‘আমার মৃত্যু ঘোষণার প্রস্তুতি নিয়েছিলেন চিকিৎসকরা’- ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

boris

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত হয়ে সাক্ষাৎ মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। প্রায় মাসখানেক যমে-মানুষের টানাটানি শেষে যুদ্ধে জয়ী হয়ে নিজের গদিতে বসেছেন জনসন। এবার জানালেন নিজের করোনাযুদ্ধের ভয়াবহ সেই দিনের অভিজ্ঞতা।

রবিবার ‘দ্য সান’ পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, অস্বীকার করব না এটা কঠিন স্মৃতি। চিকিৎসকরা আমার মৃত্যু ঘোষণা দেয়ার প্রস্তুতি নিয়েছিলেন।

বরিস জানান, আইসিইউতে তাকে বাঁচিয়ে রাখতে চিকিৎসকেরা ‘লিটার-লিটার’অক্সিজেন দেন। আমার শ্বাসনালী দিয়ে টিউব প্রবেশ করানোর সময় বাঁচার সম্ভাবনা ফিফটি-ফিফটি চলে আসে।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ২৭ মার্চ করোনা পজিটিভ হন। প্রথমে বাসায়ই চিকিৎসা নেন। এর ১০ দিন পর জ্বর, কাশিসহ উপসর্গগুলো না কমায় তাকে সেন্ট্রাল লন্ডনের সেন্ট টমাস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আইসিইউতে বেশ কয়েক দিন থেকে বাড়ি ফিরতে সক্ষম হন তিনি।

হাসপাতাল থেকে মুক্তি পেয়ে গত বুধবার ছেলেসন্তানের মুখ দেখেন বরিস। জনসন ও তার বান্ধবী সিমন্ড জানিয়েছেন, চিকিৎসকদের উৎসর্গ করে ছেলের নাম রেখেছেন উইলফ্রেড ল্যারি নিকোলাস জনসন।

নিকোলাস রেখেছেন ড. নিক প্রাইস এবং ড. নিক হার্টের নামানুসারে, যারা গত মাসে তার ‘জীবন রক্ষা করেছেন’। জনসন জানান, ডাক্তাররা তাকে সর্বোচ্চ সেবা দিয়েছেন। করোনা থেকে বাঁচায় নিজেকে সৌভাগ্যবান ভাবছেন জনসন।

◷ ১১:১২ অপরাহ্ন ৷ রবিবার, মে ৩, ২০২০ আন্তর্জাতিক