সংবাদ শিরোনাম
মাদারীপুরে মাছ ধরতে গিয়ে সাপের ছোবলে কাতার প্রবাসীর মৃত্যু | রংপুরে স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যা মামলায় স্বামীর মৃতুদন্ড, সহযোগীর যাবজ্জীবন | তারানা হালিমসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা খারিজ | নুরদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি | সীমান্ত সুরক্ষা: যুক্তরাষ্ট্র থেকে ২২৯০ কোটি টাকার অস্ত্র কিনছে ভারত | রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিশ্চিতে বাংলাদেশের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি ওআইসির | নকল মাস্ক সরবরাহ: জেএমআই’র চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার | এমসি কলেজে গণধর্ষণ: শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে তদন্ত কমিটি গঠন | ধর্ষকের যৌনাঙ্গ কর্তনের আইন চেয়ে আদালত প্রাঙ্গণে প্ল্যাকার্ড হাতে জালাল | পঞ্চগড়ে গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার |
  • আজ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রংপুরে অজ্ঞাত রোগে মরছে গরু, আক্রান্ত অন্তত ৫০ হাজার

১২:১১ অপরাহ্ণ | সোমবার, জুন ১৫, ২০২০ দেশের খবর, রংপুর

সাইফুল ইসলাম মুকুল, রংপুর- রংপুরসহ বিভাগের ৮ জেলায় অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে গত ১০ দিনে কয়েক শতাধিক গরু ও বাছুর মারা গেছে। আক্রান্তের সংখ্যা অন্তত ৫০ হাজার ছাড়িয়েছে।

এদিকে কোরবানি ঈদের আগে আকস্মিকভাবে অজ্ঞাত রোগে হাজার হাজার গরু আক্রান্ত হয়ে পড়ায় গরু খামারীসহ কৃষকদের মাঝে চরম আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।

রংপুর প্রাণী সম্পদ অদিদপ্তরের রংপুর বিভাগের উপ-পরিচালক ডা, হাবিবুল ইসলাম মহামারী আকারে রোগ ছড়িয়ে পড়ার কথা স্বীকার করে প্রাথমিক এ রোগের নাম লাম্পি স্কিন ডিজিস বলে জানিয়েছেন।

সরেজমিন রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণপুর, রংপুর সদর উপজেলার মমিনপুর তারাগজ্ঞ উপজেলার কুর্শা, ইকরচালি সয়ারসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে খামারী ও কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রথমে গরুর তীব্র মাত্রার জ্বর আসে এরপর আস্তে আস্তে সারা শরীরে চামড়ায় গোটা গোটা হয়ে যায়। গলাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে পানি নামে ফলে গরু ঘাস বা পোয়াল ও ভূষি কিছুই খেতে পারে না।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণীসম্পদ কার্যালয়ে গিয়ে কোন প্রতিকার পাচ্ছে না তারা। ফলে পল্লী চিকিৎসকদের দ্বারস্থ হয়ে বিভিন্ন ধরনের ঔষধ ও ইনজেকশন দিলে কিছুটা উপকার হলেও তেমন কোন উল্লেখযোগ্য উপকার হচ্ছে না।

রংপুরের তারাগঞ্জের ইকরচালির কৃষক খলিল অভিযোগ করেন, তার ৩টি গরু অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়েছে। আসন্ন কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে যত্ন করে গরু বড় করেছি একটু বেশি দাম পাবার আশায়, কিন্তু গরুর সারা শরীরে গোটা গোটা দানার মতো ফুলে যাওয়ায় কোরবানির হাটে দাম পাওয়া যাবে না বলে আশঙ্কা তার।

একই কথা জানালেন সয়ার এলাকার কৃষক সালাম, আবদুল বাকীসহ অনেকে। তারা জানালো বাছুরগুলো আক্রান্ত হলে ২/৩ দিনের মধ্যেই মারা যাচ্ছে। তাদের এলাকায় গত ৭ দিনে ৭টি গরু ও বাছুর মারা গেছে। অন্যদিকে রংপুর সদর উপজেলার মমিনপুর এলাকার গিয়ে দেখা গেছে শত শত গরু গোয়াল ঘরে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সাথে লড়ছে।

রংপুর বিভাগীয় প্রাণীসম্পদ অধিদপ্তর তথ্যমতে, উত্তরের আটটি জেলার প্রতিটি উপজেলায় এখন গরুর এই দূরারোগ্য ব্যাধি দেখা দিয়েছে। কোন প্রতিষেধক না থাকায় পালিত গরু নিয়ে দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছেন এই অঞ্চলের মানুষ। অনেকে না বুঝেই পল্লী চিকিৎসককে মোটা অংকের টাকা দিয়ে হচ্ছেন ক্ষতিগ্রস্ত তবে প্রাণী সম্পদ অধিদফতর বলছে, একমাত্র সচেতন থাকাই এই রোগের প্রতিকার।

রংপুর উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. এএসএম সাদেকুর রহমান জানান তাদের অফিসে প্রতিদিনেই অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত গরু নিয়ে আসছেন চিকিৎসার জন্য খামার মালিক ও কৃষকরা। আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করছি। তবে মশা-মাছির আক্রমণ থেকে রক্ষা ও পরিচর্যা করলে কিছুটা হলেও রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব বলে জানান তিনি।

রংপুর বিভাগীয় প্রাণীসম্পদ অধিদপ্তর বলছে, সংক্রামক ব্যাধি লাম্পি রোধে গোয়াল ঘরের মশা-মাছি নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি সচেতন থাকতে হবে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে রংপুর বিভাগীয় প্রাণীসম্পদ অধিদপ্তরের পরিচালক ডা. মো. হাবিবুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এ রোগের প্রকৃত কোন ওষুধ নেই। এ রোগটি ইতিপূর্বে ঝিনাইদহে দেখা দিয়েছিল এখন রংপুর বিভাগের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় ছড়িয়ে পড়েছে।

তিনি আরও জানান, এ পর্যন্ত প্রায় এক লাখ গরুকে আমরা প্রতিষেধক ইনজেকশন দিয়েছি। তবে কৃষকদের সচেতনতা বাড়াতে হবে আক্রান্ত হবার সঙ্গে সঙ্গে নিকটস্থ প্রানীসম্পদ হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসা দিলে রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব বলে জানান তিনি।