• আজ সোমবার। গ্রীষ্মকাল, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। সকাল ৮:৫৩মিঃ

রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকদের নিয়ে উদ্ভট বিবৃতি

১১:৩৪ পূর্বাহ্ন | শনিবার, জুলাই ২৫, ২০২০ রংপুর
Rangpur BRU

সাইফুল ইসলাম মুকুল,রংপুর প্রতিনিধি: বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর এর ‘নবপ্রজন্ম শিক্ষক পরিষদ’ এর উদ্ভট বিবৃতিতে সামাজিক মাধ্যমে সমালোচনায় হাস্যরসের সৃষ্টি হয়েছে। এতে সাংবাদিকদের সংবাদ লেখায় হস্তক্ষেপ করেছে শিক্ষকের এই সংগঠনটি। শুক্রবার নব প্রজন্ম শিক্ষক পরিষদের সদস্য পক্ষ থেকে আহবায়ক সুমাইয়া তাহসিন হামিদা এবং সদস্য সচিব মোঃ খালিদ হাসান রিয়েল এই বিবৃতি দেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সংবাদদাতা হিসেবে দায়িত্বশীল ভুমিকা পালন প্রসঙ্গে এই শিরোনামে তারা বিবৃতি দেন। বিবৃতিতে বলা হয়েছে লোকপ্রশাসন বিভাগের মাহফুজুল ইসলাম বকুল ‘বাংলানিউজ২৪.কম’ এর ক্যাম্পাস সংবাদদাতা, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের রাব্বি হাসান সবুজ, যুগান্তরের সংবাদদাতা লোকপ্রশাসন বিভাগের ইভান চৌধুরী, মানবজমিনে ও ঢাকা টাইমসের ক্যাম্পাস সংবাদদাতা এবং বাংলা বিভাগের মোবাশ্বের আহমেদ ইত্তেফাক এর ক্যাম্পাস সংবাদ সংবাদদাতা হিসেবে পড়াশোনার পাশাপাশি পার্ট টাইম জব করছে। কিন্তু এরা সকল সংবাদ কেন্দ্রীয় অফিসকে অবহিত করে না এবং এদের কাছ থেকে কোন গঠনমূলক রিপোর্ট পাওয়া যায় না বরং এরা এই দায়িত্বের অপব্যবহার করছে। এতে করে তারা কেবল বিশ্ববিদ্যালয়ের ও নিজেদের ক্ষতি করছে ।

সম্প্রতি বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর এর তিন কর্মকর্তা যারা কিনা দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর মামলার আসামি, তাদেরকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (বেরোবি), রংপুর প্রশাসন। দৃশ্যত এরকম একটা স্পর্শকাতর’ বিষয় নিয়ে সংশ্লিষ্ট পত্রিকাগুলোর ক্যাম্পাস প্রতিনিধি হিসেবে কেন্দ্রীয় অফিসে অবহিত করেনি। এ ব্যাপারে তাদের কোনো ভ্রুক্ষেপই নেই যা অনভিপ্রেত একটি ঘটনা এবং উদ্দ্যেশ্যেমূলক। তাই নব প্রজন্ম শিক্ষক পরিষদের সংশ্লিষ্ট পত্রিকার সম্পাদকমন্ডলীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছে এরকম ব্যক্তিদের ক্যাম্পাস সংবাদ সংবাদদাতার দায়িত্ব থেকে বিরত রাখার জন্য। নব প্রজন্ম শিক্ষক পরিষদ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনেরও দৃষ্টি আকর্ষণ করছে এদেরকে ও এদের আসল মদদ দাতাদের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য।

এ বিষয়ে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি পোমেল বড়ূয়া জানান, একজন শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের শোভা যতটুকু বৃদ্ধি করে,এমন শিক্ষক দ্বারা বোধ হয় ততটুকুও সম্ভব নয়। একজন সাংবাদিক কোন নিউজ করবে বা করবে না তা বলার অধিকার আপনার নাই। সাংবাদিকতা পেশা নিয়ে কথা বলার আগে দশ বার ভাববেন!! তিনি আরো বলেন, কর্তৃপক্ষ কাকে সাংবাদিক হিসেবে নিয়োগ দিবে, কাকে দিবে না সেটি একান্তই কর্তৃপক্ষের অধিকার। আপনাদের মাথাব্যথা কেন?

এবিষয়ে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল ইসলাম বকুল বলেন,সাংবাদিকতা স্বাধীন এবং নিরপেক্ষ একটি পেশা। শিক্ষকতার মত মহৎ একটি পেশায় নিয়োজিত থেকে এমন একটা দায়িত্বহীন কাজের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং এই বিবৃতি স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিপন্থী বলে আমি মনে করি।

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতির সভাপতি মোবাশ্বের আহমেদ বলেন, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় নব প্রজন্ম শিক্ষক পরিষদের বিবৃতি নি:সন্দেহে স্বাধীন সাংবাদিকতা ও মতপ্রকাশের পরিপন্থি, অন্যায় এবং অপরাধ। তাদের এই বিবৃতি ক্যাম্পাস সাংবাদিকদের জন্য হুমকি স্বরুপ।

উল্লেখ্য, শিক্ষকের এই সংগঠন বিভিন্ন সময়ে এমন উদ্ভট বিবৃতি আর প্রেস রিলিসে সমালোচনার কেন্দ্রবিন্দু হয়েছিল। এই সংগঠনের অধিকাংশ শিক্ষক বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করার সময়কাল এক থেকে দুই বছর।