সংবাদ শিরোনাম

খালেদা জিয়ার সিটি স্ক্যানের রিপোর্ট নিয়ে যা বললেন চিকিৎসক২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিলেন কাদের মির্জাটাঙ্গাইলে ভন্ড পুরুষ কবিরাজ নারী সেজে যুবককে বিয়ে! অতঃপর…ব্যক্তিগত কাজে সরকারি গাড়ি নিয়ে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার ঢাকা ভ্রমণ!শেরপুরের সেই শিশু রোকনের পরিবারের পাশে ইউএনও!কক্সবাজারে অস্ত্রসহ ডাকাতি মামলার আসামি গ্রেফতারকক্সবাজারে অনুপ্রবেশকারীর পক্ষ না নেয়ায়, আ’লীগ সভাপতিকে অব্যাহতি!শাহজাদপুরে ট্যাংকলরি সিএনজি’র মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ১রমজান মাসে আলেমদের হয়রানি মেনে নেয়া যায় না: নুরুল ইসলাম জিহাদীখালেদা জিয়াকে পাকিস্তান-জাপান দূতের চিঠি

  • আজ ৩রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

‘মুজিব বর্ষেই শতভাগ এলাকা বিদ্যুতায়নের আওতায় আসবে’- বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

১১:৪৮ অপরাহ্ন | শনিবার, জুলাই ২৫, ২০২০ জাতীয়
nosrul

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ মুজিব বর্ষেই দেশের শতভাগ এলাকা বিদ্যুতায়নের আওতায় আসবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। প্রতিমন্ত্রী আজ ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে কেরাণীগঞ্জে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ প্রদানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ও ঢাকা -২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম। বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী অনলাইনে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে কেরাণীগঞ্জের আটটি ইউনিয়নে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ প্রদান করেন।

বর্তমানে ৯৭ ভাগ মানুষ বিদ্যুত ব্যবহারের সুযোগ পাচ্ছে জানিয়ে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা মুজিব বর্ষেই শতভাগ এলাকাকে বিদ্যুতায়নের আওতায় আনতে চাই।’

তিনি বলেন, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহারের সুবিধা পেলে জনগণ সব ধরনের অনলাইন-ভিত্তিক সেবা গ্রহণের সুবিধা নিতে পারবে।’

নসরুল হামিদ বলেন, ইন্টারনেট ব্যবহার করে জনগণের দোরগোড়ায় ব্যাংকিং সেবা পৌঁছে দেয়ার পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। গ্রামাঞ্চলে ইন্টারনেট সেবা পৌঁছে দিতে আইসিটি বিভাগের যে ভূমিকা রাখছে তার প্রশংসাও করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘দেশের গ্রামীণ এলাকার মানুষ ইন্টারনেট সুবিধা ও সেবার পাওয়ার ফলে এখন পুরো বিশ্বের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করতে পারছে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ইনফো-সরকার (৩য় পর্যায়) প্রকল্পের মাধ্যমে ইউনিয়ন পর্যায় ব্রডব্যান্ড কানেক্টিভিটি প্রান্তিক এলাকায় ইন্টারনেট সেবা পৌঁছে দিচ্ছে। ফলে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার অর্থনৈতিক কার্যক্রমের অন্যতম হাবে পরিণিত হচ্ছে। এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ আর স্বপ্ন বা কল্পনা নয়, বাস্তবে রূপান্তরিত হয়েছে।

উল্লেখ্য, ইনফো-সরকার ৩য় পর্যায় প্রকল্পের আওতায় প্রান্তিক গ্রামীণ জনপদে দ্রুতগতির ইন্টারনেট ব্রডব্যান্ড সংযোগ প্রদানের জন্য ২,৬০০টি ইউনিয়নে পয়েন্ট অফ প্রেজেন্স (পিওপি) স্থাপন এবং ১৯,৫০০ কিমি অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল স্থাপনের মাধ্যমে উচ্চগতির নেটওয়ার্ক অবকাঠামো স্থাপন করা হচ্ছে।

এছাড়াও ২৬০০ ইউনিয়নে অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবলের মাধ্যমে দ্রুতগতির ইন্টারনেট অবকাঠামো স্থাপনের মাধ্যমে বাংলাদেশের ইউনিয়ন পর্যায়ে ২৬,০০০ সরকারি অফিসে উচ্চগতির ইন্টারনেট সংযোগ প্রদান করা সম্ভব হবে। ইতোমধ্যে পুলিশের ১,০০০টি অফিসের মধ্যে ভিপিএন সংযোগ স্থাপন করা হয়েছে।