করোনায় সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ১৭৭ থেকে একলাফে বেড়ে সহস্রাধিক!

৩:৩৯ অপরাহ্ন | রবিবার, মে ৩, ২০২০ আলোচিত

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- দেশে কোভিড-১৯ থেকে সেরে ওঠার সংখ্যা ১৭৭ থেকে একলাফে ১ হাজার ৬৩ জনে দাঁড়িয়েছে।

আজ রোববার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে অধিদফতরটির অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, এখন পর্যন্ত এক হাজার ৬৩ জন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন।

তবে কীভাবে এত অল্প সময়ের মধ্যে এত বেশি রোগী সুস্থ হলো তার কারণ হিসেবে তিনি জানান, কাদেরকে সুস্থ বলা হবে সে ব্যাপারে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দেয়া একটি নতুন গাইডলাইন অনুসরণ করছেন তারা।

কোন কোন হাসপাতাল থেকে কতজন কোভিড রোগী সুস্থ হয়ে ছাড়া পেয়েছেন তার বিবরণও তুলে ধরা হয় ব্রিফিংয়ে।

এদিকে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৬৬৫ জনের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ৪৫৫ জনে। এই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২ জন। এ নিয়ে দেশে কোভিড-১৯ এ মৃতের সংখ্যা ১৭৭।

নাসিমা সুলতানা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ৫ হাজার ৩৬৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাদের মধ্যে ৬৬৫ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া যায়। বাংলাদেশে করোনা শনাক্তের পর এটি একদিন সর্বোচ্চ আক্রান্ত। একই সময়ে আরও দুইজন করোনায় মারা যাওয়ায় এই সংখ্যাটা ১৭৭ জন। মারা যাওয়া দুজনই ঢাকার বাহিরের। এদের একজন রংপুরের অন্যজন নারায়ণগঞ্জের। বয়স বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, একজনের বয়স ১১ থেকে ২০ বছর বয়সের মধ্যে। অপরজনের বয়স ৬০ বছরের ঊর্ধ্বে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উর্ধ্বতন এই কর্মকর্তা বলেন, ক্লিনিক্যাল ম্যানেজমেন্ট কমিটির তৈরি করা গাইডলাইন অনুসারে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৬৩ জন। এর মধ্যে ঢাকা সিটির মধ্যে ৬২৪ জন এবং অন্য বিভাগীয় শহরে ৪৩৯ জন সুস্থ হয়েছেন।

বিভাগীয় বিশ্লেষণে তিনি বলেন, ঢাকা বিভাগের হাসপাতালগুলো থেকে সুস্থ হয়ে (মেট্রোপলিটন বাদে) ছাড়া পেয়েছেন ২৭২ জন, চট্রগ্রামে ৭২ জন, রাজশাহী ২ জন, খুলনায় ৬ জন, বরিশালে ২৯ জন, সিলেটে ২ জন, ময়মনসিংহ ৩১ ও রংপুর বিভাগ থেকে ২৫ জন।

আর ঢাকা সিটির হাসপাতালগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হাসপাতাল থেকে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৯৮ জন, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ২১৩ জন, ইনফেকশাস ডিজিস হাসপাতালে ৮  জন, ঢাকা মহানগর হাসপাতাল থেকে ৩৮ জন, রিজেন্ট হাসপাতাল থেকে ১৫ জন, সাজেদা ফাউন্ডেশন হাসপাতাল থেকে ২২ জন, রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতাল থেকে ২৬ এবং লালকুটিয়া হাসপাতাল মিরপুর থেকে ৪ জন।

নাসিমা সুলতানা আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ৬৫ জন। মোট আইসোলেশনে রয়েছেন ১ হাজার ৬৩৭ জন। সারাদেশে আইসোলেশন শয্যা রয়েছে নয় হাজার ৭৩৮টি। ঢাকার ভেতরে রয়েছে তিন হাজার ৯৪৪টি। ঢাকা সিটির বাইরে শয্যা রয়েছে পাঁচ হাজার ৭৯৪টি। আইসিইউ সংখ্যা রয়েছে ৩৪১টি, ডায়ালাসিস ইউনিট রয়েছে ১০২টি।