সংবাদ শিরোনাম

কোটালীপাড়ায় ট্রাক-অ্যাম্বু‌লে‌ন্সের সংঘর্ষে ভ্যানচালক নিহতকরোনায় মারা গেলেন নৌবাহিনীর ক্যাপ্টেন মাসুক হাসানলকডাউনের দ্বিতীয় দিনে সড়কে দীর্ঘ যানজট!৬ বছরের ছেলে সাহেলের প্রথম রোজা, আপ্লুত মাশরাফিকোরআন তেলাওয়াত, ইবাদতে প্রথম রোজা কেটেছে খালেদারভাঙ্গায় রাতের আঁধারে দফায় দফায় সংঘর্ষ, ভাঙচুর-লুটপাট : আহত-১৫বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে তরুণীর সর্বস্ব কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধেমহাসড়ক যানশূন্য, শিমুলিয়ায় ফেরি পারাপার বন্ধ‘তালা ভেঙ্গে মসজিদে তারাবি পড়ার চেষ্টা্’‌, পুলিশের বাধায় সংঘর্ষে মুসল্লিরা‘লঘু পাপে গুরু দণ্ড’; তিনটি মুরগি চুরির দায়ে দেড়লাখ টাকার জরিমানা চার তরুণের!

  • আজ ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরিষাবাড়িতে পানির স্রোতে ভেসে গেছে ঝিনাই নদীর ব্রিজ

৬:৩৮ অপরাহ্ন | বুধবার, জুলাই ২২, ২০২০ দেশের খবর, ময়মনসিংহ

আবদুল লতিফ লায়ন, জামালপুর- জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার শুয়াকৈর গ্রামের ঝিনাই নদের ওপর নির্মিত ২০০ মিটার ব্রিজের একাংশ বন্যার স্রোতে ভেসে গেছে।

মঙ্গলবার রাতে ব্রিজের মাঝ বরাবর বিরাট অংশ নদে বিলীন হয়ে যায়। এতে দুর্ভোগের সম্মুখীন হয়ে পড়ে ১৫টি গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ।

উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এ কে এম আশরাফুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার রাত পৌনে ২টার দিকে ব্রিজের দুইটি স্প্যানসহ মাঝখানের বিরাট একটি অংশ নদে বিলীন হয়ে যায়। খবর পেয়ে রাতেই স্থানীয় শত শত মানুষ ব্রিজটি দেখতে ভিড় জমায় এবং অনেকেই হাউমাউ করে কাঁদতে থাকেন।

তিনি আরো জানান, ব্রিজটি ভেঙে পড়ায় শুয়াকৈর, চর হেলেঞ্চাবাড়ি, শিশুয়া চর, ছাতারিয়া, সিঙ্গুরিয়া, চুনিয়াপটল, হাটবাড়ি, ডিক্রি পাঁচবাড়ি, রৌহা, নান্দিনা, বড়বাড়িয়া একাংশ, পাঁচবাড়ি ডিগ্রিসহ অন্তত ১৫টি গ্রাম উপজেলা সদরের সঙ্গে সরাসরি চলাচল বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

তিনি স্থানীয় এমপি তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানের কাছে অতি দ্রুত একটি টেকসই ব্রিজ নির্মাণ করে বিশাল জনগোষ্ঠিকে দুর্ভোগের হাত থেকে রক্ষার দাবি জানান।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) বাস্তবায়নে ২০০৬ সালে উপজেলার কামরাবাদ ইউপির শুয়াকৈর শাহ্জাদা হাট সংলগ্ন হদুর মোড় এলাকার ঝিনাই নদের ওপর ২০০ মিটার দৈর্ঘের ব্রিজটি নির্মিত হয়।

মঙ্গলবার সকালে বন্যার পানির তীব্র স্রোতে ওই ব্রিজের মাঝামাঝি প্রায় ২০ মিটার দৈর্ঘ্যের দুইটি গার্ডারসহ দুইটি পিলার প্রায় এক ফুট নিচের দিকে দেবে যায়। পরে ওইদিনই দুপুরে ইউএনও শিহাব উদ্দিন আহমদ, উপজেলা প্রকৌশলী রাকিব হাসান ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হুমায়ূন কবীর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ব্রিজে মানুষ ও যান চলাচল নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন। রাতে ব্রিজের ভাঙা অংশ ধসে পড়ে।

ইউএনও শিহাব উদ্দিন আহমদ জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দুর্ঘটনা এড়াতে সব ধরণের যানবাহন ও মানুষের চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। যেহেতু ব্রিজটি ভাঙা অংশ স্রোতে হারিয়ে গেছে, তাৎক্ষণিক কিছু করা সম্ভব নয়। তবে সংশ্লিষ্ট প্রকৌশল বিভাগের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তীতে কী করা যায় বিষয়টি ভাবা হচ্ছে।