• আজ ১০ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বেড়েই চলেছে করোনার তাণ্ডব! এ পর্যন্ত মৃত্যু ৬৫০, শনাক্ত ৪৭১৫৩

২:৫৮ অপরাহ্ণ | রবিবার, মে ৩১, ২০২০ স্পট লাইট
coronabd

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। দেশে প্রথম কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হন ৮ মার্চ এবং এ রোগে আক্রান্ত প্রথম রোগীর মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ। এর পর থেকে দেশে বেড়েই চলেছে করোনার প্রকোপ।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪০ জন। এনিয়ে মোট মারা গেলেন ৬৫০ জন। এছাড়া একই সময়ে আরও ২,৫৪৫ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৪৭,১৫৩ জন।

রোববার (৩১ মে) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। অনলাইনে বুলেটিন উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। অনলাইন বুলেটিনে বলা হয়, ৫২টি ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় ১১,৮৭৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়।

গতকাল শনিবার পর্যন্ত করোনাভাইরাস শনাক্তে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল ৯,৯৮৭টি। এরমধ্যে নতুন শনাক্ত হয়েছিলেন ১,৭৬৪ জন। মোট শনাক্ত হয়েছিলেন ৪৪,৬০৮ জন। আর গতকাল আরও ২৮ জন মারা যান। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছিল ৬১০ জন। এছাড়া গতকাল সুস্থ হয়েছিলেন ৩৬০ জন। এনিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ৯,৩৭৫ জন।

এর আগে ২৫ মার্চ প্রথমবারের মতো রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) জানায়, বাংলাদেশে সীমিত পরিসরে কমিউনিটিট্রান্সমিশন বা সামাজিকভাবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হচ্ছে। করোনা ঠেকাতে দুই মাসের বেশি সময় ধরে দেশে চলে “সাধারণ ছুটি”। কিন্তু দিন দিন বাড়তে থাকে সংক্রমণ।

করোনার বর্তমান পরিস্থিতির মধ্যেই আজ থেকে দেশের সরকারি-বেসরকারি অফিস খুলে দেয়া হয়েছে। তবে বন্ধ রাখা হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে ধীরে ধীরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে বলে রোববার জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। অন্যদিকে করোনা পরিস্থিতি অনুকূলে আসার আগে এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

উল্লেখ্য বিশ্বে এখন পর্যন্ত ৬১ লাখ ৭২ হাজার ৪৪৮ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে ৩ লাখ ৭১ হাজার ১৮৬ জন মারা গেছেন অন্যদিকে সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ২৭ লাখ ৪৪ হাজার ৪৪ জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন ৩০ লাখ ৫৭ হাজার ২১৮ জনের মধ্যে ৫৩ হাজার ৪৫৯ জনের অবস্থা গুরুতর।