• আজ বৃহস্পতিবার, ১২ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২৮ অক্টোবর, ২০২১ ৷

কৃষকের সবুজ ধান কাটা নিয়ে সমালোচনার ঝড়, যা বললেন সাংসদ ছোট মনির


❏ বুধবার, এপ্রিল ২৯, ২০২০ ঢাকা, দেশের খবর

মোল্লা তোফাজ্জল, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি- অধিকাংশ মাঠেই এখন পেকে গেছে বোরো ধান। তবে শ্রমিক সংকটে সেই ধান কাটা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা। তাই ধান কেটে ঘরে তুলতে কৃষককে সাহায্য করছেন জেলার আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

অনেক জেলায় এমপিরাও মাঠে গিয়ে নেতাকর্মীদের ধান কাটার কাজ তত্ত্বাবধান করছেন বলে গণমাধ্যমে প্রায়ই খবর প্রকাশিত হচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় গত সোমবার (২৭ এপ্রিল) ক্ষেতের ধান কেটে কৃষককে সাহায্য করলেন টাঙ্গাইল-২ (গোপালপুর-ভূঞাপুর) আসনের সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির।

পরদিন মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) এমপির সেই ধান কাটার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়, সেখানে তিনি কৃষকের কাঁচা ধান কেটেছেন- এমনটা দাবি করে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে।

তবে সাংসদ ছোট মনির দাবি করেছেন কাঁচা ধান নয়, তিনি পাকা ধান কেটেছেন। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাও জানিয়েছেন, উপর দিয়ে কাঁচা দেখা গেলেও মূলত সাংসদ পাকা ধানেই কেটেছেন।

জানা যায়, করোনা ভাইরাসে প্রার্দুভাব ঠেকাতে ৭ এপ্রিল থেকে জেলা ব্যাপি লকডাউন ঘোষণা করছেন জেলা প্রশাসন। এতে বন্ধ হয়ে গেছে মানুষের স্বাভাবিক জীবন ব্যবস্থা। বন্ধ রয়েছে অফিস, আদালত, হাটসহ নানা ধরণের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আর লোক সমাগম। এছাড়াও মানতে হচ্ছে সামাজিক দুরত্ব। এর ফলে কর্মহীন হয়ে পরেছে নিম্ন আয়ের মানুষ। এর মধ্যেই পাকতে শুরু করেছে ধান। তবে দেখা দিয়েছে ধান কাটায় চরম শ্রমিক সংকট। এমনই ধান কাটার শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলা জুড়ে।

এমন খবর পেয়ে গত সোমবার দুপুরে গোপালপুর পৌর শহরের সোদুল্ল্যার আব্দুল লতিফ মিয়ার ছেলে সুজনের ২০ শতাংশ জমির ধান কেটে সাহায্য করেন টাঙ্গাইল-২ (গোপালপুর-ভূঞাপুর) আসনের সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোটমনির। এ সময় তার সাথে ছিল গোপালপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সাইফুল ইষরঅম তালুকদার সুরুজ, গোপালপুর পৌরশহর যুবলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান টগরসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, সংবাদটি জানতে পেরে এমপির ধান কাটা ওই জমিতে সরেজমিন যাই আমি। এ জমিতে আবাদকৃত ধানটি ছিল বিধান ২৮। যা এখন কাটার সময়। এছাড়াও নদী পাড়ের জমিটি হওয়ায় ধানের শীষ পাঁকা হলেও এর পাতাগুলো রয়েছে সবুজ। এ কারণে মানুষের কাছে মনে হচ্ছে এমপি মহাদয় কাঁচা ধান কাটছেন।

জানতে চাইলে সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির বলেন, আমি গোপালপুরে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করে পৌরসভার সুভুন্দি গ্রামের ধান ক্ষেতের আইল দিয়ে ফিরছিলাম। এসময় দেখি একজন কৃষক তার জমিতে একাই ধান কাটছেন। কারণ জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, শ্রমিক না পাওয়ায় একাই ধান কাটছেন। তার ৩০ শতাংশ জমির ৮০ ভাগ ধান তিনি একাই কেটেছেন।

তিনি বলেন, পরে আমি আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বলি, আমি ধান কেটে উদ্বোধন করে দেই, বাকিটা তোমরা কেটে দাও। পরে নেতাকর্মীরা বাকি ধান কেটে দেয়। এখন বিভিন্নজন বলছে, আমি কাঁচা ধান কেটেছি- এটি সত্য নয় । আমি কেন কাঁচা ধান কাটতে যাব? ধান পেকেছে বিধায় ওই কৃষক তার ৮০ ভাগ একাই কেটে ফেলেছেন।

সংসদ সদস্য বলেন, করোনা উপেক্ষা করে দিনরাত গোপালপুর-ভুঞাপুরের বিভিন্ন এলকায় ঘুরে অসহায় ও গরীব লোকজনের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করে যাচ্ছি। সুখে দুঃখে তাদের পাশে রয়েছি। তবে কিছু লোক সোস্যাল মিডিয়ায় ছড়াচ্ছেন কাঁচা ধান কাটা হয়েছে। এটি ভিত্তিহীন ও গুজব।