সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মির্জাপুরে মশার উৎপাত, বাড়ছে ডেঙ্গু আতঙ্ক

১০:২৯ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, জুলাই ৭, ২০২০ ঢাকা
tan

মো. সানোয়ার হোসেন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে মধ্যে মশার উপদ্রবে নাকাল টাঙ্গাইলের মির্জাপুর পৌরবাসী। বিগত কয়েক দিনে মশার উৎপাত বেড়েই চলছে। বর্ষার শুরু থেকেই মশা বেড়ে যাওয়ায় পৌরবাসীকে তাড়া করছে। দিনের আলো কমে গেলে ঘরে-বাইরে মশার গুনগুন শব্দ বেড়ে যায়। রাস্তা কিংবা বাড়ির ছাদে দাঁড়ালেই মাথার উপর মশাদের জটলা দেখা যায়।

মির্জাপুরে করোনা রোগী শনাক্তের পর থেকে মশা নিধনে পৌরসভার কর্মীদের দেখা পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করছেন অনেকে। এখনি মশা মারার উদ্যোগ না নিলে সামনের দিনগুলোতে পরিস্থিতি ভয়াবহ হবে এমনটাই মনে করছেন পৌরবাসী।

মির্জাপুর পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় মশার উপদ্রব বৃদ্ধি পায়। রাস্তাঘাট, বাসা-বাড়ি, অফিস-আদালত ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সর্বত্রই মশার প্রকোপে দেখা দেয়। শহরের বিভিন্ন এলাকায় রাস্তার পাশের ময়লার ভাগাড়, ঝোপঝাড় ও বাসা বাড়ির আনাচে-কানাছে ওষুধ ছিটাতে দেখা যায়নি কাউকে। ফলে দিন দিন বেড়েছে মশার সংখ্যা।

পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের এক নারী ভাড়াটিয়া স্থানীয় এমপি মো. একাব্বর হোসেনের বাসভবনের পশ্চিমপাশে থাকা ড্রেন দেখিয়ে বলেন, এই এলাকায় প্রায় ৯ মাস ধরে ভাড়াটিয়া হিসেবে রয়েছি। এই সময়ের মধ্যে কখনোই এই ড্রেনটি পরিষ্কার করা হয়নি। সম্প্রতি মশার উৎপাত অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। একই ওয়ার্ডের আরেক বাসিন্দা বলেন, কিছুদিন আগে মশারি ছাড়া ঘুমানো গেলেও এখন আর সেই সুযোগ নেই। ব্যাপকভাবে মশার উৎপাত বেড়ে গেছে। মশারিও মানতে চায়না।

সচেতন নাগরিকদের মতে, যেহেতু ডেঙ্গু আক্রান্ত হলে সাধারণত জ্বর, মাথা ব্যথার মতো উপসর্গগুলো দেখা দেয় যা করোনা উপসর্গের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ তাই ডেঙ্গু বা চিকুনগুনিয়ার মতো মশাবাহিত রোগ নির্ণয়ে সমস্যা দেখা দিতে পারে। কেননা করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারনে স্বাভাবিক চিকিৎসাসেবা অনেকটাই ব্যহত। এরমধ্যে জ্বরের মতো উপসর্গ নিয়ে কেউ চিকিৎসা নিতে গেলে দেখা দিতে পারে জটিলতা। তবে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালসহ বেশ কয়েকটি প্রাইভেট ক্লিনিকে খোঁজ নিয়ে কেউ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে মির্জাপুর পৌরসভার (ভারপ্রাপ্ত) মেয়র চন্দনা দে জানান, মশার বিষয়ে আমরা সচেতন আছি। আমরা মশা নিধনে পৌর এলাকায় স্প্রে শুরু করেছি। তবে বেশকিছু জায়গায় ড্রেনের নাজুক অবস্থার ব্যাপারে তিনি বলেন, সম্প্রতি কিছু ড্রেন পরিষ্কার করার জন্য বলা হয়েছে।

Skip to toolbar