সংবাদ শিরোনাম
মাদক গ্রুপের অ্যাডমিন দীপিকা! | ফরিদপুরে ইউপি মেম্বারের প্রকাশ্যে ইয়াবা সেবন, সমালোচনার ঝড় | নায়িকারা মাদকাসক্ত, নায়কেরা কি ধোয়া তুলসি পাতা প্রশ্ন মিমির | কুড়িগ্রামে আবারো বন্যা, নিন্মাঞ্চল প্লাবিত, ধরলার পানি বিপদসীমার উপরে | তিস্তার মেগা প্রকল্প নিয়ে চীনের সাথে আলোচনা চলছে: জাহিদ ফারুক | শার্লি হেবদোর অফিসের কাছে ছুরি হামলায় আহত ৪ | করোনামুক্ত হওয়ার পর মারা গেলেন সংগীতশিল্পী বালাসুব্রহ্মণ্যম | প্যান্টের পকেটে মোবাইলফোন রাখলে হারাতে পারেন যৌন ক্ষমতা: গবেষণা | সুয়ারেসকে বের করে দেওয়ায় বার্সার ওপর ক্ষুব্ধ মেসি | পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে বিএনপি’র দহরম-মহরম পুরনো: তথ্যমন্ত্রী |
  • আজ ১০ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বাঘাবাড়ীতে শ্রমিক নেতার উপর হামলা: অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবিতে কর্মবিরতি

২:২০ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, জুন ৯, ২০২০ দেশের খবর, রাজশাহী

রাজিব আহমে, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে বাঘাবাড়ী ট্যাংলরী শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদকের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে কর্মবিরতি পালন করেছে শ্রমিকরা।

আজ মঙ্গলবার (০৯ জুন) সকালে স্থানীয় শ্রমিকরা এ কর্মবিরতির ডাক দেন। এতে বাঘাবাড়ি অয়েল ডিপো থেকে জ্বালানি তেল উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়।

পরে খবর পেয়ে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা ও থানার উর্ধ্বতন কর্মকর্রা শ্রমিক সংগঠনটির নেতাদের সাথে বৈঠকের পর হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে ৪ ঘন্টা পর বেলা ১১টায় শ্রমিকরা ধর্মঘট প্রত‍্যাহার করে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত রবিবার ৭ই জুন বিকালে শাহজাদপুরের বাঘাবাড়ী উত্তর বঙ্গ ট্যাংক লরী শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক মনির সরকারের উপর স্থানীয় সন্ত্রাসী আকবর আলীর (৩৫) নেতৃত্বে ৫/৬ জনের একটি দল হামলা চালায়। তাকে মারধর করে তার কাছে থাকা সাড়ে পাঁচ লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নেয়, এসময় মনির সরকারের আর্তচিৎকারে লোকজন এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

হামলার পর থানায় অভিযোগ দিলেও কোন প্রতিকার না পাওয়ায় আজ সকাল থেকে বাঘাবাড়ী অয়েল ডিপোতে তেল উত্তোলন বন্ধ রাখে শ্রমিকরা।

এসময় শ্রমিক নেতারা জানায়, যতক্ষণ সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার না করা হবে ততক্ষণ পর্যন্ত তারা তেল উত্তোলন বন্ধ রাখবে এবং পর্যায়ক্রমে সারা দেশে তেল উত্তোলন বন্ধ করা হবে।

উল্লেখ্য, বাঘাবাড়ি অয়েল ডিপো থেকে রাষ্ট্রায়ত্ব তেল কোম্পানি পদ্মা, মেঘনা ও যমুনার জ্বালানি তৈল উত্তরাঞ্চলের ১৬টি জেলাসহ মোট ২১টি জেলায় সরবরাহ করা হয়।