• আজ ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

১১:৪১ পূর্বাহ্ন | শনিবার, জুলাই ২৫, ২০২০ রংপুর
HILI PIC

মোঃ আব্দুল আজিজ, হিলি প্রতিনিধি: আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে ১৫৩৫ জন অসহায় দুস্থদের জন্য ১৫.৩৫ মেট্রিকটন চাল বরাদ্দদেয় উপজেলা প্রকল্পবাস্তবায়ন অফিস। কিন্ত কর্মহীন অসহায় মানুষের মাঝে সরকারের বরাদ্দকৃত ভিজিএফ চাল বিতরণে ব্যাপক অনিয়ম ও দুনীতির অভিযোগে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার ভাদুরিয়া বাজারে মানববন্ধন করেছেন এলাকাবাসী ও ইউনিয়ন পরিষদের ৯জন ইউপি সদস্যরা।

শুক্রবার (২৪ জুলাই) বিকেলে ভাদুরিয়া ৬নং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আসমান জামিলের বিরুদ্ধে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে ইউপি সদস্য ও সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্যরা অভিযোগ করে জানান, গত বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) ইউনিয়ন পরিষদের দুস্থদের মাঝে চাল বিতরণের সময় ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। ৭নং ওয়ার্ডেই প্রায় ৩৫ জন ব্যক্তি চাল পায়নি। চালগুলো চেয়ারম্যান আসমান জামিল বিক্রি করে দিয়েছে। শুধু একটি ওয়ার্ডই না, তালিকায় নাম থাকার পর এবং হাতে টোকেন নিয়ে ভাদুরিয়া, সাকোপাড়া, দীঘিরত্না, পাকুড়িয়া, বাজিদপুর, মহেশপুরসহ বেশ কিছু গ্রামের ব্যক্তি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাল না পাওয়ার এমন অভিযোগ করেন।

তারা আরও জানান, মাতৃত্বকালীন ভাতা দেওয়ার নাম করে জনপ্রতি ৫ হাজার টাকা করে নিয়েছেন চেয়ারম্যান। এতে করে গরিব মানুষগুলোর অনেক সমস্যার সৃষ্টি হয়। চেয়ারম্যান আসমান জামিল ইউনিয়নে আমাদের (ইউপি সদস্য) নিয়ে কোন প্রকার মিটিং করে না। তিনি প্রায় সব কিছুর একাই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন। ইউনিয়নের খেটে খাওয়া মানুষের জন্য বরাদ্দকৃত ভিজিএফ এর চাল সংশ্লিষ্ট কোনো ইউপি সদস্যের সাথে সমন্বয় না করে মনগড়া ভাবে বিতরণ করেছেন চেয়ারম্যান। এতে করে প্রকৃত মানুষেরা চাল না পেলেও চেয়ারম্যানের মনোনীত পছন্দের ব্যক্তিরা চাল পেয়েছেন।

এদিকে চাল না পাওয়া কয়েক জনের সাথে কথা হয়। তারা জানান, ইউপি সদস্যরা (মেম্বার) চাল দেওয়ার কথা বলে ইউনিয়নে তাদের আসতে বলেন এবং তাদের হাতে চাল নেওয়া টোকেন দেওয়া হয়। কিন্তু চেয়ারম্যান টিপসহি নিয়ে টোকেনগুলো ছিড়ে ফেলে দেয় এবং চাল না দিয়ে রুম থেকে বের করে দেন।

৬নং ভাদুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আসমান জামিল চাল বিতরণের অনিয়মের কথা অস্বীকার করে জানান, চাল বিতরণের জন্য ৫ জন করে একটি করে গ্রুপ করে দেওয়া হয়েছে। আমার নামে যে অভিযোগ তা সত্য নয়। যাদের টোকেন ছিলো তাদেরকে আমি সন্ধ্যা পর্যন্ত তাদের মাঝে চাল বিতরণ করেছি।