করোনার ওষুধ নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে রামদেবসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

১০:০৮ অপরাহ্ণ | শনিবার, জুন ২৭, ২০২০ আন্তর্জাতিক
ram

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ করোনার ওষুধ নিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার অভিযোগে ভারতের বিখ্যাত যোগগুরু ও পতঞ্জলি আয়ুর্বেদের প্রধান বাবা রামদেবসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে তাদের কোম্পানির উদ্ভাবিত করোনার ওষুধ ‘করোনিল’র সকল প্রচারণা বন্ধ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার জয়পুরের জ্যোতিনগর থানায় বাবা রামদেব, আচার্য বালকৃষ্ণ, বিজ্ঞানী অনুরাগ বারষ্ণে, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্স(নিমস)-এর চেয়ারম্যান বলবীর সিংহ তোমর এবং ডিরেক্টর অনুরাগ তোমরের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হয়েছে।

জ্যোতিনগর থানার স্টেশন হাউস অফিসার (এসএইচও) এফআইআরের সত্যতা স্বীকার করেছেন। এফআইআরে বলা হয়েছে, বাবা রামদেব-সহ মোট ৫ জন করোনিল নিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন। পুলিশ জানিয়েছে, ওই ৫ জনের বিরুদ্ধে প্রতারণা (৪২০ ধারা)-সহ বেশ কয়েকটি ধারায় মামলা রুজু হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার (২৩ জুন) সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে ধুমধাম করেই করোনা বধের ওষুধ বাজারে আনার কথা ঘোষণা করেছিলেন যোগগুরু রামদেব।

পাতাঞ্জলির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ‘করোনিল ও শ্বাসরি’ নামের দুটি ওষুধ কোভিড-১৯ রোগীদের উপর পরীক্ষা করেও দেখা হয়েছে। এই ওষুধ প্রয়োগে সুস্থতার হার ১০০ শতাংশ বলে জানায় কোম্পানি।

পতঞ্জলির এই দাবিকে ঘিরেই বিতর্কের সূত্রপাত। ভারতে প্রতিনিয়ত করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। কী ভাবে করোনার মোকাবিলা করা যায়, কোন ওষুধ দিয়ে এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানো যায়, এ নিয়ে যখন ভারতসহ সারা বিশ্বে নানা রকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে, তখন এমন দাবি বিভ্রান্তিকর বলেই অভিযোগ তুলেছেন অনেকে।

এমনকি রামদেব দাবি করেন, এই ওষুধটি ব্যবহার করলে তিন থেকে সাতদিনের মধ্যেই সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠবেন করোনা আক্রান্ত রোগীরা। এই ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা পরই ভারতের কেন্দ্র সরকারের নজরে পড়ে পাতাঞ্জলি।