• আজ ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভারতের পর যুক্তরাষ্ট্রেও বাতিল হচ্ছে টিকটক

৭:১২ অপরাহ্ন | মঙ্গলবার, জুলাই ৭, ২০২০ আন্তর্জাতিক
tik

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতের পর যুক্তরাষ্ট্রও টিকটকসহ চীনা সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপসগুলো নিষিদ্ধ করার বিষয়ে ভাবছে। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এমনটিই জানিয়েছেন। সম্প্রতি ফক্স নিউজে এক সাক্ষাৎকারে পম্পেও একথা জানান।

পম্পেও বলেন, আমরা এখনি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সামনে বিষয়টি উপস্থাপন করছি না। তবে বিষয়টি আমরা দেখছি।

ওয়াশিংটনের শীর্ষ এই কূটনীতিক আরো বলেন, আপনি যদি চান চীনা কমিউনিস্ট পার্টির হাতে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য চলে যাক কেবল তখনই অ্যাপটি ডাউনলোড করবেন।

তবে, পম্পেওর এমন অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছে টিকটক। পম্পেওর মন্তব্যের পরে বিপরীতে টিকটকের একজন মুখপাত্র এক বলেছেন, টিকটকের নেতৃত্বে রয়েছেন একজন আমেরিকান প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নিরাপত্তা, সুরক্ষা ও পাবলিক পলিসি নিশ্চিত করতে কয়েকশ কর্মচারী টিকটকে কাজ করে থাকে।

তারা আরো জানিয়েছে, আমাদের ব্যবহারকারীদের জন্য এটি নিরাপদ ও সুরক্ষিত একটি অ্যাপ্লিকেশন। আমরা কখনোই চীন সরকারকে ব্যবহারকারীর ডেটা সরবরাহ করি না।

এরমধ্যেই, হংকংয়ে নিজেদের কার্যক্রম স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছে জনপ্রিয় সামাজিক মাধ্যম টিকটিক। হংকংয়ে বিতর্কিত জাতীয় নিরাপত্তা আইন পাশের পর চীন সরকার গ্রাহকদের তথ্য হাতিয়ে নেবে এমন অভিযোগ উঠার পরপরই এমন সিদ্ধান্ত নিলো জনপ্রিয় মাধ্যমটি।

এর আগে লাদাখে ভারতীয় সেনাদের সঙ্গে চীনা সেনাদের সংঘর্ষের জেরে টিকটকসহ চীন ভিত্তিক ৫৯টি অ্যাপস বন্ধ করে দেয় মোদি সরকার। এবার সেই পথেই ভারতের মিত্র যুক্তরাষ্ট্র।

উল্লেখ্য বেইজিং ভিত্তিক টিকটক এই অ্যাপটি নিয়ে মার্কিন রাজনীতিবিদরা বারবারই সমালোচনা করে আসছেন। তারা এটি চীনের সাথে সম্পর্কিত হওয়ায় জাতীয় সুরক্ষার জন্য হুমকি বলে অভিহিত করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগ, অ্যাপটি চীনা কমিউনিস্ট পার্টি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত গোয়েন্দা সংস্থাকে সহায়তা করতে পারে।