ইতিহাসে প্রথমবারের মতো শান্তিরক্ষীদের বহন করল বাংলাদেশ বিমান

৮:০০ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, মে ২৯, ২০২০ ফিচার

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক: জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের বহন করতে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকাবাহী প্লেন নেওয়া হয়েছে। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি চার্টার্ড ফ্লাইট নিয়েছে জাতিসংঘ সদরদপ্তর।

ওই ফ্লাইটে বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীরা সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে নিযুক্ত জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের মিনুসকা মিশনে যোগ দেবেন।

শুক্রবার (২৯ মে) নিউইয়র্কে জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন থেকে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে উল্লেখ করা হয়, তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের অমূল্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী পরিবহনে দেশটির নিজস্ব প্লেন চার্টার্ড ফ্লাইটে নিয়েছে জাতিসংঘ।

এটি একটি মাইলফলক। জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন জাতিসংঘ সদরদপ্তরের সঙ্গে এ ফ্লাইট সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষর, সার্বিক সমন্বয় ও নিবিড় যোগাযোগ রক্ষা করে।

জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের একটি সূত্র জানায়, বিমান বাংলাদেশ এয়ালাইন্সের চুক্তিবদ্ধ প্রথম ফ্লাইটটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও বিমানবাহিনীর ১৭৯ জন শান্তিরক্ষীকে নিয়ে সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকের রাজধানী বাঙ্গুইয়ের উদ্দেশে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেছে।

এর আগে জাতিসংঘ সদর দফতরের সঙ্গে বিমান-সংক্রান্ত এই চুক্তি স্বাক্ষর করে জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন।

স্থায়ী মিশনের সূত্র জানায়, এই কন্টিনজেন্টের মধ্যে রয়েছেন আর্মড ইউটিলিটি হেলিকপ্টার ইউনিটের ১২৫ জন সদস্য, কুইক রিঅ্যাকশন ফোর্স কোম্পানির অগ্রবর্তীদলের ২০ জন সদস্য এবং কোভিড-১৯-এর কারণে আটকে পড়া মিনুসকা মিশনের ৩৪ জন শান্তিরক্ষী।

বর্তমানে বিশ্বের ৯টি জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে কর্মরত রয়েছেন ছয় হাজার ৫৪৩ জন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী। যার মধ্যে এক হাজার ৬১ জন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকের মিনুসকা মিশনে দায়িত্ব পালন করছেন। জাতিসংঘের এই শান্তিরক্ষা মিশনটি ২০১৪ সালের ১০ এপ্রিল কাজ শুরু করে।

তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের অমূল্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী পরিবহনে দেশের নিজস্ব বিমানকে অন্তর্ভুক্ত করল জাতিসংঘ।