পার্টি আর মাওলানা ভাসানীর ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির অস্তিত্ব নেই। মাওলানা ভাসানীর কিছু ভক্ত অনুসারী এখন বেতের টুপি মাথায় দিয়ে তোপখানা রোডে ঘুরাঘুরি করে। তাদের শেষ অভিলাষ কী কে জানে।

বরিশাল পৌরসভার কমিশনার নির্বাচিত হওয়ার মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন। রাজনৈতিক দক্ষতায় আর বাংলার মানুষের জন্য তার অবদানে ক্রমেই সাধারণ মানুষের কাছে হয়ে ওঠেন শেরে বাংলা বা বাংলার বাঘ। রাজনৈতিক মহলে ‘হক সাহেব’ নামে পরিচিত ছিলেন। বিংশ শতাব্দীর প্রথমার্ধে বাঙালি কূটনীতিক হিসেবে পরিচিত হন। ১৯২২ সালে মহাত্মা গান্ধী অসহযোগ আন্দোলন প্রত্যাহার করে নিলে শেরে বাংলা এ কে ফজলুক হক খুলনা উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে নির্বাচিত হন।

১৯২৪ সালে খুলনা অঞ্চল থকে তিনি পুনরায় আইন পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন এবং এ সময় বাংলার গভর্নর ছিলেন লিটন, তিনি ফজলুল হককে বাংলার শিক্ষা ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী নিয়োগ করেন। তিনি ছিলেন কলকাতার মেয়র (১৯৩৫), অবিভক্ত বাংলার প্রধানমন্ত্রী (১৯৩৭ – ১৯৪৩), পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী (১৯৫৪), পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (১৯৫৫), পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর (১৯৫৬-১৯৫৮)। আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্তফ্রন্ট গঠনে প্রধান নেতাদের মধ্যে তিনি অন্যতম। বঙ্গবন্ধুও অল্প কয়েক দিন তার মন্ত্রিসভার সদস্য ছিলেন।

এমন কিছু ব্যক্তি আছেন যারা দলের ঊর্ধ্বে, কালের ঊর্ধ্বে। মহাকাল তাদের অস্তিত্বকে নিঃশেষ করতে পারে না। এরা কালোত্তীর্ণ মহাপুরুষ। জাতিই তাদের স্মরণ করে। বাঙালি জাতির কৃতজ্ঞতাবোধ কম। এখানেই সংকট। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের কোনায় শেরে বাংলা ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী আর খাজা নাজিম উদ্দীনের কবর। তিনজনই অবিভক্ত বাংলার প্রিমিয়ার ছিলেন। সেখানে সামরিক শাসক জিয়াউর রহমান তাদের কবরের ওপর সমাধি তৈরি করেছেন। যে অবকাঠামোতে সমাধি তৈরি করা হয়েছে তা দেখলে সমাধি বলে মনে হয় না। কাঠামোটা দেখতে কোনো জাদুঘরের কাঠামোর মতো।

এ উপমহাদেশে উৎকৃষ্ট সমাধিসৌধ হলো তাজমহল। অত টাকা ব্যয় করে না হোক কম টাকা ব্যয় করে অনুরূপ সমাধিসৌধ বানানোই উত্তম ছিল। এখন কোনো অজানা লোক পাশে দিয়ে যাওয়ার সময় বুঝতে পারে না যে এখানে তিন মহান ব্যক্তি চিরনিদ্রায় শায়িত। শেরে বাংলা ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহারাওয়ার্দী, মাওলানা ভাসানী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব এরা জাতির প্রেরণার স্থল। এদের সমাধিসৌধকে প্রেরণা জাগানো অবকাঠামোয় রাখা উচিত।

ব্রিটিশরা এ উপমহাদেশের শাসনভার নিয়েছিল মুসলমান শাসকদের হাত থেকে। বাংলা বিহার উড়িষ্যার নবাব ছিলেন সিরাজদ্দৌল্লাহ্, মহীশুরের রাজা ছিলেন টিপু সুলতান, অযোধ্যার নবাব ছিলেন ওয়াজেদ আলী খাঁন। সারাভারতেই ছিল মুসলিম শাসকদের অধীন। রাজ্যহারা মুসলমানরা সহজে ব্রিটিশরাজকে মেনে নেয়নি। মুসলমানরা শতশত বার বিদ্রোহ করেছে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে। বিদ্রোহী মুসলমান দীর্ঘদিন বিদ্রোহী থেকে শেষে হলো বিপর্যস্থ ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষ কয় দশকে বিপন্ন মুসলমানদের উদ্ধার করার জন্য যে কয়জন মনীষী এগিয়ে আসনে তারা ছিলেন নবাব আব্দুল লতিফ, জাস্টিস আমির আলী, স্যার সৈয়দ আহাম্মদ খাঁন দেহলভী, বিংশ শতাব্দীতে এসে যোগ দিলেন শেরে বাংলা ফজলুল হক, স্যার সিকান্দার প্রমুখ। এদের মাঝে স্যার সৈয়দ আহাম্মদ খাঁন দেহলভী ও শেরে বাংলা ফজলুল হক মুসলমানদের শিক্ষিত করে গড়ে তোলার যে উদ্যোগ নিয়েছিলেন তা ছিল ঐতিহাসিক এবং সফলকাম।

১৯২০ সালে যখন স্কুল-কলেজ বয়কট করার আন্দোলন শুরু করেছিলেন ভারতীয় নেতারা তখন কিন্তু শেরে বাংলা ফজলুল হক ছাত্রদের লেখাপড়া ছেড়ে আন্দোলন যোগদান না করার আহ্বান জানিয়েছিলেন বারবার। ভারতীয় নেতৃবৃন্দ ১৯২০ সালের ১২ ডিসেম্বর ঢাকার আরমানিটোলা ময়দানে মিটিং করেছিলেন এবং এ মিটিংয়ে দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস ছিলেন মূল বক্তা। সভায় বক্তারা স্কুল-কলেজ ত্যাগ করার আহ্বান জানিয়েছিলেন। সভার শেষভাগে এসে শেরে বাংলা সব ছাত্রকে স্কুল-কলেজ ত্যাগ না করার আহ্বান জানিয়ে বক্তৃতা দিলেন। তিনি মুসলমান ছাত্রদের স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেছিলেন মুসলমানরা শিক্ষায় পিছিয়ে আছে তাদের স্কুল-কলেজ বয়কট করার প্রশ্নই আসে না। বয়কট আন্দোলনের সময়েই শেরে বাংলা ১৯২৪ সালে ১ জানুয়ারি শিক্ষামন্ত্রী হয়েছিলেন। মন্ত্রিত্ব দীর্ঘ সময় করতে পারেননি। কিন্তু স্বল্প সময়ের মন্ত্রিত্বেই তিনি কলকাতা ইসলামিয়া কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু ইসলামিয়া কলেজের ছাত্র ছিলেন। ১৯১৬ সালে হক সাহেব কলকাতায় টেইলর হোস্টেল ও কারমাইকেল হোস্টেল প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এ হোস্টেল দুটি স্থাপন করায় বাংলার বিভিন্ন জেলার মুসলিম ছাত্ররা এসে কলকাতায় লেখাপড়ার সুযোগ পেয়েছিলেন। তখনকার দিনে কলকাতায় আবাসিক সংকট ছিল।

শেরে বাংলা ছিলেন সবসময় কৃষক প্রজার অনুকূলে অবস্থান নেয়া নেতা। যদিও বা তিনি একাধারে মুসলিম লীগের সভাপতি ছিলেন আবার নিখিল ভারত কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদকও ছিলেন। কিন্তু নবাব জমিদারে ভরা উভয় দলে তার অবস্থানকে তিনি কখনও গরিব কৃষক প্রজার অনুকূলে হিতকর কিছু করার উপযুক্ত পরিবেশ বলে বিবেচনা করেননি। তাই তিনি মনে মনে স্থির করেছিলেন কৃষক প্রজার স্বার্থ রক্ষার জন্য তিনি একটা সংগঠন গড়ে তুলবেন। তিনি তার পূর্বপ্রস্তুতি হিসেবে কিছু কিছু প্রজা সম্মেলনও বিভিন্ন জেলায় করেছিলেন।

১৯২৬ সালে মানিকগঞ্জের ঘিওর হাটের সম্মেলন থেকে কৃষক প্রজা পার্টির যাত্রা শুরু। ঘিওর হাটের সম্মেলনের উদ্যোক্তারা ছিলেন আব্দুল লতিফ বিশ্বাস, মাহাবুব আলী খাঁন মজলিস, খাঁন বাহাদুর আওলাদ হোসেন, ইসহাক খাঁন মজলিশ, ডা. তাফাজ্জল হোসেন, রেজাউল করিম, আব্দুলস সামাদ মোক্তার, সুন্দর আলী গান্ধী, আব্দুল কাদের সর্দ্দার, নইমুদ্দীন আহাম্মদ, আব্দুল হাকিম বিক্রমপুরী প্রমুখ। এ সম্মেলনে লক্ষাধিক কৃষক প্রজা উপস্থিত হয়েছিল।

১৯২৭ সালে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে ‘বঙ্গীয় কৃষক প্রজা পার্টি’ গঠনের ঘোষণা প্রদান করেছিলেন। এ পার্টির সভাপতিও ছিলেন তিনি নিজেই। নেতা ছিলেন সৈয়দ নওশের আলী, নির্মল কুমার ঘোষ, আসাদ উদ্দৌলা সিরাজী, মাওলানা আহাম্মদ আলী, পীর বাদশা মিঞা বিরাট চন্দ্র মশুল, রজীব উদ্দীন তরফতার, প্রভাতচন্দ্র লাহিড়ী, হাজী লাল মুহাম্মদ আবুল হোসেন সরকার, কাজী এমদাদুল হক, মাওলানা আব্দুল্লাহিল বাকী, আশরাফ উদ্দীন চৌধুরী, শাহেদ আলী, মাওলানা গোলাম সত্তার, মাওলানা মনিরুজ্জমান ইসলামবাদী প্রমুখ।

১৯৩৭ সালের নির্বাচনে মুসলিম লীগ এবং কৃষক প্রজা পার্টি সমান সমান আসন পেয়ে কোয়ালিশন মন্ত্রিসভা গঠন করেছিল। মন্ত্রী হয়েছিলেন নবাব হাবিবুল্লাহ বাহাদুর, স্যার নাজিম উদ্দীন, সৈয়দ নওশের আলী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, নবাব মোশারফ হোসেন, বাবু নলিনী রঞ্জন সরকার, স্যার বিপি সিং রায়, মহারাজ শীষ চন্দ্র নন্দী, মি. মুকুন্দ বিহারী মল্লিক এবং মি. প্রসন্ন দেব রায়কত।

বাংলার বিশেষ করে পূর্ব বাংলার কৃষককুল ছিল ঋণে জর্জরিত। জমিদারের খাজনার অত্যাচার আর মহাজনীঋণ এ দুই সমস্যায় কৃষকরা ছিল অস্থির। খাই খালাসী, জয়সুদী, পাট্টা, কবুলিয়ত কত রকমের ফাঁদ ছিল সুদীব্যবস্থায় মহাজনদের। হক সাহেব সর্বপ্রথম মন্ত্রিসভা গঠন করে মহাজনদের হাত থেকে কৃষককে রক্ষার জন্য ঋণসালিশি বোর্ড ও মহাজনী আইন করার উদ্যোগ নিলেন। এই আইনই বাংলার কৃষক সমাজকে সাইলকী প্রথা থেকে মুক্তি দিয়েছিল। এমন এক চক্রের মাঝে কৃষকরা আবদ্ধ ছিল যে তার থেকে বের হওয়াই ছিল মুশকিল। হক সাহেব ছিলেন উকিল। আইনটি এমনভাবে প্রণয়ন করা হয়েছিল যে সব সুবিধাই ছিল কৃষকের অনুকূলে। এ আইন কার্যকর হওয়ার পর সমগ্র বাংলাদেশে শেরে বাংলা কৃষকদের কাছে মুকুটহীন সম্রাট হয়ে উঠলেন।

জমিদারী প্রথা উচ্ছেদ করার কথা দিয়েছিলেন হক সাহেব। কোয়ালিশন মন্ত্রিসভায় জমিদের সংখ্যাই বেশি তবুও তিনি বিষয়টি একটা সুশৃঙ্খল সমাধানের জন্য কমিশন গঠন করেছিলেন। কমিশনের চেয়ারম্যান করেছিলেন স্যার ফ্রান্সিস ফ্লাউডকে। জমিদারদের পক্ষে ছিলেন বর্ধমানের জমিদার স্যার বিজয় চাঁদ মাহাতাব, গৌরীপুরের জমিদার বীরেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী, কৃষক প্রজাদের পক্ষে ছিলেন খাঁন বাহাদুর হাসেম আলী খাঁন, খাঁন বাহাদুর আব্দুল মোমেন ও খাঁন বাহাদুর মোয়াজ্জেম হোসেন। ফ্লাউড কমিশন কাজ করেছিলেন অনেকদিন।

ভারতীয় উপমহাদেশে বসবাসকারী মুসলিমদের জন্য একটি পৃথক রাষ্ট্রের দাবি জানানোর ক্ষেত্রে ঐতিহাসিক ভূমিকা রাখেন শেরে বাংলা। ১৯৪০ সালের ২৩ মার্চ লাহোরে অনুষ্ঠিত মুসলীম লীগের অধিবেশনে মুহাম্মদ আলী জিন্নাহর সভাপতিত্বে মুসলিম লীগের পক্ষ হতে ঐতিহাসিক লাহোর প্রস্তাবের প্রারম্ভিক খসড়া তৈরি করেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী সিকান্দার হায়াত খান এবং প্রস্তাবটি উপাস্থাপন করেন এ কে ফজলুক হক।

শেরে বাংলা ফজলুল হকের জীবন এত দীর্ঘ ও এত ঐতিহাসিক কাজের সঙ্গে তিনি সম্পৃক্ত যে তার পূর্ণাঙ্গ আলোচনা একটি কলামে শেষ হওয়ার নয়। কয়েক খন্ডে পুস্তক রচনা করতে হয়। এ কথাটা সত্য যে শেরে বাংলার মতো ব্রিটিশের সময়ে কোনো নেতাই কোনো প্রেসিডেন্সির প্রিমিয়ার হয়ে মানুষের এত উপকার করতে পারেননি।