• আজ সোমবার। গ্রীষ্মকাল, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। সকাল ৯:৪৭মিঃ

নিজের বাবাকে প্রকাশ্যে বেল্ট দিয়ে পেটান সাহেদ

১১:৫৬ পূর্বাহ্ন | বুধবার, জুলাই ২২, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- করোনার নমুনা পরীক্ষা নিয়ে ভুয়া রিপোর্ট দেওয়ার মামলায় গ্রেপ্তার রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে উঠে আসছে একের পর এক প্রতারণার অভিযোগ। এবার নিজের বাবাকেও পেটানোর অভিযোগ এসেছে তার বিরুদ্ধে।

সাহেদের একজন সাবেক দেহরক্ষী গণমাধ্যমকে জানান, ২০১১ সালে সাহেদের বাবা ছেলের একান্ত সহকারীকে (পিএস) বিয়ে করেন। সাহেদের মা সাফিয়া করিম আগেই মারা যান।

সাবেক ওই দেহরক্ষী বলেন, বৃদ্ধ বয়সে সাহেদের বাবা আশ্রয় খুঁজছিলেন। কারণ তাকে দেখভালের তেমন কেউ ছিল না। তবে পিএসকে বিয়ে করায় নিজের বাবাকে উত্তরার অফিসে প্রকাশ্যে বেল্ট দিয়ে বেদম মারধর করেন সাহেদ। এটা দেখে রিজেন্টের অনেক কর্মী বিস্মিত হয়ে যান। পরে সাহেদের বাবা তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে মোহাম্মদপুরের বাসায় থাকতেন। দ্বিতীয় স্ত্রীর ঘরে তার একটি সন্তান রয়েছে।

সাহেদের অপকর্মের তথ্য জানতে র‌্যাব যে হটলাইন চালু করেছে সেখানে মঙ্গলবার পর্যন্ত ১৫০টি অভিযোগ জমা পড়েছে। তার মধ্যে ১৩০টি অভিযোগ এসেছে টেলিফোনে। আর বাকি ২০টি ই-মেইলে।

এদিকে রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযানের পর ১৭ জনকে আসামি করে দায়ের করা মামলার তদন্তের দায়িত্ব পেয়েছে র‌্যাব।

র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম জানান, ‘রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযানের পর এত মানুষ তাদের অভিযোগ নিয়ে আমাদের কাছে আসতে শুরু করেছে যে, অন্যান্য কাজই করতে পারছিলাম না। পরে একটি হটলাইন নম্বর খোলা হয়েছে। সেখানেও তার বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড় হয়ে আছে। আমরা অভিযোগকারীদের সহায়তায় সেই বিষয়গুলোও দেখছি। সে এত এত প্রতারণা করেছে- বলে শেষ করা যাবে না। এর মাধ্যমে সে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। আমার ধারণা, এ টাকা সে বিদেশে পাচার করেছে। এই অর্থের বিষয়েও অনুসন্ধান চলছে।’

র‌্যাবের মুখপাত্র এবং আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ বলেন, সাহেদ করিমের বিষয়ে বিভিন্ন ধরনের প্রতারণার অভিযোগ আসছে। হাজার থেকে কোটি- এসব অঙ্কের অভিযোগের তথ্য আমাদের কাছে এসেছে। অভিযোগগুলো যাচাই-বাছাই হচ্ছে।

প্রতারণার অভিযোগে সাহেদের বিরুদ্ধে আগেও অন্তত ৫৬টি মামলা করেছিলেন ভুক্তভোগীরা। দেশের বিভিন্ন জায়গায় হওয়া এসব মামলার তথ্য-প্রমাণ এখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আছে।

করোনাভাইরাসের চিকিৎসা দেওয়ার নামে প্রতারণা এবং কোভিড-১৯ পরীক্ষা নিয়ে জালিয়াতির ঘটনায় গত ৬ এবং ৭ জুলাই রিজেন্ট হাসপাতালে র‌্যাবের অভিযানের পর ওই হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ আত্মগোপনে চলে যান। পরে ১৫ জুলাই সকালে সাতক্ষীরা সীমান্ত থেকে সাহেদকে গ্রেপ্তার করার কথা জানায় র‌্যাব।