• আজ ১০ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মসজিদের ইমামের গলায় জুতার মালা পড়ানো সেই চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার

১১:১০ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, জুন ৫, ২০২০ দেশের খবর, বরিশাল

সময়ের কণ্ঠস্বর, বরিশাল- বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জে উপবৃত্তির টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মসজিদের ইমাম ও মাদ্রাসা শিক্ষককে লাঞ্ছিত ও জুতার মালা পরিয়ে জনসম্মুখে ঘোরানোর ঘটনায় প্রধান আসামি চেয়ারম্যানসহ তিন জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৪ জুন) সন্ধ্যায় বরিশালের মুলাদী উপজেলা থেকে দড়িচর খাজুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা রাঢ়ি এবং একই ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার আব্দুস সত্তার সিকদারকে গ্রেফতার করা হয়। এই ঘটনায় বজলু নামে আরেক আসামিকে আগেই গ্রেফতার করে পুলিশ।

জানা যায়, এক শিক্ষার্থীর উপবৃত্তির টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তুলে দড়িচর-খাজুরিয়া দাখিল মাদ্রাসার অফিস সহকারী শহিদুল ইসলাম আলাউদ্দিনকে বুধবার বিকেলে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে জুতার মালা পরিয়ে বাজারে ঘোড়ানো হয়। তখন চেয়ারম্যানসহ কয়েকজন ইউপি সদস্য এবং শতাধিক লোক সেখানে উপস্থিতি ছিলেন।

উৎসুক একজন এ ঘটনার ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিলে সন্ধ্যার পরে তা ভাইরাল হয়। এ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া হয়েছে সকল মহলে। শহিদুল ইসলাম মাদ্রাসায় চাকরি করার পাশাপাশি স্টীমারঘাট সংলগ্ন সিকদার বাড়ি জামে মসজিদে ইমামতি করেন।

মেহেন্দীগঞ্জ থানার ওসি আবেদুর রহমান বলেন, লাঞ্ছনার ঘটনায় ইমাম আলাউদ্দিন ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা রাঢ়ীসহ ৯ জনকে আসামি করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বৃহস্পতিবার সকালে মামলা করেছেন। চাঞ্চল্যকর ওই মামলায় মেহেন্দিগঞ্জ থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার দুপুরে অভিযান পরিচালনা করে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি মো. বজলু আকনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পরে বরিশাল জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো. নাইমুল হক মোবাইল প্রযুক্তি ব্যবহার করে মামলার মূলহোতা দড়িচর খাজুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা রাঢ়ী এবং ৭নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য মো. আ. ছাত্তার সিকদার কে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মুলাদী পৌরসভা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে গ্রেপ্তার করেন।

বরিশালের জেলা প্রশাসক এস.এম অজিয়র রহমান বলেন, একজনের গলায় জুতার মালা পরানো গর্হিত কাজ। ন্যাক্কারজনক এ ঘটনায় ফৌজদারি মামলার পাশাপাশি অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা রাঢ়ীকে সাময়িক বরখাস্ত করার জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ে প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। শিগগিরই তার বিরুদ্ধে আইনগত এবং বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।