সংবাদ শিরোনাম

বাংলাদেশকে তিস্তার পানি না দেয়ার সাফ ঘোষণা মমতারশ্বশুরবাড়ি যাওয়ার আগে কাঁদতে কাঁদতেই মারাই গেলেন কনে!এবার ‘টোকাই’ হয়ে আসছেন হিরো আলমহাসপাতালের ওষুধ পাচারের ছবি তোলায় ১০ সংবাদকর্মী তালাবদ্ধবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ স্বাধীনতার প্রকৃত ঘোষণা: প্রধানমন্ত্রীনির্মাণকাজ শেষের আগেই ‘মডেল মসজিদের’ বিভিন্ন স্থানে ফাটলআহসানউল্লাহ মাস্টারসহ ১০ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান পাচ্ছেন স্বাধীনতা পুরস্কারঐতিহাসিক ৭ মার্চের সুবর্ণ জয়ন্তী: টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে মানুষের ঢলচট্টগ্রাম কারাগারে হাজতি নিখোঁজ, জেলার-ডেপুটি জেলার প্রত্যাহারদেবীগঞ্জে ট্রাক্টরের চাপায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু

  • আজ ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

একই পরিবারের ৩ জনসহ দিনাজপুরে আরও ২০ জন করোনা আক্রান্ত

১১:৩৫ অপরাহ্ন | শনিবার, মে ২, ২০২০ রংপুর
test

শাহ্ আলম শাহী, স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর থেকেঃ দিনাজপুরে একই পরিবারের স্বামী-স্ত্রী ও তাদের এক শিশুসহ ৩ জন নতুন করে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের বাড়ি কাহারোল উপজেলার সুন্দরপুর ইউনিয়নে। তারা কয়েকদিন আগে নারায়ণগঞ্জ থেকে এসেছেন। হোম কোয়ারেন্টিনে ছিলো তারা।

এ নিয়ে দিনাজপুরে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০ জনে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৬ জন। শহরে এক দম্পতি ও তার শিশু এবং নয়নপুরে একজনসহ ৪ জন, বাকি দু’জনের মধ্যে একজন আউলিয়াপুর ইউনিয়নের হরহরিপুর গ্রামে এবং অপরজন চেহেলগাজী ইউনিয়নের শিবরামপুরে।

নবাবগঞ্জ উপজেলায় ৩ জন, ঘোড়াঘাট উপজেলায় দু’জন, হাকিমপুর(হিলি) উপজেলায় দু’জন, ফুলবাড়ী উপজেলায় একজন, পাবর্তীপুর উপজেলায় একজন, কাহারোল উপজেলায় ৪ জন এবং বোচাগঞ্জ উপজেলায় একজন করোনায় আক্রান্ত রয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে ৪ জন মহিলা, একজন শিশুপুত্র, একজন শিশুকন্যা ও ১৪ জন পুরুষ বলে জানিয়েছেন দিনাজপুর জেলা সিভিল সার্জন ডা.আব্দুল কুদ্দুস।

তিনি জানান, আক্রান্ত ২০ জনের মধ্যে ১৯ জনেই ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর ফেরত। আর একজন স্থানীয়।

দিনাজপুরে বরোনাভাইরাস সংক্রমন ঝুঁকি এড়াতে অনির্ষ্টকালের লকডাউন চলছে। ১৫ এপ্রিল রাত ১০টা থেকে শুরু হয়েছে এই লকডাউন। কিন্তু লকডাউন চলছেও জেলায় অধিকাংশ মানুষ মানছেনা লকডাউন। শহরে পুলিশ, র‌্যাব, সেনাবাহিনী টহল দিলেও জেলায় অধিকাংশ মানুষ মানছেন না সামাজিক দূরত্ব।

পাড়া-মহল্লায় জটলা বেধে আড্ডা, খোশ-গল্প চলছে। যান বাহন চলছে। চলছে উল্লাসও। লকডাউনের নামে বেশকিছু পাড়া-মহল্লার প্রধান রাস্তাগুলো বাঁশ, ঝাড়-জঙ্গল ফেলে অবরোধ করে দিয়েছে স্থানীয় কিছু স্বার্থন্বেষী ব্যক্তি ও বখাটে তরুণ-যুবকেরা। একারণে এম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, প্রশাসনের লোকজন এবং ত্রাণকর্মীরা ওসব এলাকায় প্রবেশ করতে পারছেন না। তবে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আড্ডাবাড়ি নেশা বিক্রির অভিযোগও রয়েছে।

অন্যদিকে প্রতিদিন বাজারগুলোতেও উপচে পড়া ভীড় পরিলক্ষতি হচ্ছে। প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে বের হচ্ছে মানুষ। যারা বের হচ্ছেন,আইন শৃংখলা বাহিনী আটক করলেই বিভিন্ন অজুহাত দেখাচ্ছেন তারা। এ কারণে জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম নতুন করে শুক্রবার বিকেলে জরুরী বিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন। তাতে জনসাধারণকে ঘরে থাকার আহবান জানিয়ে পরিবহন, ইজিবাইক চলাচলাচলে নিষেধাজ্ঞা, মোটর সাইকেল বের করার বিষয়ে শর্ত আরোপ করেছেন।

এছাড়া কাাঁচা বাজার ও মুদির দোকান সকাল ৬টা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত এবং একমাত্র ওষুধের দোকান সর্বক্ষণ খোলা থাকবে। তবে অন্যান্য সব দোকানপাট মিলকারখানা বন্ধ থাকবে বলেও জরুরী বিজ্ঞপ্তিতে বিধি নিষেধ জারি করা হয়েছে। যারা তা মেনে চলবে না তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও গণবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।