• আজ ৩রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পাবনায় নিখোঁজ কৃষকের সন্ধানে দুপুরে সংবাদ সম্মেলন, বিকালে লাশ উদ্ধার

১১:২৬ অপরাহ্ন | মঙ্গলবার, জুলাই ২১, ২০২০ রাজশাহী
lash

পাবনা প্রতিনিধিঃ অবশেষে পরিবারে আশংকাই সত্য হলো। পাবনার আটঘরিয়া থেকে নিখোঁজ কৃষক খালেকের সন্ধানে দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করার পর বিকালে তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ৫ দিন নিখোঁজ থাকার পর মঙ্গলবার বিকেলে জেলার আটঘরিয়া উপজেলার একদন্ত ইউনিয়নের চৌকিবাড়ি গ্রামের ইছামতি নদী থেকে কৃষক খালেক খাঁনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহত খালেক পাবনা সদর উপজেলার বরামপুর হাজিরহাট এলাকার শামসুদ্দিন খাঁনের ছেলে। সাবেক স্ত্রী বীনা পরিকল্পিত ভাবে খালেককে ডেকে নিয়ে হত্যা বা গুম করেছে বলে সংবাদ সম্মেলনে আশংকা করা হয়েছিল।

আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিক জানান, মঙ্গলবার বিকেলে একদন্ত ইউনিয়নের চৌকিবাড়ি গ্রামে ইছামতি নদীতে একটি মৃতদেহ পানিতে ভাসতে দেখে এলাকাবাসী থানায় জানায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অর্ধগলিত মৃতদেহ উদ্ধার করে। পরে নিহতের ভাই খলিলুর রহমান লাশটি সনাক্ত করেন।

তিনি আরো জানান, পুলিশ প্রাথমিক ভাবে ধারণা করছে কয়েক দিন আগে কে বা কারা তাকে হত্যার পর নদীতে ফেলে রেখে গেছে। এ ঘটনায় আটঘরিয়া থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে পাবনা প্রেসক্লাব মিলোনায়তনে নিখোঁজ খালেকের সন্ধানে পরিবারের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে গণমাধ্যম কর্মীদের মাধ্যমে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করা হয়। এসময় তারা জানান, বলরামপুর হাজিরহাট এলাকার শামসুদ্দিন খাঁনের মেঝ ছেলে কৃষক মোঃ খালেক খাঁন (৪৮) ৫ দিন যাবত নিখোঁজ রয়েছে। তিনি দীর্ঘ দিন কুয়েত প্রবাসী ছিলেন। দেশে এসে কৃষি কাজ করছিলেন।

তার নিখোঁজের রহস্য উদঘাটনের দাবী জানিয়ে সংবাদ সম্মেলনে তারা জানান, গত ১৭ জুলাই বিকেলে নিখোঁজ খালেকের সাবেক স্ত্রী উম্মে কুলসুম বীনার মোবাইল ফোন পেয়ে খালেক বাড়ি থেকে বেড় হন। এসময় তিনি বর্তমান স্ত্রীকে বলে যান সাবেক স্ত্রীর কাছে থাকা তার ছোট সন্তানকে আনতে যাচ্ছে। কিন্তু দীর্ঘ ৫দিন অতিবাহিত হলেও খালেক আর বাড়িতে ফিরে আসেনি।

নিখোঁজ খালেককে খুজে না পাওয়ায় চরম উৎকন্ঠা আর দুশ্চিন্তার মধ্যে রয়েছে পরিবার সদস্যরা। পরিবারের অভিযোগ নিখোঁজ খালেকের প্রথম তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী উম্মে কুলসুম বীনা ও তার স্বামী মোঃ শাহিদুল ইসলাম আসিফ পরিকল্পিত ভাবে খালেককে ডেকে নিয়ে হত্যা বা গুম করেছে। খালেক নিখোঁজের বিষয়ে ১৮ জুলাই পাবনা সদর থানায় জিডি করা হয়েছে।