দেশের করোনামুক্ত শেষ জেলা রাঙামাটি

১১:২১ অপরাহ্ন | বুধবার, এপ্রিল ২৯, ২০২০ ফিচার
corona

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ বাংলাদেশে হুহু করে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। দেশে এ পর্যন্ত ৬৩টি জেলার ৭১০৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন ১৬৩ জন। তবে ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের একমাত্র জেলা রাঙামাটি, যেখানে এখনো করোনা পজেটিভ রোগী পাওয়া যায়নি।

বুধবার (২৯ এপ্রিল) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৪ হাজার ৭০৬টি। আগের নমুনাসহ একদিনে পরীক্ষা করা হয়েছে ৪ হাজার ৯৬৮টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৫৯ হাজার ৭০১টি। নতুন যাদের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে, তাদের মধ্যে আরও ৬৪১ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৭ হাজার ১০৩।

একই সময়ে দেশে মৃত্যু হয়েছে আরও ৮ জনের। তাদের মধ্যে ছয়জন ঢাকার বাসিন্দা এবং দুইজন ঢাকার বাইরের। বয়স বিশ্লেষণে দেখা গেছে, মৃতদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব ৪ জন, ৫১ থেকে ৬০ এর মধ্যে ২ জন, ৩১ থেকে ৪০ এর মধ্যে ২ জন। এদের ছয়জন পুরুষ, দুইজন মহিলা। এ নিয়ে করোনা মোট ১৬৩ জনের প্রাণ কেড়ে নিলো। এছাড়া ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন আরও ১১ জন, এ নিয়ে সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫০-এ।

দেশের ৬৩টি জেলায় করোনা রোগী শনাক্ত হলেও রাঙামাটিতে এখনো করোনা পজেটিভ রোগী পাওয়া যায়নি। সর্বশেষ প্রতিবেশী জেলা খাগড়াছড়িতে এদিনই নারায়ণগঞ্জ ফেরা একজনের শরীরে করোনা পজেটিভ মেলে।

রাঙামাটি জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানাচ্ছে, ২৯ এপ্রিল রাত অবধি এই জেলা থেকে মোট ২২১ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য চট্টগ্রামে পাঠানো হয়েছে, এদের মধ্যে ১৩২ জনের রিপোর্ট এসেছে এবং প্রতিটি রিপোর্টই নেগেটিভ। বাকি রিপোর্ট অপেক্ষমান আছে। একই সময়ে জেলায় মোট ১ হাজার ৭৭৭ জনকে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে, এদের মধ্যে হোম কোয়ারেন্টিনে ১ হাজার ২৬৮ জন এবং প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে ৫০৯ জন।

রাঙামাটির জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশীদ বলেন, আমাদের চেষ্টা ও রাঙামাটিবাসীর সহযোগীতা সচেতনতা আন্তরিকতার কারণে এখনো আমরা করোনামুক্ত আছি। তবে নিরাপদ নই এখনো আমরা, করোনামুক্তও থাকতে পারব এমন কোনো নিশ্চয়তা নেই। এই জন্য সবাইকে সচেতন ও দায়িত্বশীল হতে হবে। কোনোভাবেই বর্তমান পরিস্থিতিকে ঢিলেঢালা করা যাবে না। বাসায় থাকতে হবে, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে।