ফরিদপুরে ২’হাজার খেঁজুরের বীজ রোপণ করলেন স্কুল শিক্ষক!

১১:৫৩ অপরাহ্ণ | রবিবার, জুন ২৮, ২০২০ ঢাকা
sacho

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: দেশী খেঁজুর গাছ ও খেঁজুরের জন্য এক সময়কার বিখ্যাত জেলা ফরিদপুর থেকে যখন দেশী খেঁজুরগাছ প্রায় বিলুপ্তি হতে চলেছে ঠিক সেই সময় ফরিদপুরে ২ হাজার দেশী খেজুরের বীজ রোপণ করলেন ফরিদপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের রসায়ন শিক্ষক মোঃ নুরুল ইসলাম (ফরিদপুর বাসীর প্রিয় নুরুল স্যার)।

গতকাল শনিবার ও আজ রবিবার দুইদিনে ফরিদপুর শহরের রোড় ডিভাইডারে এসব দেশী খেঁজুরের বীজ রোপণ করেন তিনি। শহরের টেপাখোলা রেল ক্রসিং এর পশ্চিম পাড় মুজিব সড়ক থেকে শুরু করে পুলিশ লাইন, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়,পৌর ভবন, জনতা ব্যাংকের মোড়, আলীপুর ,পুরাতন বাসষ্টান্ড হয়ে পশ্চিম খাবাস পুরের প্রধান সড়কের রোড ডিভাডার গুলোর মাঝ খানে খেজুরের বীজ রোপণ করেন এই শিক্ষক।

শিক্ষক মোঃ নুরুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, খেঁজুর গুড়ের জন্য প্রসিদ্ধ আমাদের ফরিদপুর জেলা কিন্তু কালক্রমে ফরিদপুর থেকে খেঁজুরগাছ হারিয়ে যাচ্ছে। প্রধানত তিনটি কারণে আমার এই খেঁজুরের বীজ রোপণ করা, ১. ফরিদপুরের ঐতিহ্যকে ধরে রাখা। ২. শহরের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা। ৩. পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা।

শিক্ষক মোঃ নুরুল ইসলাম বলেন, শুরু করেছি রোড ভিাইডারের মধ্যে বীজ রোপণের মাধ্যমে, বীজ থেকে চারা গজালে শহরের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে। আগামী কিছুদিনের মধ্যে সড়কের পাঁশেও দেশী খেজুরের বীজ রোপণ করা হবে।

ফরিদপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের রসায়ন শিক্ষক মোঃ নুরুল ইসলাম যিনি প্রতি মাসে একটি ভালো কাজ করে থাকেন যার সুনাম মানুষের মুখে মুখে। এইসব ভালো কাজের অংশ হিসেবে শিক্ষক মোঃ নুরুল ইসলাম ফরিদপুরের পদ্মাপাড়ে “দয়া করে নদীতে কেউ প্লাস্টিক বর্জ্য ফেলবেন না, নদী না বাচঁলে আমরা বাঁচবো না, নদী বাঁচলে আমরা বাঁচবো” এই শ্লোগান সম্বলিত দুটি স্থায়ী বিল বোর্ড স্থাপন করেছেন।

মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ও নদীর দূষণ রক্ষার্থে তিনি ফরিদপুরের ধলার মোড় পদ্মানদীর পাড়ে ১টি ও ভাজন ডাঙ্গা ভুঁইয়া বাড়ীর ঘাট পদ্মানদীর পাড়ে ১টি বিলবোর্ড স্থাপন করেছেন। দেশে করোনার প্রভাবে যখন মানুষ কর্মহীন হয়ে পরে তখন তিনি ফরিদপুর শহরের দরিদ্র দিনমুজুর,রিক্সা চালক, চা বিক্রেতা, নরসুন্দর ও খেটে খাওয়া প্রতিবেশীদের বাড়ীতে বাড়ীতে গিয়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

তিনি রিক্সা চালকদের মধ্যে সকালের নান্তা বিতরণ করেছেন, রিক্সা চালক ও ভিক্ষুক মিলে অর্ধশত ব্যাক্তিকে দুপুরে চাইনিজ খাইয়েছেন, দুঃস্থ্যদের মাঝে সেমাই, চিনি ও গুড়া দুধ বিতরণ করেছেন, মাদ্রাসায় ছাত্রদের সহযোগিতা করা, এক বৃদ্ধার ঈদের যাবতীয় খরচ বহন করেছেন, শহরে রোপণ করেছেন ২০টি কৃষ্ণচূড়া ও রাধাচূঁড়ার চারা। এছাড়া শহরের বিভিন্ন জায়গায় রোপণ করেছেন ১ হাজার ১শতটি তালের বীজ।

শিক্ষক নুরুল ইসলাম আরো জানান, এবছর সকল ভালো কাজ মুজিব বর্ষ উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করেছি। তিনি বলেন, প্রতিমাসে একটি করে ভালো কাজ করবেন।

শিক্ষক নুরুল ইসলাম ফরিদপুর শহরের কমলাপুর লালের মোড় এলাকার বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা ফকির আব্দুর রহমানের ছেলে। তিনি বিবাহিত এবং এক ছেলে ও এক মেয়ের বাবা। নুরুল ইসলাম জানান, অনেক দিনের স্বপ্ন সমাজের জন্য কিছু করা। তাই প্রতিমাসে অন্তত একটি ভালো কাজ করার চেষ্টা করি।