• আজ সোমবার। গ্রীষ্মকাল, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। রাত ১২:২৭মিঃ

চট্টগ্রামের সেই সিরিয়াল ধর্ষক বেলাল ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

১১:১৫ পূর্বাহ্ন | বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৩, ২০২০ চট্টগ্রাম, দেশের খবর

সময়ের কণ্ঠস্বর, চট্রগ্রাম- চট্টগ্রামের বায়েজীদে শিশু ধর্ষণকারী ‘সিরিয়াল রেপিস্ট’ হিসেবে সন্দেহভাজন বেলাল হোসেন দফাদার (৩৯) পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন।

বুধবার (২২ জুলাই) দিনগত মধ্যরাতে শান্তিনগর এলাকার পাহাড়ে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি অস্ত্র এবং ইয়াবা উদ্ধার করেছে।

পুলিশ জানায়, নিহত বেলাল হোসেন দফাদার আগে বায়েজিদ বোস্তামি এলাকায় থাকতো। পরে সীতাকুণ্ড উপজেলার কালু শাহ মাজার এলাকায় ভাসমানভাবে বসবাস করতো।

নগর পুলিশের বায়েজিদ বোস্তামি জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) পরিত্রাণ তালুকদার জানিয়েছেন, সাম্প্রতিক সময়ে নগরীর বায়েজিদ বোস্তামি এলাকায় পাঁচ, আকবর শাহ এলাকায় দুই ও খুলশী এলাকায় একজনসহ আট জন বিভিন্ন বয়সের শিশু ধর্ষণের শিকার হয়। অনুসন্ধানে বেলাল দফাদারের সম্পৃক্ততার তথ্য পেয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এসি পরিত্রাণের দাবি, গ্রেফতারের পর শান্তিনগর আবাসিক এলাকায় পাহাড়ে বেলালের সহযোগীদের সঙ্গে পুলিশের বন্দুকযুদ্ধ হয়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে বেলাল মারা যায়। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধার করেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বায়েজিদে গত ১৫ দিনে ধর্ষণ করা হয়েছে দুই শিশু। গত ছয় মাসে আট শিশুকে ধর্ষণ করা হয়েছে একই কায়দায়। চকলেটের লোভ দেখিয়ে, টাকার বিনিময়ে লাকড়ি সংগ্রহ করে দেওয়ার প্রলোভনে সিএনজি অটোরিকশায় তুলে পাহাড়ে নিয়ে ধর্ষণ করে ছেড়ে দেওয়া হতো। ধর্ষণ শেষে আলামত নষ্ট করতে গোসল করানো হতো। শিশুরা কান্নাকাটি করলে ছুরি দিয়ে ভয় দেখানো হতো।

এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। স্থানীয়দের বরাতেই পুলিশ বেলাল দফাদারের নাম জানতে পারে। ২০১৬ সালে বায়েজিদ এলাকায় এক শিশুকে ধর্ষণের জন্য অটোরিকশায় তুলে নিয়ে যাবার সময় জনতা তাকে ধরে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছিল।

পুলিশ সূত্র জানায়, বছরখানেক আগে জামিনে বেরিয়ে আসে বেলাল। বায়েজিদ এলাকায় না ফিরে সীতাকুণ্ডে গিয়ে ভাসমানভাবে বসবাস শুরু করে। গত জানুয়ারি থেকে সে আবারও বায়েজিদ এলাকায় আসতে শুরু করে।