‘ভারতের ওষুধ শিল্প সমগ্র বিশ্বের জন্য সম্পদ’- মোদি

modi
❏ শুক্রবার, জুলাই ১০, ২০২০ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, এই মহামারী (করোনা) আবারও দেখিয়েছে যে ভারতের ওষুধ শিল্প কেবল ভারতের নয়, সমগ্র বিশ্বের জন্য একটি সম্পদ। বিশেষত উন্নয়নশীল দেশগুলির ওষুধের ব্যয় হ্রাসে এটি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে।

তিনি বলেন, ভারতে তৈরি টিকা দিয়ে বিশ্বের দুই-তৃতীয়াংশ বাচ্চাদের টিকা দেয়া হয়। আজও, আমাদের সংস্থাগুলি কোভিড-১৯ এর টিকা আবিষ্কার ও উৎপাদনের জন্য আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টাতে সক্রিয় রয়েছে। আমি নিশ্চিত যে টিকা আবিষ্কার হওয়ার পরে এটির বিকাশ এবং উৎপাদনে ভারতের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকবে।

বৃহস্পতিবার ইন্ডিয়া গ্লোবাল উইক-২০২০ উপলক্ষে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এসব কথা বলে।

মোদি বলেন, ১৩০ কোটি ভারতীয়দের একটি আত্মনির্ভর ভারত গড়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। একটি আত্মনির্ভর ভারত যা দেশীয় উৎপাদন এবং বৈশ্বিক সরবরাহ ব্যবস্থার মধ্যে সমন্বয় করবে। আত্মনির্ভর মানে আত্মকেন্দ্রিক বা বিশ্বের কাছে অবরুদ্ধ হওয়া নয় বরং এর মানে উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করা। দক্ষতা, সাম্য এবং স্থিতিস্থাপকতা প্রচার করে এমন নীতিগুলোই আমরা অনুসরণ করব।

নরেন্দ্র মোদী বলেন, ভারত বিশ্বের উন্নতি ও সমৃদ্ধির জন্য যথাসাধ্য করতে প্রস্তুত। ভারত এমন একটি দেশ যা সংস্কার হচ্ছে, কাজ সম্পাদন করছে এবং রূপান্তর করছে। এটি এমন একটি ভারত যা নতুন অর্থনৈতিক সুযোগ তৈরি করে এবং উন্নয়নের ক্ষেত্রে মানবকেন্দ্রিক এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক পদ্ধতি অবলম্বন করে। ভারত আপনাদের অপেক্ষায়!

এর আগে গেল ২ জুলাই ভারতীয় ওষুধ গবেষণা কাউন্সিল-আইসিএমআর’র ডিজি বলরাম ভার্গব একটি চিঠিতে ১২টি গবেষণা কেন্দ্রকে জানিয়ে দেন ১৫ আগস্টের মধ্যে বাজারে আনতে হবে করোনার প্রতিষেধক।

আইসিএমআরের গবেষক নিবেদিতা গুপ্ত বলেন, আমরা দ্রুত টিকা আবিষ্কারের পক্ষে। দু’বছর পরে টিকা আবিষ্কার করে কোনও লাভ নেই। আমরা দৌড়ে যাতে পিছিয়ে না পড়ি, তা-ই ওই চিঠিটি লেখা হয়েছে।

উল্লেখ্য করোনাভাইরাসে ইতোমধ্যে ৫ লাখ ৫৭ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে ভারতে মৃত্যু হয়েছে ২১ হাজার ৬শ’র বেশি মানুষের। আর বিশ্বব্যাপী আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১২ কোটি ৩৯ লাখ ৭০ হাজার, ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লাখ ৯৫ হাজার ছাড়িয়েছে।