করোনা নিয়ে ট্রাম্পকে ১২ বার সতর্ক করেছিল সিআইএ

১১:৩৭ অপরাহ্ন | বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ৩০, ২০২০ আন্তর্জাতিক
cia

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ চীনে করোনা সংক্রমণের বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অন্তত ১২ বার সতর্ক করেছিল দেশটির কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা- সিআইএ। কিন্তু করোনা প্রতিরোধে কার্যকর কোন ব্যবস্থা নেননি ট্রাম্প। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার বর্তমান ও সাবেক কয়েকজন কর্মকর্তা দেশটির গণমাধ্যম দ্য ওয়াশিংটন পোস্টকে এ কথা জানিয়েছেন।

করোনার প্রাদুর্ভাব শুরুর দিকে ভাইরাসটির ভয়াবহতা নিয়ে উদাসীন থাকার অভিযোগ আছে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে। অনেক বিশেষজ্ঞ বলছেন, আগাম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে গড়িমসি করার কারণে যুক্তরাষ্ট্রে করোনার সংক্রমণ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে সেই অভিযোগ জোরালো হলো।

বর্তমান ও সাবেক মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা ওয়াশিংটন পোস্টকে জানিয়েছে, জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি ট্রাম্পকে বারবার সতর্ক করে দেয়া হয়েছিল। বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ খবর ও নিরাপত্তা হুমকি নিয়ে প্রতিদিন সকালে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে যে ব্রিফ করা হয় এবং দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয় সেখানে এমন সতর্কতা করা হয়েছিল।

ওই ব্রিফিংয়ে কয়েক সপ্তাহ ধরে ট্রাম্পকে বলা হয়েছিল যে, চীন সংক্রমণ এবং মৃত্যুর তথ্য গোপন করছে এবং এই ভাইরাসের কারণে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ভয়াবহ পরিণতি ব্যাপারেও সতর্ক করা হয়েছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কর্মকর্তারা ওয়াশিংটন পোস্টকে বলেন, ট্রাম্প এই হুমকি খাটো করে দেখেছেন এবং বৈশ্বিক মহামারি সংক্রান্ত সমন্বিত প্রতিবেদন পড়া থেকে বিরত থেকেছেন।

উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বরের শেষে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি। কিন্তু করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। এখন পর্যন্ত দেশটিতে শনাক্ত হওয়া করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭২ জন। আর মৃতের সংখ্যা ৬১ হাজার ৬৬৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২৮ হাজার ৪২৯ জন আর মারা গেছেন ২ হাজার ৩৯০ জন।

মৃতের সংখ্যা হু হু করে বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে ভেন্টিলেটরের সংকটকে দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। কৃত্রিমভাবে শ্বাস-প্রশ্বাসের জন্য অত্যন্ত জরুরি এই মেশিনটি পর্যাপ্ত থাকলে অনেক রোগীকে বাঁচানো যেত বলেই মনে করছেন তারা।

সংক্রমণ এম চূড়ায় উঠলেও বিশেষজ্ঞদের সতর্কবার্তা উপেক্ষা করে দেশের অর্থনৈতিক কার্যক্রম পুনরায় শুরু করার জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ট্রাম্প। ইতোমধ্যে ক্যালিফোর্নিয়া, টেক্সাস, ওয়াশিংটনসহ একাধিক অঙ্গরাজ্যে লকডাউন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।