🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বুধবার, ১৪ আশ্বিন, ১৪২৮ ৷ ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ৷

অশ্লীল ভিডিও দেখিয়ে বলাৎকারের চেষ্টা, রাজি না হওয়ায় গলাটিপে হত্যা!

atok
❏ বৃহস্পতিবার, জুলাই ২, ২০২০ রাজশাহী

উজ্জ্বল অধিকারী, বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: নৌকায় বেড়াতে গিয়ে ধৈঞ্চাক্ষেতে নিয়ে অশ্লীল ভিডিও দেখিয়ে ১০ বছরের কিশোরকে বলাৎকারের চেষ্টা করে এক যুবক, রাজি না হওয়ায় ধৈঞ্চা ক্ষেতে গলা টিপে হত্যা করে পানিতে ফেলে দিয়ে যায় এক ঘাতক যুবক।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (কামারখন্দ সার্কেল) শাহীনুর কবিরের কাছে এরকমই জবান বন্দী দিয়েছে সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে ইয়ামিন নামে দশ বছরের এক শিশুকে গলাটিপে হত্যা করী ঘাতক সুমন।

ঘাতক সুমনকে ইন্টানেট টেকনিক্যালের মাধ্যমে আটকের পর তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক ৪দিন পর মঙ্গলবার (৩০ জুন) বিকেলে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (কামারখন্দ সার্কেল) শাহীনুর কবিরের নেতৃত্বে বেলকুচি থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) নুরে আলম, উপ-পরিদর্শক মেহেদী হাসানসহ সংগ্রীহ ফোর্স নিয়ে চর রান্ধুনী বাড়ীর একটি ধৈঞ্চাক্ষেত থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করেছে।

শিশু ইয়ামিন উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের চর রান্ধুনীবাড়ী গ্রামের মো. লালচাঁদের ছেলে। ঘাতক সুমন একই গ্রামের আবুল কালামের ছেলে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (কামারখন্দ সার্কেল) শাহীনুর কবির এই প্রতিবেদককে জানান, গত ২৭ তারিখ শিশু ইয়ামিন নিখোঁজের ঘটনায় তার পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় জিডি দায়ের করা হয়। জিডির তদন্তের এক পর্যায়ে ইন্টারনেট টেকনোলোজির মাধ্যমে সন্দেহজনকভাবে সুমনকে আটক করা হয়। তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে শিশু ইয়ামিনকে হত্যার পর পানির মধ্যে ধৈঞ্চাক্ষেতে ফেলে রাখার কথা স্বীকার করে। তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক সন্ধ্যার আগে শিশু ইয়ামিনের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়।

ঘাতকের বরাত দিয়ে তিনি আরো জানান, ঘটনার দিন দুপুর দুই টার দিকে ঘাতক সুমন শিশু ইয়ামিনকে নৌকায় ঘুরতে বের হয়। এসময় একটি ধৈঞ্চাক্ষেতে গিয়ে তাকে কিছু অশ্লীল ভিডিও দেখায়। এরপর তাকে ঐক্ষেতে বলাৎকারের চেষ্টা করে। কিন্তু শিশুটি রাজি না হওয়ায় তাকে গলাটিপে হত্যা করে লাশ ক্ষেতেই পানির মধ্যে রেখে দেয়।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন