সংবাদ শিরোনাম
করোনাকালেও প্রমাণিত হলো আমরা বীরের জাতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী | সীমান্তের এই মসজিদে একসঙ্গে নামাজ আদায় করেন বাংলাদেশ-ভারতের মানুষ | ফ্রান্সের হয়ে না খেলার খবরকে মিথ্যা বললেন পগবা | উলিপুর পৌর মেয়রের বাসভবন থেকে পরিচ্ছন্নতাকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার | হাতীবান্ধায় যুবদলের ৪২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত | ফরিদপুরের কুমার নদীতে ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত | ফরিদপুর মেডিকেলের শৌচাগারগুলোর বেহাল দশা, ভোগান্তিতে রোগীরা | ইসলাম অবমাননার প্রতিবাদে ফরাসি কূটনীতিককে তলব করেছে ইরান | মহানবীর (সা.) ব্যঙ্গচিত্র ও বাক-স্বাধীনতা নিয়ে যা বললেন আসিফ নজরুল | ভারতীয় জেলেদের পাথর দিয়ে পেটাল শ্রীলংকার নৌবাহিনী! |
  • আজ ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শরীয়তপুরে বাড়‌ছে ক‌রোনা ঝুঁ‌কি, জেলায় আক্রান্ত ৬৭

১১:০০ অপরাহ্ন | শুক্রবার, মে ১৫, ২০২০ ঢাকা
Coronavirus20200210104326

স্টাফ রিপোর্টার, শরীয়তপুর: শরীয়তপু‌রে দিন দিন বাড়‌ছে ক‌রোনা আক্রা‌ন্তের সংখ্যা। শুক্রবার (১৫ মে) জেলা সি‌ভিল সার্জন কার্যাল‌য়ের তথ্য অনুযায়ী সর্ব‌শেষ ক‌রোনা রোগীর সংখ্যা বে‌ড়ে ৬৭ জ‌নে দা‌য়ি‌য়ে‌ছে। আর উপসর্গ নি‌য়ে মারা গে‌ছে ঢাকা ফেরত এক ব্যা‌ক্তি। এছাড়া শরীয়তপুর সদর হাসপাতা‌লের আই‌সো‌লেশ‌নে ভ‌র্তি আছেন ২ জন, স‌ন্দেহ ভাজন ৩ জন রোগী।

এ‌দি‌কে, করোনা পরিস্থিতে মানুষের জীবন-জীবিকা বিবেচনায় লকডাউনের বিধি-নিষেধ কিছুটা শিথিল করে দেওয়ায় শরীয়তপু‌রে বাড়ছে মানুষের চলাচল। খুলেছে দোকান পাটসহ নানা বিপণি বিতান। তবে স্বাস্থ্যবিধি মানার নির্দেশ থাকলেও, তা মানছেন না অনেকেই। ব্যবসায়ীরা বলছেন, ক্রেতারা এ‌সেই হুলস্থুল হয়ে কেনাকাটা করছেন, কেউ কেউ দে‌খে না নি‌য়ে চ‌লে যা‌চ্ছে।

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবে দীর্ঘ প্রায় ২ মাস বন্ধ ছিল দেশের সব সব দোকান পাট। আসন্ন ঈদুল ফিতর এবং দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে, স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তে সীমিত পরিসরে খোলার অনুমতি দেয়া হয় মার্কেট সহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে।

তবে শুক্রবার সরেজমিনের পালং বাজা‌রে গি‌য়ে দেখা গেছে, স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না অনেক ক্ষেত্রেই। কেনাকাটা করতে বি‌ভিন্ন দেকানগু‌লো‌তে ভীড় করছেন অনেকেই। আবার বেশিরভাগ দোকানগুলোতেই বাইরে নিরাপত্তা থাকলেও ভেতরের চিত্র এ‌কেবা‌রেই ভিন্ন। তবে দোকানীদের অভিযোগ ক্রেতাদের দিকে। ক্রেতারাই হুলস্থুল হয়ে কেনাকাটা করছেন। কিন্তু সড়কগুলোতে মানুষের মাঝে দুরত্ব নিশ্চিতে স্থানীয় প্রশাসনের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে, মাঠে আছে সেনা সদস্যরাও।