সংবাদ শিরোনাম

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য বিতর্কে কঠোর অবস্থানে সরকার | ১৯৬৭ সালের সীমান্ত অনুযায়ী স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র চায় বাংলাদেশ | রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলা লড়তে গাম্বিয়াকে ৫ লাখ ডলার দিয়েছে বাংলাদেশ | মির্জাপুরে মাটি উত্তোলনের দায়ে ব্যবসায়ীকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা | ঝালকাঠিতে হত্যা মামলায় স্কুল শিক্ষিকাসহ গ্রেপ্তার ২ | সিলেট জাপায় শতাধিক নেতাকর্মীর যোগদান | পঞ্চগড় পৌরসভায় আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন জাকিয়া খাতুন | মানিকগঞ্জ পৌর নির্বাচনে নৌকা প্রতীক পেলেন সাবেক মেয়র রমজান আলী | চিনিকল বন্ধের ঘোষণা বাতিলসহ ৪ দফা দাবিতে শ্রমিকদের মানববন্ধন | বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের বিরোধিতাকারীদের শাস্তির দাবিতে ঠাকুরগাঁওয়ে মানববন্ধন |

  • আজ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নাতনিকে বিয়ে করে ভাইরাল নানা

৮:৪৪ অপরাহ্ন | বৃহস্পতিবার, মে ১৪, ২০২০ চিত্র বিচিত্র

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক:পেশায় রিকশাচালক ও ছয় সন্তানের জনক শামছুল হক শামছু (৬৫) ফের বিয়ে করেছেন। তার স্ত্রীর নাম মরিয়ম আক্তার। পড়ে অষ্টম শ্রেণিতে। তারা দূর সম্পর্কের নানা-নাতনি। গত ১০ মে তাদের বিয়ে হয়। এ খবর প্রকাশ হতেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে কুমিল্লার লালমাই উপজেলার পেরুলে।

নানা শামছুল হক শামছু লালমাই উপজেলার পেরুল দক্ষিণ ইউনিয়নের পেরুল গ্রামের দীঘির পাড় এলাকার বাসিন্দা। আর ওই ছাত্রীর বাড়ি একই উপজেলার পশ্চিম পেরুল গ্রামে। সে পেরুল উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। বর শামছুল হকের ছোট মেয়েও তার সঙ্গে পড়ে।

জানা গেছে, গত ১০ মে শামছুল হক শামছু ওই ছাত্রীকে ৫ লাখ টাকা দেনমোহর ও ১ লাখ টাকা উসুল দিয়ে বিয়ে করেন। ছাত্রীর বাবা ঢাকায় চাকরির সুবাদে তাদের পরিবার দেখাশোনা করার অসিলায় আসা-যাওয়া করতেন রিকশাচালক শামছু। পঞ্চম শ্রেণি থেকেই স্কুলে যাওয়া আসার সময় সে শামছুল হকের রিকশায় যাতায়াত করতো। এ সময়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

স্থানীয়রা বলেন, বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হওয়ায় ১১ মে বর-কনেকে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে লোক মারফত নিয়ে আসেন ইউপি চেয়ারম্যান। বর শামছুল হককে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে বলে ৫ লাখ টাকা দেনমোহর ও ১ লাখ টাকা উসুলে তাকে আমি বিয়ে করি। এ সময় শামছুল হক বিয়ের কাবিননামা ও কনের জন্মসনদ দেখিয়েছে।

শামসুল হকের দুই মেয়ে ও তিন ছেলের মধ্যে এক ছেলে ও এক মেয়ের বিয়ে হয়েছে। আর কনে চার ভাইবোনের মাঝে দ্বিতীয়। তার বড় বোনের এখনো বিয়ে হয়নি। ছোট দুই ভাই রয়েছে। শামছুল নতুন করে বিয়ে করেছেন এবং তার স্ত্রী সম্পর্কে তার নাতনি বিষয়টি প্রকাশ হতেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়।

বিয়ে প্রসঙ্গে মেয়ের চাচা মোবারক হোসেন মফু বলেন, এ ঘটনায় আমরা সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হয়েছি। অবুঝ মেয়েটাকে ফুসলিয়ে সে এ কাজটা করেছে।

এ বিষয়ে মেয়ের বাবা জানান, শামসু আমার বাড়ির কাজ করতো। আমি ঢাকায় একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করি। আমার পরিবারে বিভিন্ন কাজ সে করে দিতো। তাকে আমি খুব বিশ্বাস করতাম। সে আমার মেয়েকে প্ররোচনা দিয়ে বিয়ে করে। সে একজন রিকশাচালক। তার ঘরে স্ত্রী সন্তান রয়েছে। এই বয়স্ক একটা লোকের সঙ্গে আমার মেয়ে কিভাবে সংসার করবে।

এদিকে, বিয়ের পর স্ত্রীকে বাড়িতে না তুলে লালমাই উপজেলায় একটি ভাড়া বাড়িতে রেখেছেন রিকশাচালক শামছুল হক। তিনি বলেন, মরিয়ম আক্তার সম্পর্কে আমার নাতনি। দীর্ঘদিন ধরে তাদের সঙ্গে আমার পারিবারিক সম্পর্ক। তাদের বিপদে আপদে আমি সবসময় পাশে ছিলাম। তাকে স্কুলে আনা নেওয়ার পথে আমাদের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। আমার প্রথম বউ অপারেশনের রোগী। সংসারে কাজ করতে পারে না, তাই মরিয়মকে বিয়ে করেছি।

শামছু আরও বলেন, আমাদের দুজনের সম্মতিতেই বিয়ে হয়েছে। ১ লাখ টাকা উসুলের মধ্যে আমি তাকে ১০ হাজার টাকা দিয়ে একটি কানের দুল দিয়েছি এবং নগদ ১ হাজার ৫০০ টাকা দিয়েছি।

কাজী অফিস নাকি কোর্টে বিয়ে হয়েছে জানতে চাইলে বিষয়টি এড়িয়ে যান রিকশাচালক শামুছুল। তবে অসম বয়সে বিয়ের ব্যাপারে তিনি বলেন, মরিয়মের বয়স ২০ বছর তিন মাস। চেয়ারম্যান অফিসে যান, কম্পিউটারে গিয়ে দেখেন। চেয়ারম্যান সব বিষয়ে অবগত আছেন। তিনি ডেকে নিয়ে আমাদের কাছ থেকে সব জেনেছেন।

বিয়ের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন পেরুল দক্ষিণ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান সফিকুর রহমান। তিনি বলেন, বিয়েটি আইনগতভাবে হয়েছে। এটি কোনো বাল্যবিয়ে নয়। মেয়ের বয়স জন্মসনদ অনুযায়ী ২০ বছর তিন মাস। আমি ইউনিয়ন পরিষদে তাদের ডেকে এনে সব কাগজপত্র দেখেছি, যা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবগত করেছি। এখন মেয়ে সংসার করতে চাইলে আমাদের কী করার আছে?

লালমাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইয়াসির আরাফাত বলেন, বিষয়টি আমি চেয়ারম্যানের কাছ থেকে শুনেছি, মেয়েটির জন্মসনদ ২০০৮ সালের করা। তখনকার সময় এনালগ ছিল। জন্মসনদে কোনো কারসাজি আছে কিনা বিষয়টি আমরা তদন্ত করছি।

লালমাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আইয়ুব বলেন, এ বিষয়ে থানায় কেউ অভিযোগ দেয়নি, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।