• আজ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ঢামেকের করোনা ইউনিটে ৯ দিনে ৯১ জনের মৃত্যু!

১২:৫৪ অপরাহ্ন | সোমবার, মে ১১, ২০২০ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- রোগী ভর্তি শুরু হওয়ার ৯ দিনেই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) বার্ন ইউনিটের করোনা ওয়ার্ড যেন মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে।

ঢামেক হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ২ মে (শনিবার) সেখানে করোনা আক্রান্ত ও সাসপেকটেড রোগী ভর্তি শুরু হয়। রোববার (১০ মে) পর্যন্ত সেখানে ৮৯ জন ভর্তি রোগী মারা যান। আর দুজন মারা যান জরুরি বিভাগে। মোট মৃতের সংখ্যা ৯১। এদের মধ্যে সাতজন কোভিড-১৯ আক্রান্ত ছিলেন। এই নয় দিনের মধ্যে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছিল ১৫ জনের।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড-১৯ ইউনিটের ওয়ার্ড মাস্টার মোহাম্মদ রিয়াজ জানান, গত নয়দিনে ঢামেকের নতুন কোভিড-১৯ হাসপাতালে মারা গেছে ৯১ জন। গত ২ মে শুরু হয় বার্ন ইউনিটে কোভিড রোগী ভর্তির কর্যক্রম। এরপর থেকে একে একে প্রতিদিনই মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তে থাকে। সে অনুযায়ী রোববার পর্যন্ত ৯১ জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে সাতজন করোনা পজিটিভ। বাকিরা সাসপেকটেড।

তিনি আরো জানান, বর্তমানে হাসপাতালে রোগী ভর্তি আছে ১৯৫ জন। এর মধ্যে আইসিউতে আছে ১০ জন। এ কয়দিনে রোগী ভর্তি হয়েছিল প্রায় ৬০০ জন। এরমধ্যে অনেকেই চিকিৎসা নিয়ে বাসায় গেছেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন এ বিষয়ে বলেন, ‘মৃত্যুর সংখ্যাটি আমি নির্দিষ্ট করে বলতে পারব না। তবে মৃত্যুর সংখ্যা নয়দিনে অনেক। এদের মধ্যে করোনা সাসপেকটেডের সংখ্যা অনেক বেশি। পাশাপাশি কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েও মারা গেছে কয়েকজন।

হার্টের সমস্যা, শ্বাসকষ্টসহ নানা অসুখ নিয়ে রোগীরা সরাসরি কোভিড ইউনিটে ভর্তি হচ্ছে। অনেক হাসপাতাল ঘুরে তারা এখানে আসছে। যে রোগীগুলো মারা গেছে তাদের সবার অবস্থা খুব খারাপ ছিল।’

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন বলেন, আগামী দু’দিনের মধ্যে হাসপাতালের নতুন ভবনে কোভিড রোগীদের জন্য ভর্তি কার্যক্রম শুরু করতে পারব। সেখানে হৃদরোগ বিভাগসহ মেডিসিন বিভাগ রয়েছে। কোভিড আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার পাশাপাশি তারা অন্য কোনো রোগে আক্রান্ত হলে সেখানে দ্রুত চিকিৎসা দিতে পারবে।