মনপুরায় দুই চেয়ারম্যানের গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১০, আটক ৫


এস আই মুকুল, নিজস্ব প্রতিবেদক- ভোলার মনপুরায় সরকারী চাল বিতরণের অনিয়মের অভিযোগে বর্তমান ১নং মনপুরা ইউপি চেয়ারম্যান আমানত উল্যাহ আলমগীর সাময়িক বরখান্ত হওয়ার পর সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন হাওলাদার গ্রুপ উল্লাস প্রকাশ করে।

উল্লাস প্রকাশ করার ঘটনায় দুই গ্রুপের কথা কাটাকাটির জের ধরে এক পর্যায়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে উভয় গ্রুপের কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। গুরুতর ৩ জনকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপর আহতরা স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

এই ঘটনায় পুলিশ উভয় গ্রুপের ৫ জনকে জিজ্ঞাসা করার জন্য আটক করে। রাতেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল চন্দ্র দাস ও ওসি শাখাওয়াত হোসেন এর নের্তৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থল রামনেওয়াজ বাজারে অবস্থান নেয়। এই সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনার জন্য মাইকিং করে উভয় গ্রুপকে শান্ত থাকতে ও সরে যেতে নির্দেশ দেয়।

শুক্রবার রাত ১১টায় উপজেলার ১নং মনপুরা ইউনিয়নের রামনেওয়াজ বাজারে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। শনিবার সকালে ফের দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ উভয় গ্রুপের ৫জনকে জিজ্ঞাসাবাদের আটক করে।

সংঘর্ষের ঘটনায় আহতরা হলেন ইউনিয়ন যুবলীগৈর সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যানের মাছের গধিঘরের কেরানী আশরাফুল ইসলাম সোহাগ, অপর দউজন সাবেক চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন হাওলাদার গ্রুপের গোপাল চন্দ্র দাস ও মোঃ সৈকত। আহত অপর সাত জনের নাম এখনও পাওয়া যায়নি।

ঘটনা ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, সরকারী চাল বিতরণে সঠিকভাবে নিয়ম নীতি অনুসরন না করায় সাময়িক বহিস্কৃত হন বর্তমান চেয়ারম্যান আমানত উল্যাহ আলমগীর। শুক্রবার রাতে এমন সংবাদ পেয়ে উল্লাস প্রকাশ করেন সাবেক চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন গ্রুপের লোকজন। এই সময় উভয়গ্রুপের লোকজনের মধ্যে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষে বর্তমান চেয়াম্যান গ্রুপের আশরাফুল ইসলাম সোহাগ ও সাবেক চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন গ্রুপের গোপাল চন্দ্র দাস ও মোঃ সৈকত গুরুতর আহত হয়। এমন খবরে রাতেই বর্তমান চেয়ারম্যান আলমগীর সমর্থীত গ্রুপের লোকজন রামনেওয়াজ বাজারমুখী হলে উভয় গ্রুপের মধ্যে শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া।

এ ব্যাপারে বর্তমান সাময়িক বহিস্কৃত চেয়ারম্যান আমানতউল্যাহ আলমগীর বলেন, আমার গধিঘরের কেরানী বাড়ী যাওয়ার পথে সাবেক চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন হাওলাদারের নের্তৃত্বে হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে। খবর পেয়ে আমার লোকজন বাজারে আসলে ফের আবারও হামলা চালায় সাবেক চেয়ারম্যান গ্রুপ।

এ ব্যাপারে সাবেক চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন হাওলাদার বলেন, হামলার বিষয় আমি কিছুই জানিনা। আমার সাথে কিছুই হয়নি।

এ ব্যাপারে মনপুরা থানা অফিসার ইনচার্জ ওসি শাখাওয়াত হোসেন বলেন, দুই চেয়ারম্যান গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে। রামনেওয়াজ বাজার পুলিশ মোতায়ন রয়েছে। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য উভয়গ্রুপের ৫ জনকে আটক করেছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ছেড়ে দেব।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল চন্দ্রদাস বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

◷ ৩:১৯ অপরাহ্ন ৷ রবিবার, মে ৩, ২০২০ দেশের খবর, বরিশাল