বন্য আলু খেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন ঘাটাইলের বৃদ্ধ আরফান

◷ ১২:৫৯ অপরাহ্ন ৷ মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৮, ২০২০ ঢাকা, দেশের খবর

খাদেমুল ইসলাম মামুন, ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি- টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার সাগরদিঘী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের কামালপুর গ্রামের আলাসিন পাড়ার বয়োজ্যেষ্ঠ আরফান আলী (৭০)। তিনি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে কর্মহীন হয়ে পড়ায় অভাবে বন্য আলু খেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

জানা যায়, আরফান আলীর বসতবাড়ি ছাড়া কোন জমিজমা নেই। নেই কোন আয় রোজগারের সুনির্দিষ্ট পথ। তার বিধবা মেয়ে হাসনা বেগম দিনমজুরের কাজ করেন।

এদিকে করোনা ভাইরাসের কারণে তিনি কাজ করতে না পেরে এখন অর্ধাহারে অনাহারে মানবেতর দিনাতিপাত করছেন। প্রতিদিন জঙ্গল থেকে মাটি খুড়ে বন্য আলু তুলে এনে সেগুলো সিদ্ধ করে বাবা-সন্তানদের নিয়ে খেয়ে কোনরকমে ক্ষুধা নিবারণ করে বেঁচে আছেন হাসনা বেগমরা।

হাসনা বেগমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি তার অসহায়ত্বের কথা কান্নাজড়িত কণ্ঠে তুলে ধরেন। তিনি বলেন, বন্য আলু খেয়ে বেচেঁ আছি। মাটির নিচের আলু সংগ্রহ করে তা সিদ্ধ করে খেয়ে বাবা ও সন্তানদের নিয়ে কোনরকমে জীবন রক্ষা করছি।

হাসনা বেগম বলেন, আমার স্বামী নাই। আমরা আগে দিনমজুরের কাজ করতাম। কিন্তু এখন আমাদের কোন কাজ নাই, তাই না খেয়ে চলছে দিন । করোনাভাইরাসের দুর্ভোগে আমাদের কোন মেম্বার চেয়ারম্যান সাহায্য করেন নাই। আজকেও (২৮ এপ্রিল) গিয়েছিলাম জঙ্গলে আলু উঠানোর জন্য।

তিনি বলেন, আমরা খেয়ে না খেয়ে রোজা রাখতেছি, আর আল্লাহকে ডাকতেছি যেন তিনি আমাদের রক্ষা করেন।

তবে আরফান আলী ও তার মেয়ে হাসনা বেগমের এই দুর্ভোগের চিত্র চোখে পড়েনি জনপ্রতিনিধিদের।

সাগরদিঘী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হেকমত সিকদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টা দুঃখজনক। আমার ইউনিয়নে কেউ না খেয়ে থাকুক এটা আমি চাই না। কামালপুর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যের উচিত ছিল বিষয়টা আমাকে জানানো। যত দ্রুত সম্ভব আমি ওই বাড়িতে খাবার পাঠাবো।