সংবাদ শিরোনাম
সম্মেলন ডেকে হেফাজতের আমির নির্বাচন করা হবে: বাবুনগরী | সেনা কর্মকর্তা পরিচয়ে ৯ বছরে ৯ বিয়ে! অপেক্ষায় আরও ৪ | ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পুনর্নিয়োগ অনৈতিক ও বিধিবহির্ভূত: টিআইবি | চরফ্যাসনে ফার্মেসীতে র‍্যাবের অভিযান, দোকান বন্ধ করে পালাল ব্যবসায়ীরা | ইউএনও ওয়াহিদা ও তার স্বামীকে ঢাকায় বদলি | সবুজপাতা সফটওয়্যার ও মোবাইল অ্যাপসের উদ্বোধন করলেন রেলমন্ত্রী | ট্রাকচাপায় ছাগল মারা যাওয়ায় চালককে পিটিয়ে হত্যা | হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি শুরু | রংপুরে দুই বোনের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় হত্যা মামলা | ১৯ বছরেই সফল ডিজিটাল মার্কেটার তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী তুহিন |
  • আজ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ঈদকে সামনে রেখে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে মসলা আমদানি বেড়েছে

১০:১৩ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, জুলাই ১, ২০২০ অর্থনীতি, দেশের খবর, রংপুর

মোঃ আব্দুল আজিজ, হিলি প্রতিনিধি- কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে বেড়েছে জিরাসহ সব ধরনের মসলার আমদানি। দেশের বাজারে মসলার দাম স্বাভাবিক রাখতে আমদানি করা হচ্ছে এই সব পণ্য। স্বাভাবিক রয়েছে মসলার দাম।

এছাড়াও ঈদকে সামনে রেখে বন্দরের আমদানি রপ্তানির কাযক্রম আরও গতিশীল করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে বন্দরে আসছেন পাইকার, আড়ৎদার ও ব্যবসায়ীরা।

হিলি শুল্ক স্টেশনের সহকারি কমিশনার আব্দুল হান্নান জানান, প্রতি বছর কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে মসলা জাতীয় পণ্যের আমদানি বৃদ্ধি পায়। এবার জিরা, আদা, কালো জিরা, মেথি, হলুদ, শুকনো মরিচসহ বিভিন্ন ধরনের মসলা আমদানি হচ্ছে। ঈদকে সামনে রেখে মসলা জাতীয় পণ্য আরও বেশি আমদানি হবে এবং সরকারের বেধে দেওয়া রাজস্ব টার্গেট পূরণ করতে সক্ষম হবো।

হিলি স্থলবন্দর আমদানি রপ্তানি গ্রুপের সভাপতি হারুন-উর রশিদ হারুন জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে প্রায় আড়াই মাস হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ ছিল। যেহেতু সামনে কোরবানি ঈদ সেই লক্ষে আমরা লোকাল আমদানি কারক এবং বাহিরের কিছু আমদানি কারকমিলে মসলা জাতীয় পণ্যের আমদানি করছি। কারণ ঈদের সময় বিশেষ করে মসলার বেশি প্রয়োজন হয়। দেশের বাজারে মসলার দাম স্বাভাবিক রাখতেই আমরা বেশি বেশি মসলা জাতীয় পণ্য আমদানি করছি। ইতিমধ্যে দেশের বাজারে মসলার দাম অনেকটাই কমে গেছে।

কাস্টমস তথ্য মতে, চলতি মাসের ৮ জুন থেকে হিলি বন্দর দিয়ে ১৬৩ ট্রাকে ৩ হাজার ৭২৬ মেঃ টন আদা, রসুন, জিরাসহ বিভিন্ন মসলা জাতীয় পণ্য আমদানি হয়েছে। আর এই সব পণ্য থেকে ৩ কোটি টাকা রাজস্ব পেয়েছে সরকার।