রংপুরে হাড়িভাঙ্গা আমে স্বপ্ন ভঙ্গের শঙ্কা


সাইফুল ইসলাম মুকুল, রংপুর প্রতিনিধি- রংপুরে কীটনাশক সংকট ও শ্রমিক সংকটে পরিচর্যার অভাবসহ বেশকিছু কারণে রংপুরের সুস্বাদু হাড়িভাঙ্গা আমে চাষিদের স্বপ্ন ভঙ্গের শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

চাষিরা আম গাছের দিকে তাকিয়ে দীর্ঘশ্বাস ছাড়ছেন আর ভাবছেন এই আম যথা সময়ে পরিপক্ক হলেও তা বাজারজাত করবেন কিভাবে। করোনা ছোবলে চারদিকে সব কিছু স্থবিব। সেখানে এই আম পরিবহন হবে কিভাবে। তবে কৃষি বিভাগ বলছে আম চাষিদের তালিকা তৈরী করা হচ্ছে। সরকারিভাবে এই আম বাজারজাত করার পরিকল্পনা রয়েছে।

সুস্বাদের কারণে হাড়িভাঙ্গা আম সারা দেশে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। দেশের অন্যান্য স্থানের আম শেষ হয়ে যাওয়ার পরই এই আম বাজারে পাওয়া যায়। এবছর ঝড়-বাদলে কিছুটা ক্ষতি হলেও ফলন ভালো হয়েছে। প্রতিবছর হাড়িভাঙ্গা আম বিক্রি করে রংপুরের চাষিরা ২০০ কোটি টাকার ওপর ঘরে তোলে। করোনা প্রত্যক্ষভাবে না হলেও পরোক্ষ ভাবে হাড়িভাঙ্গা আম চাষিদের স্বপ্নে আঘাত হেনেছে।

রংপুর কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবার রংপুর জেলায় ৩ হাজার ৫ হেক্টর জমিতে আমের ফলন হয়েছে। এর মধ্যে হাড়িভাঙ্গার ফলন হয়েছে ১ হাজার ৪৫০ হেক্টরে। গত বছর প্রতি হেক্টরে ফলন হয়েছিল ৯ দশমিক ৪ মেট্রিক টন। এবার শ্রমিক সংকটে অযতœ-অবহেলায়, কীটনাশকের সংকটসহ নানা কারণে কৃষকরা আম ক্ষেত ঠিক মত পরিচর্যা করতে পারেনি। ফলে এবার ফলন কম হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। মৌসুমের শুরুতে এই আমের দাম কিছুটা কম থাকলে প্রতি কেজি হাড়িভাঙ্গা আম ৮০ থেকে ১৫০ টাকায় বিক্রি হয়।

রংপুরের বদরগঞ্জ,শ্যামপুর মিঠাপুকুর ও পদাগঞ্জের কয়েকজন চাষী তাদের মুখে হতাশার ছাপ নিয়ে জানালেন এই দূর সময়ের গল্প। তারা বলেন, প্রতিবছর কীটনাশক ব্যবসায়ীরা বাকিতে কীটনাশক দিয়ে যেত, সেই সাথে ক্ষেত পরিচর্যার বিষয়ে বিভিন্ন পরামর্শ দিত। কিন্তু করোনা কারণে কীটনাশক বাকি পাওয়াতো দূরের কথা নগদ টাকা দিয়েও পাওয়া যাচ্ছেনা।

এছাড়া করোনার ক্ষেত পরিচয়ার জন্য এবার শ্রমিক পাওয়া যায়নি। ফলে ক্ষেত ঠিক মত পরিচর্যা করা যায়নি। তারা আরো জানান, সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে এই আম পরিপক্ক হলে তা বাজারজাত করা হবে কি ভাবে। আম যদি বাজারজাত করা না যায় তালে গাছেই পঁচে যাবে।

তবে কৃষি বিভাগ হাড়িভাঙ্গা আম বাজারজাত করার পরিপল্পনা গ্রহণ করেছেন বলে জানিয়েছেন রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক মোহাম্মদ আলী। তিনি বলেন, করোনা প্রভাবে অনেক কিছুই এলোমেলো হয়ে গেছে। দেশের বিখ্যাত এই আমের যাতে কৃষক ন্যায্য মূল্য পায় সে লক্ষে কৃষি বিভাগ আম বাজারজাত করণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। ইতোমধ্যে আম চাষিদের তালিকা প্রণোয়নের কাজ শুরু হয়েছে।

◷ ১১:৫৯ পূর্বাহ্ন ৷ শনিবার, মে ৯, ২০২০ দেশের খবর, রংপুর