• আজ রবিবার। গ্রীষ্মকাল, ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। রাত ১১:০৭মিঃ

ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়াল, মৃত ২৫ হাজার

৯:৪১ অপরাহ্ন | শুক্রবার, জুলাই ১৭, ২০২০ আন্তর্জাতিক
indcorona

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতে ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে করোনা। গেল ৩০ জানুয়ারি ভারতের প্রথম করোনা শনাক্ত হয়। এরপর থেকে দেশটিতে সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। শনাক্ত হওয়ার ১৬৯ তম দিনে দেশটিতে ১০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে কোভিড সংক্রমণ। মারা গেছেন ২৫ হাজার মানুষ।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানায়, ভারতে শুক্রবার পর্যন্ত করোনা শনাক্তের সংখ্যা ১০ লাখ ৩ হাজার ৩৮২ জন। শেষ দিন রেকর্ড সংখ্যক শনাক্ত ও মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এ সময়ে নতুন করে আরো প্রায় ৩৫ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হয়।

অন্যদিকে মৃত্যু হয়েছে ৬৮৭ জনের। এ নিয়ে সরকারি হিসেবে ভারতে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৫ হাজার ৬০২ জনে গিয়ে ঠেকেছে।

আল জাজিরা জানায়, ৯ লাখের পর শেষ ৩ দিনেই ভারতে করোনা শনাক্ত ১০ লাখ ছাড়িয়ে গেলো।

ভারতের করোনার হটস্পট ছিল মহারাষ্ট্র ও দিল্লি। এখন সংক্রমণ বাড়ছে গ্রামাঞ্চলে, যেখানে স্বাস্থ্য অবকাঠামো দুর্বল। সংক্রমণের চিত্র সরকারি হিসাবে উঠে আসছে, তা সঠিক কি না এ নিয়ে বিশেষজ্ঞদের যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে প্রত্যন্ত এলাকায় লকডাউনের কথা ভাবছে কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকার।

এদিকে ভারতের তেলঙ্গানা রাজ্যে ২ হাজারের বেশি করোনা রোগীকে খুঁজে পাচ্ছে না প্রশাসন। তেলঙ্গানা স্বাস্থ্যদফতরের বরাত দিয়ে দেশটির সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকা জানিয়েছে, গত ১০ দিনে তেলেঙ্গানায় কোভিড রিপোর্ট পজিটিভ আসা ২ হাজারের বেশি মানুষকে খুঁজে পাচ্ছে না তেলঙ্গানা প্রশাসন। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে এই ঘটনার কথা জানিয়ে সবাইকে সতর্ক করে দিয়েছে তেলঙ্গানা স্বাস্থ্যদফতর।

দফতরের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘সরকারি হাসপাতাল ও অন্যান্য পরীক্ষা কেন্দ্রে গত ১০ দিন ধরে চলা র‌্যাপিড টেস্টে দু’হাজারেরও বেশি জনের পজিটিভ ফল আসে। ওই সব রোগীরা টেস্টের সময় ভুল (মিথ্যা) ফোন নম্বর দিয়েছিলেন। অনেকে তাদের বাড়ির ঠিকানাও ভুল দিয়েছিলেন। এখন স্বাভাবিকভাবেই তাদের খোঁজ মিলছে না।

মূলত সামাজিকভাবে বিচ্ছিন্ন হওয়ার ভয় থেকেই রিপোর্টে মিথ্যা তথ্য দিয়েছিলেন এসব রোগীরা। এমনটাই ধারণা কর্তৃপক্ষের।