• আজ সোমবার। গ্রীষ্মকাল, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। রাত ১২:৫২মিঃ

জার্মানির এক অঙ্গরাজ্যের স্কুলে বোরকা ও নেকাব নিষিদ্ধ

৯:৩৪ অপরাহ্ন | বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৩, ২০২০ আন্তর্জাতিক
Muslims-Girls

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ জার্মানির বাডেন ভুর্টেমব্যার্গ রাজ্যে এখন থেকে স্কুলে বোরকা বা নিকাব পরে যাওয়া যাবে না। এমন কিছু পরা যাবে না, যা মুখ ঢেকে রাখে। আগেই শিক্ষিকাদের জন্য এই নিয়ম জারি করেছিল রাজ্যটি। খবর ডয়চে ভেলের।

জার্মানির পশ্চিম প্রান্তের এই অঞ্চলটির শাসন ক্ষমতায় রয়েছে গ্রিন পার্টি। গত কয়েক মাস ধরেই ছাত্রীরা মুখ ঢেকে স্কুলে যেতে পারবে কিনা, তা নিয়ে বিতর্ক চলছিল সেখানে। ঘটনার সূত্রপাত এক স্কুলছাত্রীর একটি মামলাকে ঘিরে।

হামবুর্গ আদালতে বোরকা বা নিকাব পরার পক্ষে মামলা করেছিল ওই ছাত্রী। দীর্ঘ শুনানির পর আদালত জানায়, রাজ্যের স্কুল আইন অনুযায়ী- মুখ ঢেকে স্কুলে যেতেই পারে ছাত্রীরা। কিন্তু রাজ্য যদি স্কুল আইন বদলে ফেলে, সে ক্ষেত্রে নিয়মের পরিবর্তন হতে পারে। আদালতের এই রায়ের পরই প্রশাসন স্কুল আইন বদলের তোড়জোড় শুরু করে।

আইন বদল হলেও বিষয়টি নিয়ে বিস্তর বিতর্ক হয়েছে বাডেনে। গ্রিন পার্টির একাংশের বক্তব্য, বোরকা বা নিকাব ব্যক্তি স্বাধীনতার পরিপন্থী। কোনও গণতান্ত্রিক দেশে নারীদের মুখ ঢাকতে বাধ্য করা যায় না। অধিকারের কথা ভেবেই এই ধরনের পোশাক নিষিদ্ধ করা উচিত।

কোনও কোনও রাজনীতিবিদ জানিয়েছেন, শুধু বাডেন ভুর্টেমব্যার্গেই নয়, পুরো জার্মানিতেই বোরকা এবং নিকাব বাতিল করা উচিত। আবার অন্যপক্ষের বক্তব্য, সবারই পোশাক নির্বাচনের অধিকার আছে। গণতান্ত্রিক দেশে সবার ধর্মচর্চারও সমান অধিকার আছে। বোরকা বা নিকাব যেহেতু ধর্মীয় পোশাক, ফলে তা পরারও অধিকার সবার রয়েছে।

এক জার্মান বলেন, আমি একজন প্রগতিশীল মানুষ হিসেবে ব্যক্তিগতভাবে মনে করি যারা বোরকা পরতে চান তাদের বোরকা পরার অধিকার গণতান্ত্রিক। তবে স্কুলের কোমলমতি শিশু-কিশোরীরা যাতে অনিচ্ছা সত্ত্বেও মা-বাবা বা ধর্মীয় বাধ্যবাধকতার কারণে অধিকারের জায়গা থেকে বৈষম্যের শিকার না হন সেটিও লক্ষ্য রাখতে হবে। না হলে হীতে বিপরীত হবে।

আপাতত স্কুল পর্যায়ে এমন বাধ্যবাধকতা থাকলেও, কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে তেমন কোনো বিধিনিষেধ এখনও দেয়া হয়নি।