বাঁধার মুখে ইসলামাবাদের প্রথম হিন্দু মন্দির নির্মাণ বন্ধ

১১:৩৫ অপরাহ্ণ | শনিবার, জুলাই ১১, ২০২০ আন্তর্জাতিক
islamam

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ পাকিস্তানে হিন্দু সম্প্রদায়ের জন্য নির্মিতব্য প্রথম মন্দির বাঁধার মুখে আটকে গেল। রাজধানী ইসলামাবাদে এই মন্দির নির্মাণের কথা ছিল। সে অনুযায়ী নির্মাণকাজও শুরু হয়েছিল সম্প্রতি। তবে কট্টর ইসলামপন্থী কিছু কর্মীর বাধায় ব্যাপারটি আদালত পর্যন্ত গড়ায়। এতেই মন্দিরটির নির্মাণাকাজ থেমে গেছে বলে দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল তেহরিক-ই-ইনসাফের জোটসঙ্গী পাকিস্তান মুসলিম লিগ– কায়েদ (পিএমএল-কিউ) ‘মন্দির নির্মাণ ইসলামি আদর্শের পরিপন্থী’ বলে বিরোধিতা করে। এর আগে লাহোরভিত্তিক ইসলামি সংগঠন জামিয়া আশরাফিয়া হিন্দু মন্দির নির্মাণের বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি করে। ফলে পাকিস্তানের ক্যাপিটাল ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (সিডিএ) প্রস্তাবিত মন্দিরের নির্মাণকাজ বন্ধ রেখেছে।

পাকিস্তান সরকার এ মন্দির নির্মাণের জন্য অনুমতি দেয় এবং প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান নিজেই এ মন্দির নির্মাণে ১০ কোটি টাকা অনুদান দেন। মানবাধিকার সংক্রান্ত পার্লামেন্টারি সেক্রেটারি লাল চাঁদ মালহির উপস্থিতিতে ওই মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০ হাজার বর্গফুটের ওই শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরে একটি শ্মশান ও কমিউনিটি হল নির্মাণের কথা ছিল।

ইসলামাবাদের হিন্দুরা দীর্ঘদিন ধরেই সরকারের কাছে উপাসনার জন্য একটি মন্দির ও শ্মশানের জন্য জায়গা চেয়ে আসছিলেন। শেষ পর্যন্ত ইমরান সরকার ওই মন্দির নির্মাণের জন্য জায়গা ও অর্থ বরাদ্দ দেয়। ২০১৮ সালে ক্ষমতায় আসার পর পাকিস্তানের ৮০ লাখ হিন্দু জনগোষ্ঠীর ধর্মীয় স্বাধীনতা রক্ষার অঙ্গীকার করেছিলেন ইমরান খান। গত সপ্তাহে মন্দিরটির সীমান প্রাচীর নির্মাণ শুরু হয়। এরইমধ্যে ইসলামি সংগঠনের পক্ষ থেকে আদালতে পিটিশন দাখিল করা হয়।

এ বিষয়ে পাকিস্তানের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল রাজা খালিদ মেহমুদ আদালতে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, মন্দির নির্মাণকাজ থামিয়ে দেওয়ার ঘটনায় দেশের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। আর কাউন্সিল অব ইসলামিক আইডিওলজির কাছ থেকে কোনও সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত মন্দির নির্মাণ বন্ধের আবেদনের ওপর শুনানি স্থগিত করেছেন বিচারক।

মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল মন্দিরের নির্মাণকাজ চালু রাখার জন্য কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। মন্দির নির্মাণ বন্ধ রাখার ব্যাপারটিকে ধর্মান্ধতার বহিঃপ্রকাশ মন্তব্য করে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বলেছে তারা।

১৯৪৭ সালে স্বাধীন হওয়ার পর থেকে পাকিস্তানে কোন্ও হিন্দু মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয়নি। ২০১৭ সালে নওয়াজ শরিফ ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় ইসলামাবাদে হিন্দুদের জন্য প্রথম মন্দির নির্মাণের অনুমোদন পায়। তবে সেটি গড়াতে গড়াতে মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু হয় সম্প্রতি। আইনি প্রক্রিয়ায় সেটিও এখন আটকে গেল।

Skip to toolbar