আগামী মাসেই আসছে ইনহেলারে করোনার ভ্যাকসিন!

১:৪৪ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, জুন ৯, ২০২০ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- বিশ্বজুড়ে এক আতঙ্কের নাম করোনাভাইরাস। ইউরোপ-আমেরিকা থেকে শুরু করে বিশ্বের প্রায় সব দেশেই আঘাত হেনেছে এই প্রাণঘাতি ভাইরাস। এশিয়া মহাদেশেও এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কম নয়। তবে আক্রান্ত ও মৃত্যুর মিছিল ইউরোপের চেয়ে তুলনামূলক এশিয়ায় কম।

এদিকে বাংলাদেশের অবস্থাও খুব বেশি ভাল নয়। প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যু সংখ্যা। দীর্ঘ দুইমাসেরও বেশি লকডাউন থাকলেও করোনা নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়নি। মানুষের জীবন-জীবিকা নির্বাহের জন্য খারাপ পরিস্থিতিতেও সরকারকে বাধ্য হয়ে তুলে দিতে হয়েছে লকডাউন। এমনই এক পরিস্থিতিতে করোনায় বিপর্যস্ত দেশের মানুষ।

এমনই এক মুহূর্তে একটি সুখবর নিয়ে এসেছেন যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা।

সম্প্রতি এক অনলাইন বক্তব্যে আইরিশ বিজ্ঞানী অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর পারসোনালাইজড মেডিসিনের অধ্যাপক অ্যাড্রিয়ান হিল জানান, করোনার ভ্যাকসিন ইনহেলারের মাধ্যমে ব্যবহার করা যাবে। আগস্টের শুরুর দিকেই তা ব্যবহারের উপযোগী হয়ে যাবে।

দ্য ডেইলি সানের বরাতে জানা যায়, অক্সফোর্ড গবেষকদের প্রাথমিক ইচ্ছা ছিল সেপ্টেম্বরের মধ্যে নমুনা ভ্যাকসিনটি বাজারে আনা। কিন্তু ব্রিটেনে করোনা রোগী কমতে শুরু করায় তারা সে প্রক্রিয়াকে আরো গতিশীল করেছে।

অক্সফোর্ডের গবেষকরা এই ভ্যাকসিনটির ব্যাপারে ৮০ শতাংশ আশাবাদী। তারা বলছেন, মানবদেহে এর পরীক্ষামূলক প্রয়োগে প্রত্যাশিত ফলাফল পাওয়া গেছে। আগামী জুলাইয়ের শেষে অথবা আগস্টের শুরুতে ইনহেলারের মতো একটি ডিভাইসে ভ্যাকসিনটি মানবদেহে প্রয়োগ করা হবে।

গবেষণা দলের সদস্য অধ্যাপক এড্রিয়ান হিল বলেন, মানবদেহে এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ চলমান। যতদিন পর্যন্ত এটি মানুষের দেহে নিরাপদ প্রমাণিত না হবে ততদিন পর্যন্ত এই প্রক্রিয়া চলবে। আমাদের আশা, এই প্রক্রিয়া জুলাইয়ের শেষে বা আগস্টের শুরুতে শেষ হবে। তখন ইনহেলার আকারে এটি ছাড়া হবে।

দ্য সান বলছে, অক্সফোর্ডের প্রস্তুতকৃত এই নমুনা ভ্যাকসিন গত এপ্রিলে মানবদেহে প্রয়োগ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত ১০ হাজার ২৬০ জনের ওপর এর সফল প্রয়োগ করেছেন তারা।

এই গবেষণার সঙ্গে যুক্ত আছে ওষুধ কোম্পানি এস্ট্রাজেনকা। তারা অক্সফোর্ডের গবেষকদের সঙ্গে এক চুক্তি করেছে। সেই চুক্তি অনুসারে কোম্পানিটি এই ভ্যাকসিনের ১০ কোটি ডোজ তৈরি করবে। এছাড়া অক্সফোর্ডের গবেষকরা মার্কিন সরকারের সঙ্গেও এই ভ্যাকসিন নিয়ে ১০০ কোটি ডলারের একটি চুক্তি করেছেন।