সংবাদ শিরোনাম

ভ্যাকসিন না আসা পর্যন্ত বয়স্কদের সাবধানে থাকার আহ্বান স্বাস্থ্যমন্ত্রীর | 'ভাস্কর্য নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে প্রতিহত করা হবে'- প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী | শেখ মনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জাতি গঠনে নিমজ্জিত ছিলেন: মেয়র তাপস | মানিকগঞ্জে বাস-সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে ৭ জন নিহত | করোনায় আরও ২৪ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২২৫২ | আলেমদের বিপথে চালিত করছে সরকার: ডা. জাফরুল্লাহ | জুমার নামাজ শেষে ভাস্কর্যবিরোধী মিছিল, পুলিশের লাঠিচার্জে ছত্রভঙ্গ | আওয়ামী লীগ উন্নয়ন দিয়েই জনগণের মন জয় করে নিয়েছে: কাদের | সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ করোনা আক্রান্ত | প্রকাশ্যে করোনার টিকা নেবেন বুশ, ক্লিনটন ও ওবামা |

  • আজ ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

টাঙ্গাইলে শিশুকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগে স্বাস্থ্য সহকারীকে জুতাপেটা

⏱ ৮:৫৩ অপরাহ্ন | শুক্রবার, মে ২২, ২০২০ 📂 ঢাকা, দেশের খবর

মোল্লা তোফাজ্জল, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি- টাঙ্গাইলের বাসাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা এক শিশুকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগ উঠেছে উপজেলা স্বাস্থ্য সহকারী সুবোধ কুমার দাসের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্দ জনতা অভিযুক্ত ওই স্বাস্থ্য সহকারীকে জুতাপেটা করেন।

শুক্রবার (২২ মে) দুপুরে বাসাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত সুবোধ কুমার দাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। শ্লীলতাহানীর শিকার ওই শিশু বাসাইল পৌরসভার বালিনা গ্রামের বাসিন্দা।

ভিকটিমের পরিবার ও হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ওই শিশুটির কানে ব্যথা অনুভব হলে শুক্রবার (২২ মে) সকালে তার মা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার সুবোধ কুমার দাস ওই শিশুটির কানে চিকিৎসা দেয়ার জন্য প্রাথমিক পরীক্ষা করেন।

পরে আউটডোরে রোগী দেখাতে হলে টাকা লাগে এমন অযুহাতে একপর্যায়ে শিশুটির মায়ের কাছে পাঁচ টাকা দাবি করে অভিযুক্ত সুবোধ কুমার দাস। এ সময় ওই শিশুটির মা টাকা ভাংতি করতে হাসপাতালের বাইরে যায়। এ সুযোগে শিশুটিকে শ্লীলতাহানী করেন তিনি। শিশুটির মা হাসপাতালে ফিরে এলে শিশুটি তাকে শ্লীলতাহানীর কথা জানায়।

শিশুটির মা তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ করলে হাসপাতাল এলাকায় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে শিশুটির পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা হাসপাতালে ছুটে যায়। এ সময় বিক্ষুব্দ জনতা অভিযুক্ত ওই স্বাস্থ্যসহকারীকে জুতাপেটা ও এলোপাথারিভাবে কিল ঘুষি দেয়। পরে খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামছুন নাহার স্বপ্না ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়।

অভিযুক্ত স্বাস্থ্যসহকারী সুবোধ কুমার দাস বলেন, আমরা বিভিন্ন সময় রোগী দেখি। এতে করে যদি কেউ খারাপ কিছু মনে করে তাতে আমার কিছু বলার নাই। শিশু শ্লীলতাহানীর বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ফিরোজুর রহমান বলেন, অভিযুক্ত ওই স্বাস্থ্যসহকারীকে অন্যত্র বদলি করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্দ জনতা তাকে জুতাপেটা করে ও কিল ঘুষি দেয় বলেও তিনি জানান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামছুন নাহার স্বপ্না বলেন, ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বিক্ষুব্দ জনতাকে শান্ত করি। এ সময় অভিযোগকারী কোন লিখিত অভিযোগ দেয়নি। এ ঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবে।