সংবাদ শিরোনাম
ফুলবাড়ীতে চতুর্থ দফায় বন্যা, তলিয়ে গেছে ১ হাজার ৭শ হেক্টর আমনের ক্ষেত | সেই রাতে ছাত্রাবাসে কী ঘটেছিল, আদালতকে জানালেন ধর্ষণের শিকার তরুণী | প্রধানমন্ত্রীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানালেন মোদি | প্রতিবেশীরা চাইলে আমাদের বিমানবন্দর ব্যবহার করতে পারেঃ প্রধানমন্ত্রী | ধর্ষণে ছাত্রলীগের জড়িত থাকা নতুন নয়: মির্জা ফখরুল | গ্রেফতার এড়াতে দাড়ি কেটে ফেলেছে ‘ধর্ষক’ সাইফুর! | বিচার বিভাগ নিয়ে পোস্ট: আইনজীবী ইউনুছ আলী সাময়িক বরখাস্ত | ধর্ষণের প্রতিবাদে সিলেটের মেয়র, কাউন্সিলরদের পদযাত্রা | রংপুরে ১শ বছরের রেকর্ড ভাঙল বৃষ্টি, পুরো নগরী জলবদ্ধতায় | সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালিয়ে যাচ্ছিলো ‘ধর্ষক’ সাইফুর |
  • আজ ১২ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সিঙ্গাপুরে করোনা আক্রান্তদের অর্ধেকই উপসর্গহীন

৮:০১ অপরাহ্ণ | সোমবার, জুন ৮, ২০২০ আন্তর্জাতিক
singa

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সিঙ্গাপুরে নতুন করে আক্রান্তদের মধ্যে কমপক্ষে অর্ধেকই উপসর্গহীন করোনায় আক্রান্ত। সোমবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এমনটি জানিয়েছেন সিঙ্গাপুর সরকারের করোনা ভাইরাস টাস্কফোর্সের সহকারী প্রধান লরেন্স ওং।

সোমবার (০৮ জুন) তিনি বলেন, আমাদের অভিজ্ঞতার ওপর ভিত্তি করে বলছি যে উপসর্গ নিয়ে করোনায় আক্রান্ত একজন রোগীর বিপরীতে আপনি একজন উপসর্গহীন রোগী পাবেন। আর ঠিক এই কারণেই আমরা খুব সাবধান হয়ে পুনরায় খুলে দেয়ার বিষয়ে পরিকল্পনা করছি।

গত দুই সপ্তাহে কোভিড-১৯ পজিটিভ হয়েছেন ৬ হাজার ২৯৪ জন, যাদের বেশিরভাগই অভিবাসী শ্রমিক। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৩৮ হাজার জন আক্রান্ত হয়েছেন। প্রায় দুই মাসের লকডাউন শেষে গত সপ্তাহে স্কুল এবং কিছু ব্যবসা-বাণিজ্য আবার চালু হয়েছে।

কিছু বিশেষজ্ঞ বলছেন, উপসর্গ দেখা না দিলেও আক্রান্ত কেউ ভাইরাস ছড়িয়ে দিতে পারে বলে মহামারিটি নিয়ন্ত্রণ করা চ্যালেঞ্জের।

লরেন্স জানান, অ্যাসিম্পটমেটিক আক্রান্তদের ভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ার সুযোগ কম কারণ তারা কাশি বা হাঁচি দেন না। তবে সিঙ্গাপুরে অ্যাসিম্পটমেটিক সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে, বিশেষ করে যেসব আক্রান্তরা কাছাকাছি বসবাস করে।

তিনি জানান, অ্যাসিম্পটমেটিক ক্যারিয়ার পাওয়া যাওয়ায় সরকার ক্রমান্বয়ে বিধিনিষেধ শিথিলের পরিকল্পনা করেছে। ফলে অনেককেই এখনও বাড়িতে থেকে কাজ করতে হচ্ছে এবং তারা কেবল তাদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মিশতে পারছে।

উল্লেখ্য সিঙ্গাপুর একটি ছোট দেশ হলেও এশিয়া মহাদেশের মধ্যে করোনায় সর্বোচ্চ আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম এটি। দেশটিতে এ পর্যন্ত ৩৮ হাজারের বেশি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে অধিকাংশই প্রবাসী শ্রমিক।