সংবাদ শিরোনাম
মানিকগঞ্জে সাংবাদিকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে সহকর্মীদের মানববন্ধন | সন্তানকে বিক্রি করে দিলেন বাবা: ইউরিয়া খেয়ে মায়ের আত্মহত্যার চেষ্ঠা! | আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর রোগমুক্তি কামনায় দোয়া-মোনাজাত | লাশের মিছিল বেড়েই চলেছে, তবুও আলোচনায় নারাজ আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান | বাংলাদেশের সাথে বন্ধ থাকা স্থলবন্দর খুলে দিতে ভারতকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অনুরোধ | কুয়েতের আমির শেখ সাবাহ’র মৃত্যুতে দেশে একদিনের রাষ্ট্রীয় শোক | ইয়াবা দিয়ে ‘ফাঁসাতে’ গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেলেন এএসআই | কাল হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাচ্ছেন ইউএনও ওয়াহিদা | খালেদার যুক্তরাজ্যে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে চান ডিকসন | আবারো দলকে ঐক্যবদ্ধ হবার আহ্বান মেসির |
  • আজ ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভারতকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য, নেপালের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি

১১:৪০ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, জুলাই ১, ২০২০ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- প্রতিবেশী ভারতকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করে নিজের দলের মধ্যে সমালোচনার মুখে পড়েছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা অলি। ক্ষমতাসীন নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির শীর্ষ নেতারাই তার পদত্যাগ দাবি করেছেন।

মঙ্গলবার বালুওয়াতরে নেপালের প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনে দেশটির ক্ষমতাসীন দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই সাবেক প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কামাল দাহাল কে পি অলির মন্তব্যের কঠোর সমালোচনা করেন। খবর এনডিটিভির

সাবেক প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কামাল দাহাল বলেন, কে পি শর্মা অলিকে ক্ষমতা থেকে সরানোর জন্যে ভারত ষড়যন্ত্র করছে, প্রধানমন্ত্রী অলির এই বক্তব্য রাজনৈতিকভাবে তো গ্রহণযোগ্য নয়ই, কূটনৈতিকভাবেও উপযুক্ত নয়। প্রধানমন্ত্রীর এ জাতীয় বক্তব্য প্রতিবেশি দেশের সঙ্গে আমাদের সম্পর্কের ক্ষতি করতে পারে।

গত রোববার নেপালের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী কে পি অলি বলেছিলেন, তাকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য দূতাবাস এবং হোটেলগুলোতে বিভিন্ন ধরনের কাজকর্ম চলছে। তিনি বলেন, কিছু নেপালি নেতাও এই খেলার সঙ্গে জড়িত।

অলির বক্তব্যের বিরোধিতা করেছে তার দলই। দলটির শীর্ষ নেতা পুষ্প কামাল দাহাল ছাড়াও অভিজ্ঞ নেতা মাধব কুমার নেপাল, ঝালানাথ খানাল, সহ সভাপতি বামদেব গৌতম এবং মুখপাত্র নারায়ণকাজি শ্রেষ্ঠাও প্রধানমন্ত্রী অলিকে তার করা অভিযোগের প্রমাণ দিতে বলেছেন। পাশাপাশি নেপালের প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে তার পদত্যাগের দাবিও উঠেছে।

তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এ জাতীয় কূটনীতিবিরুদ্ধ ও অরাজনৈতিক মন্তব্য করার পরে নৈতিকভাবেই পদত্যাগ করা উচিত। তবে বৈঠকে উপস্থিত কে পি অলি এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেননি।