শপিংমল-দোকান খোলা রাখা যাবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত

৭:১৫ অপরাহ্ন | সোমবার, মে ৪, ২০২০ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতির মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে দোকান ও শপিংমল চালু করা যাবে। তবে তা অবশ্যই বিকেল ৫টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে।

সোমবার (৪ মে) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ‘করোনাভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধকল্পে শর্তসাপেক্ষে সাধারণ ছুটি/চলাচলে নিষেধাজ্ঞা বর্ধিতকরণ’ শীর্ষক এক আদেশে এ কথা জানানো হয়েছে।

দোকানপাট খোলা রাখার বিষয়ে বলা হয়, রমজান ও ঈদুল ফিতর সামনে রেখে সীমিত পরিসরে ব্যবসা-বাণিজ্য চালু রাখার স্বার্থে দোকানপাট খোলা রাখা যাবে। তবে বেচাকেনার সময় পারস্পরিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে। বড় শপিংমলের প্রবেশমুখে হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখতে হবে। শপিং মলে আসা যানবাহনকে অবশ্যই জীবাণুমুক্ত করার ব্যবস্থা রাখতে হবে। দোকানপাট এবং শপিং মল বিকেল ৫টার মধ্যে অবশ্যই বন্ধ করতে হবে।

আদেশের শুরুতে বলা হয়েছে, যে সরকার সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আগামী ৫ মে তারিখের শর্তসাপেক্ষে ছুটি বাড়ানো এবং জনসাধারণের চলাচল সীমিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেই হিসাবে ৬ মে থেকে শপিংমল ও দোকানপাট খোলা থাকবে।

আদেশে আরও বলা হয়, সাধারণ ছুটির সময় এক জেলা থেকে আরেক জেলা এবং এক উপজেলা থেকে আরেক উপজেলায় জনসাধারণের চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত থাকবে। ছুটির সময় আান্তজেলা গণপরিবহন বন্ধ থাকবে।

এ বিষয়ে মন্ত্রপরিষদ সচিব খন্দকাল আনোয়ারুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, সর্বোচ্চ পাঁচটা পর্যন্ত বলা হয়েছে। কিন্তু নিজ নিজ এলাকার পরিস্থিতি বিবেচনা করে স্থানীয় প্রশাসন তাঁদের সুবিধামতো নির্দেশনা দিতে পারবে। অর্থাৎ তার আগেই বন্ধ রাখার কথা বলতে পারে।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে চলমান সাধারণ ছুটি আরও ১১ দিন বাড়ানো হয়েছে। জরুরি সেবা দেওয়াসহ দফতরগুলোকে আওতার বাইরে রেখে বিভিন্ন নির্দেশনা মানা সাপেক্ষে আগামী ৬ থেকে ১৬ মে পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। করোনার কারণে সরকার প্রথমে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করে। পরে আরও চার দফায় ছুটি বাড়িয়ে ৫ মে পর্যন্ত করা হয়।