ইতালিতে লকডাউন শিথিল হচ্ছে আজ, খুলছে দোকানপাট

৬:২৭ পূর্বাহ্ন | সোমবার, মে ৪, ২০২০ আন্তর্জাতিক
ita

ইসমাইক হোসেন স্বপন, ইতালি: ভয়াবহ বিপর্যয়ের মধ্যেই আশার আলো জাগছে ইতালিতে। করোনা ভাইরাসের বিশ্বজোড়া এই কালো মেঘেও উজ্জ্বল আলোকরেখা- দীর্ঘদিনের লকডাউন পার করে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরছে ইতালি।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ২৮ হাজার ৮৮৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ইতালিতে। আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ১০ হাজার ৭১৭ জন। কিন্তু লড়াই থামছে না ইউরোপের দেশটিতে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। সুস্থ করে তুলেছেন ৮১ হাজার ৬৫৪ জনকে।

ইতালিতে করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের হারও কমেছে বেড়েছে সুস্থতার সংখ্যা। দেশটিতে করোনার তান্ডব দুর্বল হতে থাকায় লকডাউন শিথিল করছে ইতালি সরকার।দেশটির প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কন্তের পূর্ব ঘোষনা অনুযায়ী দেশটিতে আজ সোমবার থেকে লকডাউন শিথিল করা হয়েছে।

দীর্ঘ লকডাউনের পর সোমবার (৪ মে) থেকে উৎপাদন শিল্প, নির্মাণ খাত ও পাইকারি দোকান পুনরায় চালুর প্রক্রিয়া শুরু হতে যাচ্ছে ইতালিতে। তবে আপাতত সীমিত আকারে খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার। ইতালির বার, রেস্টুরেন্ট, খুচরা ও পাইকারি দোকানপাট, স্টেশনারি, বইয়ের দোকান, বাচ্চাদের কাপড়ের দোকান, কম্পিউটার ও কাগজপত্র তৈরির কাজ শুরুর অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

ইতালি সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী,১৮ মে থেকে বাণিজ্যিক কিছু অংশ, প্রদর্শনী, জাদুঘর, প্রশিক্ষণ টিম, ক্রীড়া ক্ষেত্র এবং গ্রন্থাগার খোলার ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া ১ জুন থেকে রেষ্টুরেন্ট, বার, সেলুন, ম্যাসেজ সেন্টার খোলা হবে বলে।ইতালিতে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলো আগামী সেপ্টেম্বর মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহেখোলার কথা রয়েছে।

লকডাউন শিথিল করা হলেও কোভিড ১৯ করোনা ভাইরাসের প্রকোপ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত সবাইকে পাবলিক পরিবহণসহ বাহিরে মাক্স ব্যবহার করতে হবে এবং নিরাপদ দুরত্ব বজায় রাখতে হবে।

তবে বাহিরে বের হবার কারণ কতৃপক্ষের কাছে অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে। অনুর্ধ্ব ১৮ বছর বয়সীরা লিগ্যাল গার্ডিয়ানের সাথে বের হবার সুযোগ আছে। পরিবারের সদস্যদের সাথে সাক্ষাৎ করা যাবে।তবে সেটা পিতা-মাতা,স্ত্রী-স্বামী/ভাই-বোন হতে হবে।পারিবারিক বড় অনুষ্ঠান অথবা পূর্ণমিলনি করা যাবে না। খাবার,নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস ক্রয়, চিকিৎসকের সাক্ষাৎ এবং ফার্মেসিতে যাওয়া যাবে।

নিজ এলাকার লেক,সমুদ্র সৈকত এবং পর্বতমালায় ভ্রমণ ও নিজস্ব এলাকায় হাঁটা,দৌড়ানো এবং সাইক্লিংয়ের অনুমতি আছে। তবে একত্রে বেশী লোক সমাগম করা যাবে না। সবাইকে কমপক্ষে এক মিটার দূরত্বে অবস্থান করতে হবে।

অবশ্য, পুরোপুরি নির্মূল না করে কোরোনা পরিস্থিতির ভেতরেও লকডাউন শিথিলের ঘোষণায় ক্ষুব্ধ হয়েছে দেশটির বিরোধী দলের কয়েকজন নেতা। এ নিয়ে সরকার ও বিরোধী দলে নানা বিতর্ক চলছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছে, দেশে অর্থনীতির চাঁকা যেভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, ফিরিয়ে আনতে লকডাউন শিথিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।