সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনায় চট্টগ্রামে আরও এক ডাক্তারের মৃত্যু

৭:২০ অপরাহ্ণ | বুধবার, জুন ২৪, ২০২০ চট্টগ্রাম, দেশের খবর

সময়ের কণ্ঠস্বর, চট্রগ্রাম- দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন থাকার পর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের (চমেক) অর্থোপেডিক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সমিরুল ইসলাম আজ বুধবার দুপুরে মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

সমিরুল গত মাসের মাঝামাঝি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। চট্টগ্রামে তাঁকে প্রথম প্লাজমা থেরাপি দেওয়া হয়েছিল ২৬ মে। শেষ পযন্ত আজ মৃত্যুর কাছে হার মানতে বাধ্য হলেন এই করোনাযোদ্ধা।

শুরু থেকে ডা. সমিরুলের চিকিৎসায় নিয়োজিত করোনা মোকাবিলায় স্বাচিপ গঠিত কমিটির চট্টগ্রাম বিভাগের সমন্বয়ক ডা. আ ম ম মিনহাজুর রহমান বলেন, প্লাজমা থেরাপিসহ অন্যান্য চিকিৎসা পেয়ে অনেকটা সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন ডা. সমিরুল। করোনামুক্ত হওয়ার পর খানিকটা সেরে উঠায় কিছুদিন আগে তাকে চমেক হাসপাতাল থেকে মেট্রোপলিটন হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। সেখানে একটি কেবিনে অক্সিজেন সাপোর্ট দিয়ে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। বুধবার সকালের দিকে হঠাৎ তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। পরে তাকে আইসিইউতে নিয়ে ভেন্টিলেটর সাপোর্ট দেওয়া হয়। সেখানে নেওয়ার ঘণ্টাখানেক পরে তিনি মারা যান।

গত ২১ মে করোনা আক্রান্ত হলে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ডা. সমিরুলকে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৬ মে চট্টগ্রামে প্রথম করোনা রোগী হিসেবে প্লাজমা থেরাপি দেওয়া হয় তাকে। চমেক হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. অনিরুদ্ধ ঘোষের নেতৃত্বে ঢাকার বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে একটি বিশেষ মেডিকেল টিম গঠন করে তার চিকিৎসা দেওয়া হয়। ৩১ মে ডা. সমিরুলের করোনা নেগেটিভ ফলাফল এলেও ঝুঁকিমুক্ত নন বলে জানান চিকিৎসকরা।

জানা যায়, সমিরুল স্ত্রী চমেক মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মুনা ইসলাম এবং দুই সন্তানও করোনা পজিটিভ ছিল। তাঁরা বাসায় চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হন।