এটাই যেন জীবনের শেষ ঈদ না হয়: আইজিপি

◷ ৪:১২ অপরাহ্ন ৷ মঙ্গলবার, মে ১৯, ২০২০ জাতীয়
15818454

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- ঈদে করোনার ঝুঁকি নিয়ে মৃত্যুদূত হয়ে বাড়ি না যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ।

তিনি বলেন, যে যেখানে আছেন সেখানেই থাকুন। শপিং করার সময়ও সতর্ক থাকবেন। জীবনে অনেক ঈদ আসবে। তখন এসব করা যাবে। এমন কিছু করবেন না যাতে এই উৎসব জীবনের শেষ উৎসব হয়। নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে সরকারের নির্দেশনা মানতে হবে।’

আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর রাজারবাগে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটরিয়ামে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর ও করোনা মহামারি নিয়ে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আইজিপি এসব কথা বলেন।

আইজিপি বলেন, ‘শপিংয়ের জন্য দোকানগুলো খোলা হয়েছে। আমরা মার্কেট সমিতির সঙ্গে কথা বলেছি। এসব বিষয়ে সরকার নির্দেশ জারি করেছেন; যাতে মার্কেটগুলোতে শপিং নিরাপদ হয়। আমরা শপিংয়ের বেলায় একটি কথাই উচ্চারণ করছি- স্বাস্থ্যবিধি যেগুলো আছে, সুরক্ষা বিধি যেগুলো আছে, সেগুলো অবশ্যই আমাদের মেনে চলতে হবে।’

ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘এক্ষেত্রে মার্কেট সমিতি মানবেন। সেলস পারসন মানবেন। ক্রেতা মানবেন। সবাই এসব স্বাস্থ্যবিধি মেনেই শপিং করবেন। ৫ দোকান দেখে, ১০ দোকান দেখে এক দোকানে শপিংয়ের যে কালচার আমাদের আছে সেটা পরিহার করাই ভালো।’

আইজিপি বলেন, দেশের এই দুর্যোগ মোকাবিলায় জনগণের সহযোগিতা দরকার। এটি দেশের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ। সেজন্যেই জনগণের সহযোগিতা চাই। প্রতিবার ঈদ আনন্দ বয়ে আনলেও এবার প্রেক্ষপট ভিন্ন। মানুষের বাঁচার প্রয়োজনেই কেউ ঈদের দিন আনন্দ ফুর্তি করতে বাড়ি থেকে বের হবেন না। এটি সবার প্রতি আহ্বান।

তিনি বলেন, এপ্রিলের দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত ২৩টি জেলা করোনামুক্ত ছিল। কিন্তু যখনই লোকজন চলাচল বাড়িয়ে দিল, তখনই দেশজুড়ে এই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে। যেখানে যেখানে চেকপোস্ট, থেমে যান। ফিরে আসুন। দয়া করে আপনি যেখানে আছেন, সেখানেই থাকেন।

আইজিপি আরও বলেন, ঈদের নামাজ খোলা জায়গায় নয়, মসজিদে পড়ুন। যতটা সম্ভব কম সময় থাকুন। বাসা থেকে সুরক্ষার সব প্রস্তুতি নিয়ে যাবেন। আর দয়া করে ঈদের দিন কেউ এখানে সেখানে ঘুরতে যাবেন না।

ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, মনে রাখতে হবে বেঁচে থাকলে আরও অনেকবার পরিবারের সঙ্গে ঈদ করা যাবে। কিন্তু মারা গেলে কিংবা করোনা আক্রান্ত হলে এখানেই শেষ। তাই আমরা অনুরোধ জানাচ্ছি সরকারি যে নির্দেশনা এবং স্বাস্থ্যবিধি সেটা মেনে চলুন।

তিনি বলেন, দয়া করে কেউ ঝুঁকি নেবেন না। পরিবারের কাছে যাচ্ছেন ঈদ করার জন্য। করোনা নিয়ে সেখানে সংক্রমণ ছাড়ানোর শঙ্কা তৈরি করবেন না।

আইজিপি আরও বলেন, মিডিয়ার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ নয় বরং গুজবের বিরুদ্ধে একসাথে লড়ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গণমাধ্যম। একইসাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজবের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।