নলকূপ বসাতে গিয়ে গাইবান্ধায় মিললো গ্যাসের সন্ধান

৯:৪৫ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, জুলাই ৪, ২০২০ দেশের খবর, রংপুর

ফরহাদ আকন্দ, নিজস্ব প্রতিবেদক: গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের মীরপুর গ্রামে ফ্রি আয়রন নলকূপ বসানোর সময় পাইপে গ্যাস বাষ্পায়িত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এরপর হতে সেখান থেকে গ্যাস বের হচ্ছে।

গতকাল শুক্রবার (৩ জুলাই) বিকেলে গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের মীরপুর গ্রামের আলহাজ্ব আশরাফুজ্জামান সরকারের ছেলে অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট গোলাম মাজহারুল (এমপি) বাসায় এ ঘটনা ঘটে।

পরে ফায়ারসার্ভিস ও সাদু্ল্যাপুর থানার পুলিশ প্রশাসন পরিদর্শন করেন। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এক নজর দেখতে উৎসুক জনতা ভীড় জমায়। ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় বেশ কৌতুহল সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মাজহারুল ফ্রি আয়রন নলকূপ বসানোর উদ্দেশ্যে নলকূপ মিস্ত্রী রাঙ্গা ও তার সহকর্মীরা পাইপ দিয়ে গর্ত খুরতে শুরু করে। এরপর ২১২ ফুট পাইপ মাটির গভীরে যাওয়ার পর নিচ থেকে মিস্ত্রীর হাতে বাষ্পের চাপ লাগে এবং পানিতে বাষ্পের বুদবুদ দেখতে পায়। সবগুলো পাইপ উঠানো হলে পানিতে জোরে বুদবুদ আওয়াজ হলে বাসা মালিক মাজহারুল তার বড় ভাইকে ফোনে যোগাযোগ করেন। বড় ভাই আসার পর পাইপ যোগে পাইপের মাথায় আগুন লাগিয়ে পরীক্ষা করে দেখেন দাউদাউ করে আগুন জ্বলছে। তখন পাইপ সরিয়ে নিয়ে বাষ্পায়িত গর্তে বালু দিয়ে বন্ধ করে উপরে একটি সিসার পাত্র দিয়েঢেকে একটি চিকন পাইপ বসানো হয়। যাতে বাষ্পায়িত গ্যাস উপরে নির্গত হয়।

বাসার মালিক মাজহারুল ‘সময়ের কণ্ঠস্বর’ কে বলেন, ফ্রি আয়রন নলকূপ বসানোর উদ্দেশ্যে পাইপ দিয়ে গর্ত করার সময় ঘটনাটি ঘটেছে। মিস্ত্রীর হাতে বাষ্পের চাপ লাগলে আমাকে ডাক দেন। এরপর পাইপ উঠানো হলে বুদবুদ আকারে বাষ্প বাষ্পায়িত হয়। আগুন লাগিয়ে বুঝতে পারি এটি গ্যাস বাষ্পায়িত হচ্ছে।

নলকূপ মিস্ত্রী রাঙ্গা ‘সময়ের কণ্ঠস্বর’ কে বলেন, পাইপ যখন ২১২ ফুট পাইপ গভীরে যায় তার পর আমার হাতে বাষ্পের চাপ লাগে এবং পানিতে বুদবুদ দেখতে পাই। তখন বাসার মালিককে ডাক দিই। তারাতারি সমস্ত পাইপ উঠানো হলে বাসা মালিক ও তার বড় ভাই মিলে অন্য পাইপে যোগে আগুন লাগিয়ে পরীক্ষা করেন। তখন বুঝতে পারি নিচ থেকে গ্যাস বাষ্পায়িত হচ্ছে।

দর্শানার্থী সাদেকুল ইসলাম ‘সময়ের কণ্ঠস্বর’ কে বলেন, দুপুরে গ্যাস বাষ্পায়িত হওয়ার সংবাদ শুনে ঘটনাস্থল গিয়ে দেখি ঘটনা সত্য। বুদবুদ করে গ্যাস বাষ্পায়িত হচ্ছে। এখানে মাটির নিচে গ্যাস থাকতে পারে বলে ধারনা করছেন এলাকাবাসী। তাই বিষয়টি খতিয়ে দেখতে কর্তৃপক্ষের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছেন ঘটনাটি দেখতে আসা হাজারো দর্শানার্থী।