🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বুধবার, ১৪ আশ্বিন, ১৪২৮ ৷ ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ৷

বাগেরহাটে ৬০ টাকার কাঁচামরিচ ২০০ টাকা!

bag
❏ বুধবার, জুলাই ১, ২০২০ খুলনা

শেখ সাইফুল ইসলাম কবির, বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাটে এক সপ্তাহের ব্যবধানে ৬০ টাকা থেকে লাফিয়ে ২০০ টাকায় উঠে গেছে কাঁচামরিচের দাম। বাগেরহাটে ৯ উপজেলার গ্রামাঞ্চলের হাট-বাজারে আরো বেশি দামে বিক্রির খবর পাওয়া গেছে। অন্যান্য তরিতরকারির দামও বেড়েছে কেজিতে ১৫-২০ টাকা করে। এ অবস্থায় নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছে জনমনে।

বুধবার সকালে মোরেলগঞ্জ উপজেলা সদর বাজার কঁচাবাজার ঘুরে দামের এমন তারতম্য দেখা গেছে। গত সপ্তাহের ৫০ টাকার করোলা এখন ৭০ টাকা, কাঁকরোল ৫০ টাকা থেকে ৬০ টাকা, পটোল ৪০ টাকা থেকে ৫০ টাকা, ধুনদল ৩৫ টাকা থেকে ৫০ টাকা, আলু ২০ টাকা থেকে ৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

হঠাৎ দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে কাঁচামাল ব্যবসায়ী মো আব্দুর রশিদ ফকির, হারুন আর রশিদ ও জাহাঙ্গীর জানান, আগে স্থানীয় এবং পার্শ্ববর্তী মঠবাড়িয়া উপজেলার বড়মাছুয়া ও মাঝের চরের চাষীদের উৎপাদিত কঁচা মরিচসহ বিভিন্ন ধরণের শাক-সবজি পাইকারী কিনে বিক্রি করা হতো। বন্যা ও অতিবৃষ্টির কারণে ক্ষেতে পানি জমে তা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এখন ওইসব এলাকা থেকে কাঁচামাল আসছে না। যার ফলে খুলনা থেকে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে এসব পণ্য। একারণে বিক্রিও করতে হচ্ছে বেশি দামে।

মোরেলগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক মেহেদী হাসান লিপন জানান, তরিতরকারির দাম বেড়ে নিম্ন আয়ের মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। তিনি বুধবার সকালে রায়েন্দা কাঁচাবাজার থেকে ১০০ গ্রাম কাঁচামরিচ ২০ টাকায়, এক কেজি কাঁকরোল ৬০ টাকায়, ধুনদল ৬০ টাকায়, করোলা ৭০ টাকায় কিনেছেন। হঠাৎ করে দাম বৃদ্ধিতে তিনি অবাক হয়েছেন।

মোরেলগঞ্জ কাাঁচামালের পাইকারী ব্যবসায়ী মো. আব্দুর রশিদ ফকির বলেন, খুলনার মোকমেও সব মালের দাম বৃদ্ধি। এক সপ্তাহ আগে যে দামে খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করেছি সেই দামে এখন পাইকারী কিনতে হচ্ছে। যে কারণে খুচরা বাজারে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন