• আজ মঙ্গলবার। গ্রীষ্মকাল, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২০শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। সকাল ৬:০৯মিঃ

টেকনাফে ফের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গা নিহত, ২ লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার

১:০৮ অপরাহ্ন | শনিবার, জুলাই ২৫, ২০২০ চট্টগ্রাম, দেশের খবর

সময়ের কণ্ঠস্বর, কক্সবাজার- কক্সবাজারের টেকনাফে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) – এর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুইজন রোহিঙ্গা নিহত হয়েছেন। বিজিবির দাবি, তারা ইয়াবা কারবারি।

ঘটনার সময় ২ লাখ ১০ হাজার পিস ইয়াবা, ১টি দেশীয় এলজি, ১ রাউন্ড তাজা কার্তুজ, ১টি ধারালো কিরিচ উদ্ধার করেছে বিজিবি।

বিজিবি জানায়, শনিবার ভোরে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের মোচনীস্থ ছ্যুরিখাল এলাকায় এই ‘বন্দুকযুদ্ধে’র ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উখিয়া উপজেলার বালুখালী ১নং রোহিঙ্গা ক্যাম্প এইচ/৩৯ ব্লকের বাসিন্দা হাবিব উল্লাহ ছেলে মো: ফেরদৌস (৩০) ও একই ক্যাম্পের এইচ/২০ ব্লকের মৃত সৈয়দ আহমদের ছেলে আব্দুস সালাম (৩৫)।

টেকনাফ ২নং বিজিবি’র অধিনায়ক লে.কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের লেদা বিওপি’র সদস্যরা সীমান্তে টহল দেওয়ার সময় ওই এলাকার মোচনীস্থ ছ্যুরিখাল এলাকা দিয়ে রাতের অন্ধকারে মিয়ানমার থেকে কিছু লোককে সাঁতার কেটে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে দেখেন। এসময় দায়িত্বরত বিজিবি সদস্যরা তাদের চ্যালেঞ্জ করলে তারা বিজিবি সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে।

এসময় বিজিবি’র তিনজন সদস্য আহত হন। এরপর আত্মরক্ষার্থে বিজিবি সদস্যরাও পাল্টা গুলি করে। এভাবে প্রায় পাঁচ মিনিট গুলিবিনিময় হয়। একপর্যায়ে তারা পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থল থেকে ২লাখ ১০ হাজার পিস ইয়াবা যার বাজার মূল্য প্রায় ৬ কোটি ৩০ লাখ, ১টি দেশীয় তৈরি এলজি বন্দুক, ১ রাউন্ড তাজা কার্তুজ ও ১টি ধারালো কিরিচসহ দুইজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

পরিচয় শনাক্তের পর দ্রুত তাদের চিকিৎসার জন্য টেকনাফ স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। মৃতদেহ দুইটি ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

এ ব্যাপারে টেকনাফ থানায় সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়ের করেছে বিজিবি। জব্দকৃত ইয়াবা ও অস্ত্র টেকনাফ সদর ব্যাটালিয়নে জমা রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য, এর আগে গতকাল শুক্রবার ভোররাতে টেকনাফে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে উখিয়ার ইউপি সদস্যসহ রোহিঙ্গা যুবক নিহত হন। আর শনিবার ভোররাতে নিহত হন আরো দুজন রোহিঙ্গা।

এ নিয়ে চলতি বছরের শুরু হতে এ পর্যন্ত ৫৮ জন বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। যাদের ভেতর অধিকাংশ রোহিঙ্গা এবং তারা ডাকাত ও ইয়াবা কারবারি। এমনটি জানিয়েছে শৃংখলাবাহিনী।