সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বিশ্বজুড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়াল

◷ ৮:১৬ অপরাহ্ন ৷ বুধবার, মে ২০, ২০২০ আন্তর্জাতিক
corona

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের ধ্বংসযজ্ঞ থামছে না। যার আঘাতে লণ্ডভণ্ড ইউরোপ, আমেরিকা ও এশিয়ার কয়েকটি দেশ। এরই মধ্যে করোনা বিশ্বব্যাপী প্রাণ কেড়ে নিয়েছে ৩ লাখ ২৫ হাজার ৫৫৬ জন মানুষের। আর আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ১৬ হাজার ৭৪২।

চীন থেকে এই মহামারি শুরু হলেও এখন ইউরোপ এবং যুক্তরাষ্ট্রে আরও ভয়াবহ আকার নিয়েছে। আক্রান্ত ও নিহতের সংখ্যায় সবার ওপরে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। সেখানে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ৭২ হাজার ৯১ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৯৩ হাজার ৫৯৪ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ৬১ হাজার ২২৭ জন।

আক্রান্তের দিক দিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে চলে এসেছে রাশিয়া। সেখানে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৮ হাজার ৭০৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৯৭২ জন। স্পেনে আক্রান্ত ২ লাখ সাড়ে ৭৮ হাজার ৮০৩ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন দেশটির ২৭ হাজার ৭৭৮ জন। ব্রাজিলে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৯৭১ জন। আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৭১ হাজার ৬২৮ জন। এছাড়া করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছে ১ লাখ ৬ হাজার ৭৯৪ জন।

দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ভারতে। দেশটিতে এ পর্যন্ত করোনভাইরাসজনিত কারণে ৩ হাজার ৩০৩ জন মারা গেছেন এবং আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১ লাখ ৬ হাজার ৭৫০ জনে পৌঁছেছে। এছাড়া এ পর্যন্ত ৪২ হাজার ২৯৮ জন রোগী সুস্থ হয়েছেন।

এদিকে বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১৬ জন। এনিয়ে মোট মারা গেলেন ৩৮৬ জন। এছাড়া একই সময়ে আরও ১,৬১৭ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২৬,৭৩৮।

উল্লেখ্য গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম করোনার উপস্থিতি ধরা পড়ে। এখন পর্যন্ত বিশ্বের ২১৩টি দেশে করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নেয়া হয়েছে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ। অধিকাংশ দেশেই মানুষের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করতে মানুষের চলাফেরার ওপর বিভিন্ন মাত্রায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ।

কোনো কোনো দেশে আরোপ করা হয়েছে সম্পূর্ণ লকডাউন, কোথাও কোথাও আংশিকভাবে চলছে মানুষের দৈনন্দিন কার্যক্রম। এ ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার কারণে পৃথিবীর বিভিন্ন এলাকার প্রায় অর্ধেক মানুষ চলাফেরার ক্ষেত্রে কোনো না কোনো মাত্রায় নিষেধাজ্ঞার ওপর পড়েছেন। তবে এরই মধ্যে কোনো কোনো দেশে করোনার প্রভাব কমে যাওয়া লকডাউন শিথিল ও নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে।