জন্মভিটায় নেওয়া হচ্ছে না নাসিমের মরদেহ, দাফন বনানীতে

৩:৪৮ অপরাহ্ণ | শনিবার, জুন ১৩, ২০২০ জাতীয়

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক- মহামারি করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের মরদেহ তার জন্মভিটা সিরাজগঞ্জের কাজীপাড়ায় নেওয়া হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক। তবে মরদেহ দাফন প্রক্রিয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে করা হবে বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের কাছে শনিবার (১৩ জুন) দুপুরে এ তথ্য জানান জাহাঙ্গীর কবির নানক।

নানক বলেন, ‘জননেত্রী শেখ হাসিনার বিশ্বস্ত সিপাহসালার সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ১৪ দলের মুখপাত্র নাসিম ভাই আর নেই। চলে গেছেন না ফেরার দেশে। তার মৃত্যুতে আওয়ামী লীগসহ সারা দেশবাসী আজ শোকাহত। শত মানুষের ভিড় আজ আপনারা দেখছেন হাসপাতালেও।’

তিনি আরও বলেন, ‘সারাবিশ্ব করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, বাংলাদেশেও জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছি। প্রিয় নেতা নাসিম ভাই চলে যাওয়ায় আমরা আমাদের প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সব কর্মসূচি স্বাস্থ্যবিধি মেনে পালন করব। আপনারা যে যেখানে আছেন সবাই দোয়া করবেন। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তাকে যেন বেহেশত নসিব করেন। তার শোক সন্তপ্ত পরিবারকে যেন আল্লাহ শোক সইবার শক্তি দান করেন। মরহুম নাসিম সাহেবের জানাজা আগামীকাল বেলা সাড়ে ১০টায় বনানী কবরস্থান মসজিদে জানাজা হবে এবং বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে।’

নানক বলেন ‘কাজীপুরের মানুষেরা চাতক পাখির মতো আমাদের দিকে তাকিয়ে আছে, কান্নায় ভেঙে পড়েছে কিন্তু দেশের বর্তমান পরিস্থিতির কারণে আমরা তার মরদেহ আমরা সিরাজগঞ্জ কাজীপাড়ায় নিতে পারছি না। জানাজাতে হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতি আমাদের কাছে কাম্য নয়, যে যেখানে আছেন সেখান থেকে আপনারা দোয়া করবেন। যারা হাসপাতালে ভিড় করছেন আমাদের দলের পক্ষ থেকে সকলের কাছে আবেদন থাকবে আপনারা চলে যাবেন এবং নিজ নিজ অবস্থান থেকে দোয়া করবেন হাসপাতালে ভিড় করে নিজেদের জীবন ঝুঁকির মধ্যে ফেলবেন না এটিই আমাদের প্রত্যাশা।’

পরে মোহাম্মদ নাসিমের ছেলে তানভীর শাকিল জয় বলেন, ‘বাবাকে গ্রামের বাড়ি ও তার নির্বাচনি এলাকা সিরাজগঞ্জের কাজীপুরে নিয়ে যাওয়ার কথা থাকলেও স্বাস্থ্যবিধির কথা চিন্তা করে তা বাতিল করা হয়েছে।’

জয় জানান, রাতে বাবার মরদেহ বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হবে। তার আরেক ভাই তন্ময় যুক্তরাষ্ট্র থেকে রাতেই দেশে ফিরবেন।

উল্লেখ্য, আটদিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে শনিবার (১৩ জুন) বেলা ১১টা ১০ মিনিটে রাজধানীর শ্যামলী বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বর্ষীয়ান এ রাজনীতিবিদ।

তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে বাংলাদেশ একজন দেশপ্রেমিক ও জনমানুষের নেতাকে হারাল। আমি হারালাম একজন বিশ্বস্ত সহযোদ্ধাকে।’

শ্বাসকষ্ট নিয়ে গত ১ জুন শ্যামলীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তির পরে করোনাভাইরাস পজিটিভ আসেন মোহাম্মদ নাসিমের। এরপর গত ৫ জুন ভোররাতে ব্রেন স্ট্রোক হয়। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিউরোসার্জন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. রাজিউল হকের নেতৃত্বে অস্ত্রোপচার হয়।

গত কয়েকদিন অচেতন অবস্থায় ভেন্টিলেশনে ছিলেন নাসিম। পরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য ডা. কনক কান্তি বড়ুয়াকে প্রধান করে একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়।