• আজ ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের জন্য জাতিসংঘের পূর্বাভাসের প্রয়োজন নেই: তথ্যমন্ত্রী

৪:৩৫ অপরাহ্ন | বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৩, ২০২০ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- সম্প্রতি বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে চলমান বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ। এ বছর বিশ্বে বন্যা দীর্ঘায়িত হবে বলে আশঙ্কা জানিয়েছে তারা।

এ প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, চলমান বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে জাতিসংঘের পূর্বাভাস যারা এ দুর্যোগের সঙ্গে পরিচিত নয় তাদের জন্য সহায়ক হবে, কিন্তু বাংলাদেশের জন্য জাতিসংঘের পূর্বাভাসের প্রয়োজন নেই। এ দেশের মানুষ বন্যার সঙ্গে বসবাস করতে জানে, বন্যাকে কীভাবে মোকাবিলা করতে হয় জানে।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক ভিডিও কনফারেন্সে ভারতীয় হাইকমিশনের সহায়তায় চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে আলিপুর রহমানীয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজের বিজ্ঞান ভবন নির্মাণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

বন্যা নিয়ে জাতিসংঘের পূর্বাভাস প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা বন্যা নিয়ে বসবাস করি। বন্যাকে কীভাবে মোকাবেলা করতে হয় বাংলাদেশের মানুষ সেটি জানে। বন্যা আমাদের নিত্যসঙ্গী। জাতিসংঘের পূর্বাভাস যারা বন্যার সঙ্গে পরিচিত নয় তাদের জন্য সহায়ক। আমাদের জন্য এ পূর্বাভাসের প্রয়োজন নেই। বন্যাকে কীভাবে মোকাবিলা করতে হয় সেটা আমরা জানি। আমাদের কাছ থেকে অনেকে শিখতে পারে।

দুর্যোগ নিয়ন্ত্রণে সরকার ব্যর্থ- মির্জা ফখরুলের এমন মন্তব্যের বিষয় জানতে চাইলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব প্রতিনিয়তই একই ধরনের কথা বলেন। একই বাঁশি বহুদিন ধরে বাজাচ্ছেন। একই ঢোলের আওয়াজ আমরা তার মুখ থেকে দীর্ঘদিন ধরে শুনে আসছি। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে করোনায় মৃত্যুর হার পৃথিবীর যে কয়টি দেশে কম তাদের মধ্যে একটি হচ্ছে বাংলাদেশ। এমনকি ভারত-পাকিস্তানের থেকেও বাংলাদেশে করোনা আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুর হার কম। এটা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বের কারণে।’

তিনি বলেন, ‘ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবরা যখন ক্ষমতায় ছিলেন তখন তারা সঠিকভাবে কোনো দুর্যোগ মোকাবেলা করতে পারেননি। সে ব্যর্থতা আমরা বার বার দেখেছি।’

বর্তমান সরকারের সাফল্য তুলে ধরে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখনই দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছেন তখনই তার বলিষ্ঠ নেতৃত্ব দিয়ে যে কোনো দুর্যোগ সঠিকভাবে মোকাবিলা করে দেখিয়েছেন। সেই সক্ষমতার জন্য তিনি আন্তর্জাতিকভাবে পুরস্কৃতও হয়েছেন। ১৯৯৮ সালে ভয়াবহ বন্যায় দেশের ৭৫ ভাগ তিন মাস পানির নিচে ছিল। কিন্তু তখন মানুষ অনাহারে মারা যায়নি। এছাড়া সিডর, আইলাসহ অনেক দুর্যোগের কথা আমরা সবাই জানি। এর বাইরে গত ১১ বছরে অনেক বন্যা হয়েছে, সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড় হয়েছে। তাতেও প্রধানমন্ত্রী সঠিক পদক্ষেপ নিয়ে দেশের মানুষকে নিরাপদ রেখেছেন।