সংবাদ শিরোনাম
জামিনে এসে প্রবাসীর স্ত্রীকে নিয়ে মসজিদের ইমাম ‘উধাও’ | লিবিয়া উপকূলে নৌকা ডুবির ঘটনায় বাংলাদেশীসহ উদ্ধার-২২ | নোয়াখালীতে ছুরিকাঘাতে গৃহবধূ হত্যা | লালমনিরহাটে ট্রাকের ধাক্কায় ট্রেন ধরাশায়ী! | ‘দেশের সবগুলো নদী খনন করে বাঁধ নির্মাণ করা হবে’- পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী | শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে মাগুরায় দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ | “সৃষ্টিকর্তার রহমতে বাংলাদেশে ব্যাপক হারে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ হয়নি” | ভারতের ভ্যাকসিন সমগ্র মানবজাতির কল্যাণে ব্যয় করা হবে: মোদি | ‘সিগারেট খেয়েছি, ড্রাগস নয়..ড্রাগস নিত সুশান্ত’- সারা আলী খান | ৫ অক্টোবর ঢাকায় আসছেন ভারতের নতুন হাইকমিশনার |
  • আজ ১২ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মুম্বাইয়ের দুটি তাজ হোটেল উড়িয়ে দেয়ার হুমকি এলো পাকিস্তান থেকে!

৪:৩১ অপরাহ্ণ | বুধবার, জুলাই ১, ২০২০ আন্তর্জাতিক
taj

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ যখন লাদাখ নিয়ে উত্তাল ভারত-চীন সীমান্ত তখনই পুরনো ক্ষত মাথাচাড়া দিয়েছে উঠেছে ভারতের। মুম্বাইয়ের কোলাবার তাজমহল প্রাসাদ এবং বান্দ্রার তাজ ল্যান্ডস এন্ড নামে দুই হোটেলের ল্যান্ডলাইনে সোমবার গভীর রাতে ফোন করে হোটেল দুটি উড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়েছে। যাতে বলা হয় ঠিক ২৬/১১ হামলার মতো আরেকটি সন্ত্রাসী হামলা চালানো হবে।

মুম্বাই পুলিশের বরাতে এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই ফোন কল পাকিস্তানের কোনো এক প্রান্ত থেকে এসেছে। কোলাবার তাজমহল প্রাসাদ এবং বান্দ্রার তাজ ল্যান্ডস অ্যান্ড নামে এ দুই হোটেলের ল্যান্ডলাইনে ফোন আসে। ফোনে হুমকি দেয়া হয়, ফের ২০০৮ সালের ২৬/১১-র ধাঁচে হামলা চালানো হবে হোটেলে। দুই হোটেলেই নিজস্ব নিরাপত্তা বাহিনী রয়েছে।

দুই হোটেলেরই সুরক্ষা ব্যবস্থা কড়া করার পাশাপাশি ঠিক কোথা থেকে ওই হুমকি ফোন করা হয়েছে, তা খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারী কর্মকর্তারা। এটি নিছকই উড়ো ফোন নাকি, সত্যিই কোনও সন্ত্রাসবাদী সংগঠন এই হামলার হুমকি দিয়েছে তাও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

এর আগে ২০০৮ সালে অত্যাধুনিক অস্ত্র নিয়ে লস্কর-ই-তৈয়বার জঙ্গিরা তাজমহল প্যালেস হোটেল, ছত্রপতি শিবাজি টার্মিনাস রেলওয়ে স্টেশন এবং লিওপোল্ড ক্যাফেতে সন্ত্রাস হামলা চালায়। মুম্বাইয়ের এই সন্ত্রাসবাদী হামলা ভারতের ইতিহাসে এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে ভয়াবহ হামলাগুলোর মধ্যে অন্যতম। এই হামলায় ১৬৬ জনের মৃত্যু হয় এবং আহত হন ৩০০ জনেরও বেশি মানুষ। পাকিস্তান থেকে জলপথে মুম্বইয়ে হামলা চালাতে এসেছিল আজমল কাসভ – সহ ১০ জন সন্ত্রাসী।

এমনিতেই ভারত -পাক সীমানা দিয়ে সন্ত্রাসী অনুপ্রবেশ নিয়ে বরাবরই চিন্তায় থাকে ভারত। তার মধ্যে আবার বর্তমানে লাদাখ সীমান্তে ভারত-চীন উত্তেজনা তুঙ্গে। পরিস্থিতি এতটাই গুরুতর যে , নিরাপত্তার স্বার্থে সেখানে এয়ার ডিফেন্স মিসাইল সিস্টেম বসাতে হয়েছে। এরই মধ্যে কাশ্মীর সীমান্তে ক্রমশ যেন তৎপরতা বাড়াচ্ছে পাকিস্তানের মদতপুষ্টরা। পাক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই -এর মদতেই এই কার্যকলাপ বেড়েছে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

এদিকে ভারত-নেপাল সীমান্ত বন্ধ হওয়ায় এরই মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে বিরূপ প্রভাব পড়েছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেড়েছে। খেটে খাওয়া নেপালিদের জন্য দৈনন্দিন জীবিকানির্বাহ অসম্ভব হয়ে পড়েছে। ভারতের সঙ্গে সীমান্ত নিয়ে বিরোধে জড়িয়ে পড়াকে এর কারণ হিসেবে ধরে নিয়ে ক্ষমতাসীন সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছে মানুষ।

সম্প্রতি নেপাল সরকার দেশের নাগরিকদের ভারতে ঢোকায় নিষেধাজ্ঞা জারি করে। একই সঙ্গে ভারতীয়দের জন্যও নেপালের দরজা বন্ধ করা হয়। ফলে দু’দেশের বাণিজ্য বন্ধ হয়ে নেপালে খাদ্যসামগ্রীর দাম এখন আকাশছোঁয়া। লবণের দাম বাড়তে বাড়তে কেজিতে হয়েছে ১০০ টাকা। আবার এক লিটার সরিষার তেলের দাম ২৫০ টাকা।